ঢাকা, শনিবার 4 August 2018, ২০ শ্রাবণ ১৪২৫, ২১ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

চুয়াডাঙ্গায় দ্বিতীয় দিনের মতো অনির্দিষ্টকালের বাস ধর্মঘট

চুয়াডাঙ্গা সংবাদদাতা : ঝিনাইদহে চুয়াডাঙ্গা থেকে ছেড়ে যাওয়া বাস চলাচলে বাধা দেয়ার প্রতিবাদে বৃহ¯পতিবার সকাল ৬টা থেকে চুয়াডাঙ্গা জেলা মালিক শ্রমিক ঐক্য পরিষদের ডাকে গতকাল শুক্রবার ২য় দিনের মতো বাস ধর্মঘট অব্যাহত ছিল। 

গতকাল শুক্রবার সকালে আন্তঃজেলা বাস টার্মিনালসহ শহরের বিভিন্ন বাসস্ট্যান্ড ঘুরে দেখা যায়, সেখান থেকে কোন বাস ছেড়ে যায়নি। বাস কাউন্টারগুলোকেও দেখা গেছে তালাবদ্ধ অবস্থায়। লাগাতার ধর্মঘটের কারণে বাস চলাচল বন্ধ থাকায় বিপাকে পড়েছে সাধারণ যাত্রীরা। 

জেলা মালিক শ্রমিক ঐক্য পরিষদ নেতা রিপন মন্ডল জানান, চুয়াডাঙ্গা থেকে ছেড়ে যাওয়া রয়েল এক্সপ্রেস বাস ঝিনাইদহের ওপর দিয়ে পটুয়াখালী যাওয়ার পথে প্রায়ই ঝিনাইদহ জেলা বাস-মিনিবাস মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দের বাধার মুখে পড়ে। স্বাভাবিকভাবে যানবাহন চলাচল না করতে দেয়ার প্রতিবাদে বৃহ¯পতিবার সকাল থেকে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটের ডাক দেয়া হয়েছে। বিষয়টি সমাধান না হওয়া পর্যন্ত লাগাতার ধর্মঘট চলবে।

মালিক শ্রমিক ঐক্য পরিষদের নেতা ও চুয়াডাঙ্গা জেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি এম জেনারেল ইসলাম বলেন, ঝিনাইদহে রয়েল এক্সপ্রেসের কাউন্টার বন্ধ করে দিলে তার প্রতিবাদে মালিকরা বাস চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে। ঝিনাইদহ-চুয়াডাঙ্গা রুটের লোকাল বাসের যে ৬০ ট্রিপ ঝিনাইদহ মালিক সমিতি চালিয়ে আসছে তার মধ্যে থেকে অর্ধেক ট্রিপ চুয়াডাঙ্গার দুই মালিক সমিতিকে দেয়ার দাবি করছি।

বৃহস্পতিবার সকালের দিকে ঝিনাইদহ থেকে ছেড়ে আসা কয়েকটি যাত্রীবাহী বাস চুয়াডাঙ্গা জেলা সীমান্তের বদরগঞ্জ বাজার পৌঁছুলে চুয়াডাঙ্গা জেলা বাস পরিবহন মালিক ও শ্রমিক নেতারা বাধা দেয়। চুয়াডাঙ্গার বদরগঞ্জ থেকে যাত্রীবাহী বাসগুলো ঝিনাইদহ জেলা সীমান্ত থেকে ফেরত পাঠানো হয়। এ সময় চুয়াডাঙ্গায় যাওয়া অনেক যাত্রীরা দুর্ভোগে পড়েন। বদরগঞ্জ থেকে চুয়াডাঙ্গায় বাস বন্ধ থাকার ফলে যাত্রীরা বিভিন্ন যানবাহনযোগে তারা নিজ নিজ গন্তব্যে পৌঁছান। তবে চুয়াডাঙ্গার সীমান্ত অদূরে ঝিনাইদহের বোড়াই থেকে ঝিনাইদহ জেলায় যাত্রীবাহী বাস চলাচল করতে দেখা যায়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ