ঢাকা, সোমবার 6 August 2018, ২২ শ্রাবণ ১৪২৫, ২৩ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

কাশ্মীরের বিশেষ আইন বাতিলে উত্তেজনা

৫ আগস্ট, আলজাজিরা : বিশেষ নাগরিক অধিকার রক্ষায় প্রচলিত একটি আইন শীর্ষ আদালতে বাতিলে আশঙ্কায় ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে উত্তেজনা বিরাজ করছে। আজ সোমবার এই বিষয়ে ভারতের সর্বোচ্চ আদালত রায় দেবেন। জম্মু ও কাশ্মীরের অনুচ্ছেদ ৩৫-এ আইনে স্থায়ী বাসিন্দাদের সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে এবং তাদের বিশেষ অধিকার ও সুবিধা দেওয়া হয়েছে। এতে রাজ্যের বাসিন্দা ছাড়া কেউ সম্পত্তি ক্রয় এবং সরকারি চাকরিতে নিয়োগে নিষেধাজ্ঞা রাখা হয়েছে। সুপ্রিম কোর্টে এই আইন বাতিলের জন্য একটি আপিলের পর এই উত্তেজনা তৈরি হয়েছে। আশঙ্কা করা হচ্ছে, এই আইন বাতিল হলে মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ রাজ্যটিতে বড় ধরনের পরিবর্তন আসতে পারে। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম এখবর জানিয়েছে। খবরে বলা হয়েছে, জম্ম-কাশ্মীরের রাজনীতিক, ব্যবসায়ী, নাগরিক সমাজ ও বাসিন্দারা এই আইন বাতিল হলে প্রতিবাদে বড় ধরনের আন্দোলনের হুমকি দিয়েছেন।

কাশ্মীরের ব্যবসায়ীদের জোট ইকোনমিক অ্যালায়েন্সের প্রধান ইয়াসিন খান বলেন, আমরা এক সপ্তাহ ধরে প্রতিবাদ করছি। কাশ্মীরের ভৌগলিক চরিত্র পাল্টানোর কোনও ধরনের পদক্ষেপ ও ফিলিস্তিনের মতো পরিণত করার চেষ্টা বরদাশত করা হবে না। হিন্দু জাতীয়তাবাদীদের সঙ্গে সম্পৃক্ত উই দ্য সিটিজেন নামের একটি এনজিও আদালতে আইন বাতিলের এই আহ্বান জানিয়েছে। তাদের দাবি, আইনটি উচ্চমাত্রায় বৈষম্যমূলক। ফলে তা অসাংবিধানিক ঘোষণা করা হোক।

এনজিওটি আদালতের আবেদনে আরও জানিয়েছে, আইনটি ভারতের অখণ্ড তার বিরোধী এবং ভারতীয় নাগরিকদের মধ্যে বিশেষ শ্রেণি তৈরি করছে।

তিন স্বাধীনতাকামী নেতা সৈয়দ আলি গিলানি, মিরওয়াইজ উমর ফারুক ও মোহাম্মদ ইয়াসিন মালিকেরজোট জয়েন্ট রেসিস্ট্যান্স লিডারশিপের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ভারত সরকারের কাছে আমরা এটা স্পষ্ট করে বলতে চাই যে, কাশ্মীরা এই হামলা মাথা পেতে নেবে না। কাশ্মীরের ভৌগলিক চরিত্র বদলানোর যে কোনও পদক্ষেপকে দৃঢ়ভাবে প্রতিহত করা হবে।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, তারা আমাদের হত্যা করতে পারবে, আটক করতে পারবে। কিন্তু চাপের মুখে নতি স্বীকার করাতে পারবে না। আমরা জীবন দিতে প্রস্তুত এবং জনগণের স্বার্থ রক্ষায় আটক হতেও পিছপা হবো না।

বড় ধরনের প্রতিবাদ আন্দোলন হলে তা সহিংসতা, হরতাল ও কারফিউতে রূপ নিতে পারে।

কাশ্মীরী আইনজীবীদের হয়ে আদালতে আইনটি বহাল রাখার জন্য লড়বেন আইনজীবী জাফর শাহ। তিনি আল জাজিরাকে বলেন, বিতর্কিত অঞ্চলে রাজনৈতিক ইস্যু বজায় রাখার জন্য এই আইনটি বহাল থাকা জরুরি। এই আইনটিই কাশ্মীরের পরিচয় এবং সংবিধানের এই ধারাটিই চারটি অধিকারের নিশ্চয়তা দেয়। আইনে কোনও পরিবর্তন হলে এসব অধিকার হারাবে কাশ্মীরীরা। এই আইন বাতিল হলে জাতিসংঘ স্বীকৃত কাশ্মীরের বিরোধ নিয়ে জনগণ ও সাংবিধানিক ইতিহাসে প্রভাব ফেলবে।

এই আইনটি প্রণয়ন করেছিলেন কাশ্মিরের শেষ রাজা মহারাজা হরি সিং। ১৯২৭ সাল থেকে এই আইন জারি আছে। পরে স্বাধীনতার পর তা ভারতীয় সংবিধানে যুক্ত করা হয় এবং ১৯৫৪ সালে তা গৃহীত হয়।

তবে ভারতের ক্ষমতাসীন হিন্দু জাতীয়তাবাদী দল ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) কাশ্মিরিদের আশঙ্কা ও ভয়ের কথা উড়িয়ে দিয়েছে। রাজ্যটির বিজেপি সাধারণ সম্পাদক অশোক কৌল বলেন, যারা সমালোচনা করছে তারা মানুষকে বোকা বানাচ্ছে। কেউ চাকরি হারাবে না। বিষয়টি এখন আদালতের কাছে। আদালত যে রায় দেবেন তা আমরা মেনে নেব। প্রতিবাদের কোনও কারণ নেই। আইন পরিবর্তন হলেও কিছুই বদলাবে না। ভারতের অন্যান্য রাজ্য থেকে কাশ্মির আলাদা কিছু না।

ভারত ও পাকিস্তান কাশ্মীর নিয়ে তিনবার যুদ্ধে জড়িয়েছিল। ১৯৮৯ সাল থেকেই ভারতীয় শাসনের বিরুদ্ধে সেখানকার বিদ্রোহীরা লড়াই করছে। গত ২০ বছরের সহিংসতায় কয়েক হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে যাদের বেশিরভাগ বেসামরিক নাগরিক।

এই আইন বাতিলের ইস্যুটিকে কেন্দ্র করে কাশ্মীরের বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও গোষ্ঠীকে একত্রিত করেছে। এই সপ্তাহের শুরুতে ব্যবসায়ী, শিল্পপতি, পরিবহন সমিতি ও ফল উৎপাদকদের ২৭ টি সংগঠনে প্রতিনিধিরা আইনটি বহাল রাখার অঙ্গীকার করেছেন। এক বিবৃতিতে তারা বলেছেন, আইনটি জম্মৃ-কাশ্মীরের জনগণের জন্য জীবন-মৃত্যুর মতো বিষয়। আইনটি রক্ষায় আমরা রক্ত দিতেও প্রস্তুত আছি।

স্থানীয় আশঙ্কা, আইনটির পরিবর্তনের ফলে রাজনৈতিক বিরোধ থেকে জনগণের মনোযোগ অন্যদিকে ঘুরে যাবে। ২৮ বছরের স্থানীয় যুবক দানিশ আহমদ বলেন, হিন্দু জাতীয়তাবাদীরা এই আইন বাতিল করতে চাইছে এখানে আসার জন্য। তারা এখানকার রাজনৈতিক বিরোধের প্রকৃতি পাল্টে দিতে চায়। এটাই কাশ্মীরীদের উদ্বেগের কারণ।

সংবিধানের ৩৫-এ ধারা রক্ষার দাবিতে সর্বাত্মক বনধ পালিত : ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা সম্বলিত সংবিধানের ৩৫-এ ধারায় হস্তক্ষেপের প্রতিবাদ এবং ওই ধারা রক্ষার দাবিতে সর্বাত্মক বনধ পালিত হয়েছে। গতকাল রোববার বনধকে কেন্দ্র করে প্রশাসনের পক্ষ থেকে অমরনাথ তীর্থযাত্রা স্থগিত করা হয়েছে। ৩৫-এ ধারায় রাজ্যের স্থায়ী বাসিন্দাদের বিশেষ অধিকার ও সুবিধা দেয়া হয়েছে। গতকাল রোববার বনধকে কেন্দ্র করে কাশ্মীর উপত্যকাজুড়ে সমস্ত দোকানপাট, বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে এবং সড়কে কোনো যান চলাচল করেনি। আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় প্রশাসনিক কর্তৃপক্ষ সমস্ত স্পর্শকাতর এলাকায় নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের মোতায়েন করা হয়। গোটা কাশ্মির উপত্যকা জুড়ে ট্রেন চলাচল স্থগিত করা হয়েছে।কাশ্মীরী নেতা সাইয়্যেদ আলিশাহ গিলানি, মীরওয়াইজ ওমর ফারুক ও মুহাম্মদ ইয়াসীন মালিকের সমন্বিত যৌথ প্রতিরোধ নেতৃত্বের পক্ষ থেকে ৫ ও ৬ আগস্ট বনধের ডাক দেয়া হয়েছে।বার এসোসিয়েশন, পরিবহন সংস্থাসহ ব্যবসায়ীদের সমস্ত সংগঠন ওই বনধকে সমর্থন জানিয়েছে। গত কয়েকদিন ধরে সেখানে ন্যাশনাল কনফারেন্স, পিডিপি’র মতো মূল ধারার দলসহ বিভিন্ন বাণিজ্যিক সংস্থার পক্ষ থেকে ৩৫-এ ধারার সমর্থনে প্রতিবাদ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। ২০১৪ সালে এক বেসরকারি সংগঠন সুপ্রিম কোর্টে জম্মু-কাশ্মীর থেকে ৩৫-এ ধারা বাতিল করার আবেদন জানায়। জম্মু-কাশ্মির সরকার আদালতে হলফনামা দিয়ে ওই আবেদন খারিজ করার দাবি করলেও কেন্দ্রীয় সরকার ওই ধারার পক্ষে কোনো সাফাই দেয়নি। এরপর থেকে ওই ধারায় হস্তক্ষেপ করাকে কেন্দ্র করে তীব্র বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে।

৩৫-এ ধারা অনুযায়ী, রাজ্যের স্থায়ী বাসিন্দা ছাডা কেউ সেখানকার সম্পত্তি বেচাকেনা করতে পারবে না। স্থায়ী বাসিন্দাদের জন্য সরকারি চাকরি এবং স্কলারশিপ সংরক্ষিত থাক। কোনো কাশ্মীরী নারী অন্য রাজ্যের কাউকে বিয়ে করলে তিনি রাজ্যে বিষয়-সম্পত্তির মালিকানার অধিকার হারাবেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ