ঢাকা, সোমবার 6 August 2018, ২২ শ্রাবণ ১৪২৫, ২৩ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

বিশ্বাস ছিল সিরিজে সমতায় ফিরতে পারব-------------- সাকিব

স্পোর্টস রিপোর্টার : ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচে হারলেও দ্বিতীয় ম্যাচে জিতে সিরিজে সমতায় ফিরেছে বাংলাদেশ। ক্যারিবিয়ানদের লাকি ভেন্যুতেই ম্যাচ জিতে সমতায় ফিরলো বাংলাদেশ। আর তিন ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে ১২ রানের জয় তুলে নিয়ে শেষ ম্যাচটিকে অলিখিত ফাইনালে রূপ দিয়েছে সফরকারীরা। দুর্দান্ত এই জয়ে ফিরে আসার বিশ্বাস কাজে লেগেছে বলে মনে করছেন অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। ম্যাচ জয়ের পর পুরস্কার বিতরণী মঞ্চে বদলে যাওয়া দল নিয়ে অধিনায়ক সাকিব বলেন, ‘আমার মনে হয় বিশ্বাস। আমাদের মধ্যে বিশ্বাস ছিল আমরা ঘুরে দাঁড়াতে পারবো। বিশেষ করে আগের ম্যাচটি হেরে মনে হয়েছে, আমাদের পক্ষে ম্যাচ জেতা সম্ভব। আগের ম্যাচের ভুলগুলো থেকে শিক্ষা নিয়ে কাজ করেছি। সবচেয়ে বড় কথা আমাদের প্রয়োজন ছিল মানসিকতার পরিবর্তন। আমরা জানি ক্রিকেটে যে কোন কিছু হতে পারে। আমরা কেবলমাত্র চেষ্টা করেছি নিজেদের সেরাটা দিতে। তাতেই ফল এসেছে।’ উভয় দল একটি কওে জয় পাওয়ায় সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ম্যাচটি অলিখিত ফাইনালে রূপ নিয়েছে। এই ম্যাচের ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে পারলে শেষ ম্যাচে জেতা সম্ভব বলে মনে করেন সাকিব। সাকিব বলেন, ‘ধারাবাহিকতা রাখতে পারলে পরের ম্যাচেও ভালো করতে পারবো।’ ওয়েস্ট ইন্ডিজে বাংলাদেশ দল সেভাবে সমর্থন না পেলেও ফ্লোরিডায়ার গ্যালারিতে সরব উপস্থিতি ছিল প্রবাসী বাংলাদেশী সমর্থকদের। গ্যালারির এই সমর্থকদের ধন্যবাদ জানাতে ভুল করলেন না সাকিব, ‘আমাদের সমর্থন জানাতে দূর দূরান্ত থেকে সবাই এসেছেন। অনেক কষ্ট করেছেন সবাইকে ধন্যবাদ। বিদেশের মাটিতে সমর্থন পাওয়াটা বড় ব্যাপার। আমরা আজকে  যেমনটা পেরেছি, এটা এক কথায় অবিশ্বাস্য।’ মেহেদী হাসান মিরাজের পরিবর্তে দ্বিতীয় ম্যাচের একাদশে সুযোগ পাওয়া আবু হায়দার রনি এককথায় ছিলেন অসাধারণ। তার দারুণ বোলিংয়ে ক্যারিবিয়ানদের রানের চাকা আটকে থেকেছে। দুর্ভাগ্য বলেই ভালো বল করেও উইকেট শূন্য থাকতে হয়েছে। ৪ ওভারে ২৬ রান খরচ করে উইকেট শূন্য থাকলেও পুরস্কার বিতরণী মঞ্চে প্রশংসা কুঁড়িয়েছেন অধিনায়কের, ‘আবু হায়দার অসাধারণ বোলিং করেছে। গুরুত্বপূর্ণ সময়ে ব্যাটসম্যানদের আটকে রাখতে পেরেছে। দুর্ভাগ্য সে উইকেট পায়নি।’ তবে বড় রানের টার্গেট দিলেও ক্যারিবিয় ব্যাটসম্যানরাও লড়াই করেছে দারুণ। বিশেষ করে আন্দ্রে ফ্লেচার ও রভম্যান পাওয়েলের দুর্র্ধষ ব্যাটিংয়ে ম্যাচটা প্রায় হাতছাড়া হয়ে যেতে বসেছিল। কিন্তু দুর্দান্তভাবে ঘুড়িয়ে দাঁড়িয়েছেন  বোলাররা। সাকিব নিজেও নিয়েছেন ২টি উইকেট। এছাড়া মোস্তাফিজুর রহমান ও নাজমুল ইসলাম অপু নিয়েছেন ৩টি করে উইকেট। শেষ ওভারে অপুর ঘূর্ণিতেই জয় নিশ্চিত হয় বাংলাদেশের। সাকিবের কণ্ঠে তাই বোলারদের প্রশংসা, ‘বোলাররা অসাধারণ বল করেছে। ফিজ কিছুটা রান দিয়েছে, কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ উইকেটও নিয়েছে। সব মিলিয়ে এটা দারুণ দলীয় পারফরম্যান্স ছিল।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ