ঢাকা, সোমবার 6 August 2018, ২২ শ্রাবণ ১৪২৫, ২৩ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

নজিরবিহীন নৃশংসতা জঘন্য কর্মকান্ড ও কলঙ্কের নজির স্থাপন করেছে ছাত্রলীগ -ছাত্রশিবির

ছাত্রশিবিরকে জড়িয়ে ছাত্রলীগের সেক্রেটারি গোলাম রাব্বানীর দায়িত্বহীন ও বানোয়াট বক্তব্যের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির।
গতকাল রোববার দেয়া প্রতিবাদ বার্তায় ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি ইয়াছিন আরাফাত ও সেক্রেটারি জেনারেল মোবারক হোসাইন বলেন, শিবির নেতাকর্মীরা স্কুল ড্রেস ও ভূয়া আইডি কার্ড বানিয়ে শিক্ষার্থীদের মাঝে গুজব ছড়িয়েছে, আওয়ামী লীগের অফিসে হামলা চালিয়েছে উল্লেখ করে ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক যে বক্তব্যে দিয়েছেন তা সম্পূর্ণ দায়িত্বহীন, মিথ্যা ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। নিজ সংগঠনের সন্ত্রাসীদের নারকীয় বর্বরতা ও তান্ডব আড়াল করতে তিনি এ বানোয়াট বক্তব্যে দিয়েছেন। যেখানে সকল মিডিয়া ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের উপর ছাত্রলীগ সন্ত্রাসীদের নৃশংস হামলার ঘটনা দেখে দেশবাসী ছাত্রলীগকে ধিক্কার জানাচ্ছে সেখানে ছাত্রশিবিরকে জড়িয়ে তার এ বক্তব্য দেশবাসীর জন্য হাস্যরসের খোরাক হবে। এমন ভারসাম্যহীন বক্তব্য অব্যাহত রাখলে ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদকও তার পূর্বসূরি ও আওয়ামী লীগের নেতাদের মত জাতির কাছে হাস্যরসের পাত্রে পরিণত হবেন। দেশের ছাত্ররা যখন ন্যায্য দাবি আদায় করতে গিয়ে রক্তাক্ত হচ্ছে তখন ছাত্রলীগ সেক্রেটারি তামাশা করতে দ্বিধা করছেন না। এর আগে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীও কোন তথ্য প্রমাণ ছাড়া আন্দোলনের সাথে ছাত্রশিবিরকে জড়িয়ে মিথ্যা বক্তব্য দিয়ে ঘটনাকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার অপচেষ্টা করেছেন। আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরও ব্যর্থতা আড়াল করতে এখানে বিএনপি জামায়াতকে টেনে এনেছেন। কোন প্রকার তথ্য প্রমাণ ছাড়াই সরকারের দোষারোপের রাজনীতি ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদকের মধ্যেও ভর করেছে বলে মনে হচ্ছে। অথচ বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত ছবি ও ভিডিওতে স্পষ্ট ভাবে চিহ্নিত ছাত্রলীগ ও আওয়ামী সন্ত্রাসীদের দেখা গেছে। তাছাড়া সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রী, দলের নেতাদের ফেসবুক আইডি থেকেও গুজব ছড়িয়ে আন্দোলনকে ভিন্নখাতে নেয়ার চেষ্টা করছে।
 নেতৃদ্বয় বলেন, ছাত্রলীগ লেজুড়বৃত্তি করতে গিয়ে ছাত্রসমাজের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছে বহু আগেই। বিভিন্ন সময়ে ছাত্রদের উপর বর্বরতা চালিয়েছে। দেশে নজিরবিহীন নৃশংসতা, জঘন্য কর্মকান্ড ও কলঙ্কের নজির স্থাপন করেছে ছাত্রলীগ। ফলে দেশের আপামর ছাত্রজনতা ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীদের উপর প্রচন্ড ক্ষুদ্ধ। এ অবস্থায় দায়িত্বশীল অবস্থানে থেকে তার এমন মিথ্যা বক্তব্যে জাতির ক্রোধকে আরো বৃদ্ধি করবে। আমরা বলব, ছাত্রশিবিরের নামে ভাঙ্গা ক্যাসেট বাজানো বন্ধ করে নিজ সংগঠনের সন্ত্রাসীদের নিয়ন্ত্রন করুন। আপনাদের প্রতি জনধিক্কারের মাত্রাটা কমানোর চেষ্টা করুন। অবৈধ সরকারের লেজুড়বৃত্তি ও ছাত্রসমাজের প্রতিপক্ষ অবস্থান পরিত্যাগ করুন। তাহলে দেশবাসী কিছুটা স্বস্তি পাবে। আপনার মনে রাখা উচিত, সন্ত্রাসীদের আড়াল করার এ অপচেষ্টা আপনার সংগঠনের সন্ত্রাসীদের আরো বেপরোয়া করে তুলবে। আমরা আশা করি, ভবিষ্যতে এমন মিথ্যা বুলি আওড়ানোর আগে নিজের অবস্থানের দিকে খেয়াল করবেন।
নেতৃদ্বয় এ ধরনের মিথ্যা ও বিদ্বেষপূর্ণ বক্তব্য প্রত্যাহার, ভবিষ্যতে এমন বানোয়াট বক্তব্য প্রদান থেকে বিরত থাকতে ছাত্রলীগ সেক্রেটারিসহ সকলের প্রতি আহ্বান জানান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ