ঢাকা, মঙ্গলবার 7 August 2018, ২৩ শ্রাবণ ১৪২৫, ২৪ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

১৬ আগস্ট থেকে জোড়াগেট কুরবানির পশুর হাট থাকবে জাল টাকা শনাক্তকরণের মেশিন

খুলনা অফিস : খুলনা সিটি করপোরেশনের (কেসিসি) নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় নগরীর জোড়াগেট কুরবানির পশুর হাট আগামী ১৬ আগস্ট উদ্বোধন অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে। ওই দিন বিকেল ৪টায় জোড়াগেট কুরবানির পশু হাট প্রাঙ্গণে উদ্বোধন অনুষ্ঠানের স্থান নির্ধারণ করা হয়েছে। নগরভবনে জোড়াগেট কুরবানির পশুর হাট পরিচালনা কমিটির প্রথম সভায় এসব সিদ্ধান্ত নেয়া হয় বলে জানান কমিটির আহ্বায়ক ও ২১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সামসুজ্জামান মিয়া স্বপন।

সভায় সমগ্র হাট নিরাপত্তার চাদরে ঢাকতে এবার ওয়াচ টাওয়ার করা হবে না। তার পরিবর্তে সিটি ক্যামেরার সংখ্যা বৃদ্ধি করা হবে। এমন কি সিসি ক্যামেরা উঁচু খুঁটির মাথায় স্থাপন করা হবে। যাতে করে পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রে বসে হাটের পুরো চিত্র দেখা যায়। এ ছাড়া হাটের কর্মীর সংখ্যা আরও বাড়ানো হবে। তৈরি করা হবে দু’টি র‌্যাম। পূর্বের রেট অনুযায়ী হাসিল আদায় করা হবে। হাটে রিজার্ভ ৩৮ জন নিরাপত্তা প্রহরী থাকবে। জরুরি মুহূর্তে এদের দিয়ে পরিস্থিতি মোকাবেলা করার টার্গেট নিয়ে অতিরিক্ত নিরাপত্তা কর্মী মোতায়েনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এ ছাড়া হাটের ভেতরে চলাচলের জন্য পূর্ত বিভাগকে দু’টি সড়ক করার জন্য বলা হয়েছে। এর মধ্যে একটি সড়ক গরুর হাটে অপরটি ছাগলের হাটে। হাটে আগত ক্রেতা-বিক্রেতারা যাতে প্রতারিত না হয় সে দিক মাথায় রেখে দায়িত্বরতদের গলায় পরিচয়পত্র ঝুলিয়ে রাখার সিদ্ধান্ত হয়। পরিচয়পত্র ছাড়া কোনো কর্মী হাটে কাজ করতে পারবে না।

ঈদের সময় অবৈধ পশুর হাট যাতে কোথাও বসতে না পারে এ জন্য জেলা প্রশাসক ও পুলিশ কমিশনারকে চিঠি দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়। এসব প্রতিরোধে ঈদের আগের সাত দিন দু’জন ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে নগরীতে ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালাবে। নগরীর ২০টি পয়েন্টে হাটের প্রচারণা নিয়ে ব্যানার লাগানো থাকবে। হাটে জাল টাকা শনাক্তকরণে থাকবে মেশিন। ক্রেতা-বিক্রেতাদের টাকা লেন-দেনের জন্য থাকবে ব্যাংকিং ব্যবস্থার সুবিধা। থাকবে পশু ও মানুষ চিকিৎসক। পুরো হাট যাতে আলোকিত থাকে সে জন্য বিদ্যুতের পাশাপাশি থাকবে জেনারেটরের ব্যবস্থা। নিরাপত্তা বলয় সৃষ্টি করতে হাটে থাকবে অতিরিক্ত পুলিশ-র‌্যাব।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, আগামী ১৬ আগস্ট থেকে ঈদের দিন সকাল ৭টা পর্যন্ত জোড়াগেট কুরবানির পশুর হাট চলবে। এবার বিট মূল্য ধরা হয়েছে ২ কোটি ৪০ লাখ ২৯ হাজার ৪শ ১৫ টাকা। গতবারের চেয়ে এবার বিট মূল্য বেশি ধরা হয়েছে ৩৬ লাখ টাকা। কেসিসি সূত্রে জানা গেছে, কুরবানির পশুর কেনাবেচার জন্য প্রতিবছর নগরীর জোড়াগেট পাইকারি কাঁচা বাজারে পশুর হাট বসায় কেসিসি। আগে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান হাট পরিচালনা করতো। ২০০৯ সাল পর্যন্ত হাট থেকে কেসিসির সর্বোচ্চ আয় ছিল ৪৭ লাখ টাকা। ২০১০ সালের পর থেকে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় হাট পরিচালনার উদ্যোগ নেয় কেসিসি। সেই থেকে হাটের মাধ্যমে কোটি টাকার রাজস্ব আয় করছে কেসিসি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ