ঢাকা, মঙ্গলবার 7 August 2018, ২৩ শ্রাবণ ১৪২৫, ২৪ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

চট্টগ্রামে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ সমাবেশ হতে দেয় নি পুলিশ ও ছাএলীগ

চট্টগ্রাম ব্যুরো: গতকাল সোমবার চট্টগ্রাম মহানগরীতে শিক্ষার্থীদের কোন বিক্ষোভ সমাবেশ হতে দেয় নি পুলিশ ও ছাএলীগ নেতা কর্মীরা। শিক্ষার্থীরা যাতে কোন সমাবেশ, মিছিল করতে না পাওে সেজন্য নগরীর গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে অতিরিক্ত পুলিশ, গোয়েন্দা পুলিশ মোতায়েন ছিল। নগরীর জিইসি ষোলশহর ওয়াসা এলাকায় ছাএলীগ নেতাকর্মীরা অবস্থান নিয়ে শিক্ষার্থীদের জড়ো হতে দেয় নি।
এদিকে নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের উপর হামলার প্রতিবাদে বাম ছাত্র সংগঠন কর্তৃক আয়োজিত মানববন্ধনে যোগ দিতে এসে পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়েছে বাম ছাত্র সংগঠনের ৪ কর্মী। গ্রেফতারকৃতরা হলো, সাজ্জাদ মান্নান, তানজিদ হাসান, রাশেদুল ইসলাম ও রিয়াজুল ইসলাম।
 সোমবার (৬আগষ্ট) দুপুরে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সামনে থেকে মানবন্ধনের পূর্বেই তাদের গ্রেফতার করা হয়।
এদিকে  সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট চট্টগ্রাম নগর শাখা সোমবার সন্ধ্যায় এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলেছে,চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সামনে থেকে সম্পূর্ণ বিনা উসকানিতে ৯ আন্দোলনকারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।
সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট চট্টগ্রাম নগর শাখার সভাপতি আরিফ মঈনুদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক জয়তু সুশীল এক যুক্ত বিবৃতিতে সারাদেশে আন্দোলনে বর্বর হামলা ও ছাত্রদের ৯ দফা দাবি বাস্তবায়নের দাবিতে আজকে সকালে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সম্মুখে জড়ো হওয়া ছাত্রদের উপর পুলিশ ও ছাত্রলীগের যৌথ হামলা ও ৯ জন আন্দোলনকারী গ্রেফতার হওয়ার ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। তারা আরো উল্লেখ করেন, "সারা দেশে নিরাপদ সড়কের দাবিতে চলমান আন্দোলনে অব্যাহত বর্বর হামলা ও নির্যাতনের ধারাবাহিকতায় আজও চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সামনে ছাত্রলীগ ও পুলিশের হামলা করেছে ও ৯ জন ছাত্র গ্রেফতার হয়েছে। সরকার স্কুল-কলেজ ছাত্রছাত্রীদের এই ন্যায্য দাবির আন্দোলনে ন্যাক্কারজনকভাবে মধ্যযুগীয় কায়দায় একের পর এক হামলা পরিচালনা করছে।" তারা আরো বলেন, " দেশে চলমান সমস্ত গণতান্ত্রিক আন্দোলন নস্যাৎ করার জন্য সরকার পুলিশ ও সরকারদলীয় ক্যাডারদের দিয়ে সুপরিকল্পিত ভাবে হামলা পরিচালনা করছে, এমনকি স্কুল কলেজের কোমলমতি শিক্ষার্থীরাও রেহাই পাচ্ছেনা। এর মধ্য দিয়ে এই ফ্যাসিবাদী সরকার জনগণের বিরুদ্ধেই তার অবস্থান পরিষ্কার করেছে।" তারা একই সাথে ঢাকায় আন্দোলনকারী স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থ, সাংবাদিক ও পথচারীদের উপর সন্ত্রাসী হামলারও নিন্দা জানান।
চুয়েট ক্যাম্পাস ও সাধারণ শিক্ষার্থীর উপর হামলার প্রতিবাদে  মৌন সমাবেশ ও মোমবাতি প্রজ্জ্বলন--চলমান শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের সাথে সংহতি প্রকাশ করে  সোমবার সকালে চুয়েট ক্যাম্পাসের সাধারণ শিক্ষার্থীরা সমাবেশ করে। এই সমাবেশে রাউজানস্থ বহিরাগত কিছু লোক তাদের উপর হামলা চালায়। এই হামলার কারনে চুয়েটের কিছু শিক্ষার্থী হতাহতের ঘটনা ঘটে এবং বঙ্গবন্ধুহলেও তারা আক্রমন চালায়। এই ঘটনার প্রেক্ষিতে এবং চলমান ছাত্র আন্দোলনের সাথে সংহতি প্রকাশ করে চট্টগ্রামের প্রেস ক্লাবের সামনেচুয়েট শিক্ষার্থীরা সন্ধ্যা ৬.৩০ মিনিটে মৌন সমাবেশ ও মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করে। এতে বক্তৃতা রাখে চুয়েটে ৪র্থ বর্ষের শিক্ষার্থী শাফকাত বিনআমিন,স্বপ্নিল মিত্র,সাইফ  চৌধুরী এবং আরো অনেকে। আরো বক্তৃতা রাখে প্রাক্তন ছাত্র তায়েফ মুহাম্মদ অন্তরসহ আরো অনেক। এতে উপস্থিতছিলো চুয়েটের সব বর্ষের শিক্ষার্থীরা।এই সমাবেশ থেকে তারা সরকারের কাছে নিরাপদ সড়কের দাবি ও চুয়েটে হামলাকারিদের অবিলম্বে বিচারের আওতায় আনার দাবি জানায়।
এদিকে গতকাল সোমবার সকাল থেকে চট্টগ্রাম মহানগরী ও জেলায় যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়।এতে বিভিন্ন এলাকায় যানজট দেখা দেয়।চট্টগ্রাম বন্দর থেকে মালামাল ডেলিভারী স্বাভাবিক হযেছে।চট্টগ্রাম বন্দও থেকে মালামাল নিয়ে কার্ভাড ভ্যান,লরী বিভিন্ন জেলা যেতে শুরু করেছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ