ঢাকা, মঙ্গলবার 7 August 2018, ২৩ শ্রাবণ ১৪২৫, ২৪ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

নৌকায় পিকনিকের নামে অশ্লীলতা

এম,এ,জাফর লিটন,শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) থেকে: সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া-শাহজাদপুর উপজেলার দুর্গম পল্লি অঞ্চলে পিকনিকের (বনভোজন) নামে চলছে অশ্লীলতা। ডুবছে যুবসমাজ! ফলে স্থানীয় অভিভাবকেরা উঠতি বয়সের সন্তানদের ভবিষ্যত ও ক্রমবর্ধমান নৈতিক অবক্ষয় নিয়ে চরম উদ্বেগ আর উৎকন্ঠা প্রকাশ করেছেন। পতিতাদের পসরা বানিয়ে তাদের সাথে প্রেমতরীতে ভাসিয়ে প্রতাপশালী দেহব্যবসায়ীরা যুবকদের অর্থ ও চারিত্রিক অবক্ষয় সাধন করে স্বল্প সময়েই আঙ্গল ফুলে কলাগাছ বনে যাচ্ছেন।
অপরদিকে, স্থানীয় যুবসমাজকে রক্ষায় এ অঞ্চলে চলাচলকারী নৌকা বাঁশেরছঁই তোলা ও সামিয়ানা টাঙ্গানো শ্যালোইঞ্জিন চালিত ভাসমান বনভোজনের এসব নৌকাতে গান বাজনা, নাচা, নাচি ও বিনোদনের অন্তরালে চলমান দেহ ব্যবসায় বন্ধে প্রশাসনের উর্ধতন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন অভিভাবক ও বিজ্ঞমহল।
জানা গেছে, এ অঞ্চলে পতিতা নৃত্যশিল্পীদের পসরা সম্বলিত নাচ গানের পিকনিকের নৌকাই উঠতি বয়সের যুবক ও খদ্দেরের নিকট মূলতঃ প্রেমতরী হিসেবে পরিচিত। প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় উল্লাপাড়া উপজেলার বড় পাঙ্গাসী ইউনিয়নের গ্রাম্য পুলিশ(চৌকিদার) খরশেদ , বড়পাঙ্গাসীর 'রহুল ডেকোরেটর' ব্যবসায়ীসহ প্রভাবশালী একটি সংঘবদ্ধ চক্র দীর্ঘদিন ধরে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে মৌসুম ভিত্তিতে যাত্রার নর্তকী ও পতিতা ভাড়া করে এনে মোটা অর্থের বিনিময়ে পিকনিকের প্রেমতরীতে সরবরাহ করে আসছে। মৌসুমের শুরুতেই উল্লাপাড়া-শাহজাদপুরসহ পার্শ্ববর্তী বিস্তীর্ণ চলনবিলাঞ্চলের দুর্গম জলাভূামিতে দিনে রাতে প্রেমতরীতে চলছে পতিতাদের অশ্লীল নাচ ও গান।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বেশ কয়েকজন যুবক জানান, 'দিনের বেলায় একজন পতিতা নাচের শিল্পী (কুৎসিত সুন্দরী ভেদে) ভাড়া নিলে খদ্দের যুবকদের গুণতে হয় ২ হাজার থেকে ৩ হাজার টাকা। আর দিনের বেলার পাশাপাশি রাতে ওভারটাইম হিসেবে গুণতে হয় ২ থেকে ৪ হাজার টাকা। তার সাথে নৌকা ভাড়া, সাউন্ড সিষ্টেম ও ডোকেরেটর মালামালের জন্য আরও অতিরিক্ত অর্থ দিতে হয় দেহব্যবসায়ী ওই চক্রকে!" নতথ্যানুসন্ধানে জানা গেছে, প্রতিদিনই উল্লাপাড়া দহুকুলা হাট, লাহিড়ী মোহনপুর ত্রিমোহনী ব্রিজ, বড়পাঙ্গাসী বাজার, উধুনিয়াহাট ,ঘয়হাট্টা বাজার,দবিরগঞ্জ সংলগ্ন এলাকা থেকে পিকনিক অথবা বিনোদন ভ্রমণের নামে পতিতাসহ প্রেমতরী ভাড়া দেয়া হচ্ছে। দেহব্যবসায়ের চিহ্নিত ওই সংঘবদ্ধ চক্রটি লাহিড়ী মোহনপুর, বড়পাঙ্গাসী, দবিরগঞ্জ,সিরাজগঞ্জ রোড, শাহজাদপুরের তালগাছী- এ কয়েকটি স্থান থেকে নর্তকী বা পতিতা সরবরাহ করে আসছে। চক্রটি পতিতাদের কৌশলে নামে বেনামে বিভিন্ন ভাড়ার বাসা বাড়িতে রেখে চাহিদানুযায়ী সরবরাহ করে থাকে । সরবরাহকৃত পতিতা নৃত্যশিল্পীদের সিংহভাগই লাহিড়ী মোহনপুর ও বড়পাঙ্গাসী ইউনিয়নের কিছু বাসাবাড়ী থেকে যোগান দেয়া হয় । চুক্তি মোতাবেক ভাড়াটিয়া পতিতারা খদ্দেরের সাথে নাচগানের পাশাপাশি অবাধে দৈহিক মেলামেশা করে আসছে। এ বিষয়ে উল্লাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোঃআরিফুজ্জামান বলেন, উপজেলা আইন শৃংখলা কমিটির সভায় বিষয়টি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। এর রোধে জরুরী ভিত্তিতে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ