ঢাকা, মঙ্গলবার 20 November 2018, ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

শহিদুল আলমকে ‘নির্যাতনের’ ঘটনায় আসকের উদ্বেগ

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক:

খ্যাতিমান আলোকচিত্রী ও মানবাধিকার কর্মী শহিদুল আলমকে পুলিশি হেফাজতে নির্যাতনের অভিযোগে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক)।

মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে সংস্থাটি উল্লেখ করে, বাংলাদেশ সংবিধানের অনুচ্ছেদ ৩৫ (৫) দেশের নাগরিকদের নির্যাতন বা নিষ্ঠুর, অবমাননাকর ও অমানবিক আচরণ থেকে সুরক্ষা দেয়। এছাড়া বাংলাদেশ নাগরিক ও রাজনৈতিক অধিকার সংক্রান্ত আন্তর্জাতিক সনদ এবং নির্যাতনবিরোধী আন্তর্জাতিক সনদে স্বাক্ষর করেছে।

বিবৃতিতে আরো বলা হয়, গণমাধ্যমের খবর অনুযায়ী আলোকচিত্রী শহিদুল আলমকে রবিবার রাজধানীর ধানমণ্ডি এলাকার নিজ ফ্ল্যাট থেকে সাদা পোশাকে বেশ কিছু লোক তুলে নিয়ে যায়। তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এক্ষেত্রে তাদের সংশ্লিষ্টতা অস্বীকার করে। কিন্তু আটকের প্রায় ২১ ঘণ্টা পর সোমবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় মিথ্যা তথ্য প্রচার ও গুজব ছড়ানোর অভিযোগে আইসিটি আইনের বহুল সমালোচিত ৫৭ ধারায় তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

একই দিন বিকালে তাকে ঢাকার অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করে পুলিশ। আদালত তার সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে। শহিদুল আলম আদালতে অভিযোগ করেছেন যে তাকে শারীরিক নির্যাতন করা হয়েছে।

আসক জানায়, পরোয়ানা ছাড়া গ্রেপ্তার ও রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ সংক্রান্ত ফৌজদারি কার্যবিধির ৫৪ ও ১৬৭ ধারার সংশোধনের নির্দেশনা দিয়ে উচ্চ আদালত ২০১৬ সালে যে আদেশ দিয়েছে তার সাথে শহিদুল আলমকে আটক ও নির্যাতনের ঘটনা সাংঘর্ষিক।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ