ঢাকা, মঙ্গলবার 25 September 2018, ১০ আশ্বিন ১৪২৫, ১৪ মহররম ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

২২ ছাত্র রিমান্ডে, আতঙ্কে অনেক শিক্ষার্থী

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক:

রাজধানী ঢাকায় কয়েকটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২২ জন ছাত্রকে রিমান্ডে নেয়ার পর ঐ বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর অনেক শিক্ষার্থী বলছেন যে এই ঘটনা তাদের মধ্যে আতঙ্ক তৈরি করেছে।

পুলিশ জানিয়েছে, গত সোমবার বসুন্ধরা এবং বাড্ডা এলাকায় সংঘর্ষ ও সহিংসতার সাথে জড়িত সন্দেহে এবং পুলিশের কাজে বাধা দেয়ার অভিযোগে এসব শিক্ষার্থীকে গ্রেফতার করে রিমান্ডে নেয়া হয়েছে।

নিরাপদ সড়কের দাবিতে নয় দিন ধরে চলা আন্দোলনের সময় সংঘটিত নানা ঘটনায় ঢাকার ১৬টি থানায় ৩৪টি মামলা হয়েছে। এসব মামলায় এ পর্যন্ত মোট ৪৫ জনকে আটক করা হয়েছে।

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর অনেক শিক্ষার্থী বিবিসি বাংলার সঙ্গে কথা বলেছেন, তবে তারা তাদের নাম প্রকাশ করতে চাননি। এসব শিক্ষার্থীদের অনেকে বলেছেন, মামলাগুলোতে অজ্ঞাতনামা হিসেবে অনেককে অভিযুক্ত করায় তাদের মধ্যে গ্রেফতার আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছে।

এসব মামলায় এ পর্যন্ত যাদের আটক করা হয়েছে, বেশিরভাগই বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী।

নিরাপদ সড়কের দাবির আন্দোলনে সরব উপস্থিতি ছিল স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের, তবে তাদের কাউকে আটক করা হয়নি বলে পুলিশের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

তবে গ্রেফতার এবং রিমান্ডে নেয়ার ঘটনার মধ্য দিয়ে সরকার দমননীতির দিকে এগুচ্ছে কি-না, সেই প্রশ্ন তুলেছেন মানবাধিকার কর্মী নূর খান।

তিনি এমন অভিযোগও করেছেন যে যারা হেলমেট পড়ে, লাঠিসোটা নিয়ে শিক্ষার্থীদের উপর হামলা করেছে, তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না।

ঢাকার গণপরিবহণ ব্যবস্থার সংস্কার নিয়ে কথা হচ্ছে অনেকদিন ধরেই

ঢাকা মহানগর পুলিশের মুখপাত্র মাসুদুর রহমান বিবিসি বাংলাকে জানিয়েছেন, মামলাগুলোতে পুলিশের কাজে বাধা দেয়া এবং সহিংসতার অভিযোগ আনা হয়েছে।একইসাথে স্কুল শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে উস্কানি দেয়া এবং সামাজিক নেটওয়ার্কে গুজব ছড়িয়ে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরির চেষ্টা করাসহ বিভিন্ন অভিযোগ আনা হয়েছে এসব মামলায়।

বেসরকারি নর্থ সাউথ এবং ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষার্থী নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছেন, ছাত্রলীগের একদল সদস্য লাঠিসোটা নিয়ে পুলিশের উপস্থিতিতে গত সোমবার দফায় দফায় তাদের উপর হামলা করেছিল, অথচ এখন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধেই ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

ফলে তাদের মধ্যে এখন গ্রেফতার আতঙ্ক দেখা দিয়েছে বলে তারা জানাচ্ছেন।

এক সপ্তাহেরও বেশি সময় নিরাপদ সড়কের দাবিতে ঢাকার রাস্তায় আন্দোলনের পর স্কুল শিক্ষার্থীরা এরই মধ্যে ক্লাসে ফিরে গেছে।

এই আন্দোলনের শেষের দিকে গত রোববার এবং সোমবার বিভিন্ন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ করেন।

নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

সোমবার ইস্ট ওয়েস্ট এবং নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের উপর হামলার পর সুন্ধরা আবাসিক এলাকা এবং বাড্ডায় পুলিশের সাথে তাদের দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

ওই বিশ্ববিদ্যালয় দু'টির ক্লাস এখন বন্ধ আছে।

শিক্ষামন্ত্রীর সাথে উপাচার্যদের বৈঠক

এই প্রেক্ষাপটে আজ শিক্ষামন্ত্রী নূরুল ইসলাম নাহিদ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর কর্তৃপক্ষের সাথে বৈঠকে বসেন।

বৈঠকে অংশ নেয়া নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন উপাচার্য বিবিসি বাংলাকে জানিয়েছেন, বৈঠকে গত কয়েকদিনের পরিস্থিতি নিয়ে তারা আলোচনা করেছেন এবং সবাই একমত হয়েছেন যে ক্লাসগুলো চালু করা দরকার। তবে ২২জন শিক্ষার্থীকে রিমান্ডে নেয়ার কথা উল্লেখ করে কয়েকজন উপাচার্য অনুরোধ করেছেন, কোন নিরাপরাধ শিক্ষার্থী যেন হয়রানির শিকার না হয়। একজন উপাচার্য বলেছেন, শিক্ষার্থীরা যা করেছে, ভুল বুঝে বা আবেগের বশবর্তী হয়ে কিছু করে থাকতে পারে। তাই তাদের ক্ষমা করে দেয়ার অনুরোধ করেন। তবে শিক্ষামন্ত্রী বলেছেন, নিরপরাধ কোন শিক্ষার্থীকে হয়রানি করা হবে না। তবে কারো বিরুদ্ধে তদন্তে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পাওয়া গেলে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।-বিবিসি বাংলা

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ