ঢাকা, বৃহস্পতিবার 9 August 2018, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৫, ২৬ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

তাড়াশে সমবায় সমিতি ও ইন্সুরেন্সের আশ্বাস দিয়ে লাখ লাখ টাকা আত্মসাৎ

শাহজাহান, তাড়াশ (সিরাজগঞ্জ) সংবাদদাতা: তাড়াশের গুল্টা বাজার ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী সমবায় সমিতি লিমিটেড ও গুল্টা বাজার গরীব উন্নয়ন সমিতির সভাপতি জাহাঙ্গির আলমের বিরুদ্ধে সদস্যদের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় অভিযুক্তের বিরুদ্ধে একাধিক সালিশ বৈঠক হয়েছে। পরে গণস্বাক্ষর সংগ্রহ করেছেন সচেতন মহল।
উপজেলা সমবায় কার্যালয় ও গ্রাহক সূত্রে জানা গেছে, ২০১২ সালে গুল্টা বাজার ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী সমবায় সমিতি অধিদপ্তরের নিবন্ধন পায়। নিবন্ধন নং ১৮৪। মাইক্রোক্রেডিট রেগুলেটরী অথরিটি (এমআরএ) সনদ ছাড়া নিয়ম বহির্ভূতভাবে চলছে সমিতিটির সকল কার্যক্রম। অন্যদিকে লাইফ ইন্সুরেন্স বা নন-লাইফ ইন্সুরেন্স ব্যবসা পরিচালনার সনদ না নিয়েই চলছে গুল্টা গরীব উন্নয়ন সমিতির বীমা কার্যক্রম। নিবন্ধন বিহীন গরীব উন্নয়ন সমিতির নামে শুধু পাশ বই ছাপিয়ে গ্রাহকদের কাছ থেকে হাতিয়ে নেওয়া হয়েছে লাখ লাখ টাকা।
তালম গ্রামের ভুক্তভোগী গ্রাহক কায়েম উদ্দিন ও আলেয়া খাতুন বলেন, গরীব উন্নয়ন সমিতির পাশ বই দিয়ে সভাপতি জাহাঙ্গির আলম ২০১২ সালের মে মাসে তাদের নিকট থেকে ৩ হাজার করে ৬ হাজার টাকা গ্রহন করে। আশ^াস থাকে, ২০১৮ সালের জুন মাসে মেয়াদ পূর্ণ হলে দু’জনকে ২০ হাজার করে ৪০ হাজার টাকা ফেরত দেবেন। অথচ টাকা চাইতে গেলে উল্টো হুমকী ধামকি দেখায়।
তালম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্বাস উজ জামান বলেন, ভুক্তভোগীদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে ইউপি সদস্য ও এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তি নিয়ে ইতোমধ্যে ২ বার সালিশ বৈঠক হয়েছে। প্রথম বৈঠকে গ্রাহকদের টাকা ফেরত দেওয়ার কথা স্বীকার করেন অভিযুক্ত জাহাঙ্গির আলম । দ্বিতীয় সালিশ বেঠকে অনুপস্থিত থেকে যান। তিনি আরও বলেন, সালিশের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী গণ স্বাক্ষর সংগ্রহ করেছেন সচেতন মহল। শিগগিরই থানায় অভিযোগ দায়ের করা হবে। নয়তো সমিতির কয়েকশো গ্রাহক প্রতারিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
গুল্টা বাজার ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী সমবায় সমিতি লিমিটেড ও গরীব উন্নয়ন সমিতির সভাপতি অভিযুক্ত জাহাঙ্গির আলম বলেন, সমিতির সকল কার্যক্রম সমবায় নীতিমালা অনুযায়ী পরিচালিত হচ্ছে। গ্রাহকদের মেয়াদ পূর্ণ হতে শুরু করেছে। নিয়মানুযায়ী টাকা দেওয়া হবে।
সন্ধানী লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানী লিমিটেডের তাড়াশ শাখা অফিসের ব্যবস্থাপক মো. মোজাম্মেল হক মাসুদ জানান, সরকার পরিচালিত ও নিয়ন্ত্রিত কোন সংগঠন ছাড়া ইন্সুরেন্স বা নন-লাইফ ইন্সুরেন্স ব্যবসা পরিচালনা অবৈধ।
উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা জুলফিকার আহমেদ জানান, মাইক্রোক্রেডিট রেগুলেটরী অথরিটি (এমআরএ) সনদ ছাড়া ক্ষুদ্র ঋণ কার্যক্রম পরিচালনা করা যাবেনা। তবে সমিতিরি সদস্যদের নিকট থেকে আদায়ের টাকা সদস্যদের মধ্যে বিতরণ করা যাবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ