ঢাকা, বৃহস্পতিবার 9 August 2018, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৫, ২৬ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

মাদারীপুরে পল্লী চিকিৎসকের পাশবিক নির্যাতনের শিকার মাদরাসা ছাত্রী

মাদরাসা ছাত্রীকে নির্যাতনকারী পল্লী চিকিৎসক পবিত্র শীল

সামসুদ্দোহা, মাদারীপুর সংবাদদাতা: পাশবিক নির্যাতনের শিকার হয়েছে পঞ্চম শ্রেণীর এক মাদ্রাসা ছাত্রী।
ঘটনাটি ঘটেছে মাদারীপুরের কালকিনির কয়ারিয়া গ্রামে। পরে কালকিনি থানা পুলিশ রবিবার দুপুরে পবিত্র শীল নামে ওই পল্লী চিকিৎসককে আটক করেছে।
নির্যাতিতার পরিবারের অভিযোগে জানা যায়, উত্তর কয়ারিয়া গ্রামের প্রফুল্ল শীলের ছেলে পল্লী চিকিৎসক পবিত্র শীল (৩৫) কালকিনির মোল্লারহাট বাজারে ‘মুক্তা মেডিকেল হল’ নামের ফামের্সী দিয়ে নিজেই চিকিৎসা সেবা দিয়ে আসছিলেন। প্রত্যেক দিন তার ফার্মেসীর সামনে দিয়ে স্কুল ও মাদ্রাসার ছাত্র-ছাত্রীরা যাতায়াত করতো।
এই সুবাদে নির্যাতনের শিকার ওই ছাত্রীকে পবিত্র শীল ‘আংকেল’ বলে ডাকতো। গত রবিবার দুপুরে ওই ছাত্রী মাদ্রাসা থেকে বাড়ী ফেরার সময় টিপটিপ বৃষ্টি হচ্ছিল। এ সময় পবিত্র শীল মেয়েটিকে ‘আংকেল’ বলে ডাক দেয়।
কিন্তু মেয়েটি তার ডাকে সাড়া না দিয়ে চলে যাচ্ছিল। পরে তাকে জোর করে দোকানের পিছনে থাকা একটি রুমে নিয়ে নির্যাতনের চেষ্টা করে।
মেয়েটি তখন চিৎকার দেয়ার চেষ্টা করলে তাকে মেরে ফেলার হুমকি দেয় এবং বিষয়টি কাউকে না জানানোর জন্যে ভয় দেখায়। বিষয়টি মেয়ের পরিবার জানলেও লোক-লজ্জার ভয়ে কাউকে বলেনি। পরে শনিবার রাতে মেয়ের পরিবার থেকে কালকিনি থানায় অভিযোগ করলে রবিবার দুপুরে ওই পল্লী চিকিৎসককে পুলিশ গ্রেফতার করে।
স্থানীয় একাধিক ব্যক্তি অভিযোগ করে বলেন, পবিত্র শীল এর আগেও কয়েকবার অসামাজিক কর্মকান্ডের জন্যে লাঞ্ছিত হয়েছে এবং তার দোকান বন্ধ করে দেয়া হয়েছিল।
নির্যাতনের শিকার ওই ছাত্রীর মা বলেন, ‘আমার মেয়ে বাড়ীতে এসে অসুস্থ হয়ে পড়ে।
শরীরে জ্বর আসে, আমি মনে করেছিলাম বৃষ্টিতে ভিজে জ্বর এসেছে।
জ্বর ভাল হলেও মেয়ে আর মাদ্রাসায় যেতে চাচ্ছিল না। এর জন্য তাকে মারধর করা হয়।
পরে সে বলেছে, পবিত্র ডাক্তার তাকে মারধর করেছে ও ধর্ষনের চেষ্টা করেছে।’
ওই মাদ্রাসা ছাত্রী বলেন, ‘আমি এই পশুর বিচার চাই। সে আমার অনেক ক্ষতি করেছে। আমি আর মাদ্রাসায় যেতে পারছি না। ফলে আর পড়ালেখাও হবে না।’
এ ব্যাপারে মাদারীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুমন দেব জানান, আমি সরেজমিনে গিয়ে ঘটনার সত্যতা পেয়েছি।
পরে ওই পরিবার থেকে কালকিনি থানায় অভিযোগ করা হলে তাকে গ্রেফতার করা হয়। বিষয়টি অত্যন্ত দুঃখজনক। অপরাধীকে আমরা কঠোর আইনের সম্মূখীন করবো।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ