ঢাকা, শুক্রবার 10 August 2018, ২৬ শ্রাবণ ১৪২৫, ২৭ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

সিলেট সিটির ২ সহ ১৬ কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ শনিবার

 

কবির আহমদ, সিলেট : গত ৩০ জুলাই অনুষ্ঠিত সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে নানা অনিয়মের অভিযোগে স্থগিত দুটি কেন্দ্রে আগামীকাল শনিবার ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া দু’জন সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলরের প্রাপ্ত ভোট সমান হয়ে যাওয়ায় ১৯, ২০ ও ২১ নং ওয়ার্ডের ১৪টি কেন্দ্রেও একই দিন ভোট গ্রহণ করা হবে। এ সকল কেন্দ্রে ভোট গ্রহণের সকল আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করেছে নির্বাচন কমিশন। ২৪ নং ওয়ার্ডের ১১৬ নং কেন্দ্র গাজী বুরহান উদ্দিন গরম দেওয়ান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং ২৭ নং ওয়ার্ডের ১৩৪ নং কেন্দ্র হবিনন্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র দুটি নানা অনিয়ম ও গোলযোগের কারণে স্থগিত করা হয়েছিল। অন্যদিকে সংরক্ষিত ৭ নং ওয়ার্ডে দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর ভোট সমান হয়ে যাওয়ায় পুন:ভোট গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেয় ইসি। শনিবার ভোটগ্রহণ শেষে আনষ্ঠানিকভাবে বিজয়ী মেয়র প্রার্থীর নাম ঘোষণা করবেন সিসিকের রিটার্নিং কর্মকর্তা। স্থগিত কেন্দ্রগুলোর ভোট গ্রহণকে কেন্দ্র করে যেমন উৎসাহ উদ্দীপনা বিরাজ করছে পাশাপাশি শঙ্কাও রয়েছে ভোটারদের মধ্যে। উদ্বেগ-উৎকন্ঠায় রয়েছেন সিসিকের ১৬ কেন্দ্রের জনসাধারণ।

গত ৩০ জুলাই অনুষ্ঠিত সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে সংরক্ষিত ৭ নং ওয়ার্ডে (১৯, ২০ ও ২১) সমান সংখ্যক ভোট পান কাউন্সিলর প্রার্থী নাজনীন আক্তার কণা ও নার্গিস সুলতানা। কণা জিপ গাড়ি প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৪ হাজার ১৫৫ ভোট। তার প্রতিদ্ধন্ধি চশমা প্রতীকের প্রার্থী নার্গিস সুলতানাও সমান সংখ্যক ভোট পান। যে কারনে নির্বাচন কমিশন সংরক্ষিত এ ওয়ার্ডে আইন অনুযায়ী পুন:ভোটের সিদ্ধান্ত নেয়। পুন:ভোট গ্রহণকে কেন্দ্র করে সংশ্লিষ্ট এলাকাগুলোতে প্রচার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন প্রার্থীরা। আবারো ভোটারদের দ্বারে দ্বারে যাচ্ছেন তারা। ২৭ নয় ওয়ার্ডের স্থগিত হওয়া হবিনন্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে বিএনপির মেয়র প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরী, আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের যেমন প্রচার প্রচারণা চলছে তেমনি আওয়ামী লীগ ঘরাণার কাউন্সিলর প্রার্থী আজম খান ও দুই বারের কাউন্সিলর আব্দুল জলিল নজরুলও ব্যাপক গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থী এডভোকেট রোকসানা বেগম শাহনাজ চশমা প্রতীক নিয়ে এবং তার নিকতম প্রতিদ্বন্দ্বী গ্রাস প্রতীকের প্রার্থী সজ্জন নির্বিবাদী ব্যক্তিত্ব ছামিরুন নেছাও প্রচার প্রচারণা চালাচ্ছেন। ছামিরুন নেছা তার সুন্দর ব্যবহার দিয়ে প্রথম বারের মতো নির্বাচনে দাঁড়িয়ে ভোটারদের কাছে যাওয়ার সক্ষমতা অর্জন করেছেন। 

সিসিকের এসব কেন্দ্রে পুনঃ ভোটকে কেন্দ্র করে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ (এসএমপি) বেশ কিছু নির্দেশনা দিয়েছে। নগরীর এই ৫টি ওয়ার্ডে মোটরসাইকেল চলাচলে নিষেধ করেছে পুলিশ। বিজ্ঞপ্তিতে পুলিশ জানায়, বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন সচিবালয় পরিপত্র নং-০৭ তারিখ ১০ জুলাই ২০১৮ মূলে জারিকৃত পরিপত্রের নির্দেশনার আলোকে ৯ আগস্ট মধ্যরাত ১২টা হতে ভোট গ্রহণের পরের দিন অর্থাৎ ১২ আগস্ট সকাল ৬টা পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট নির্বাচনী এলাকায় মোটরসাইকেল চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। নির্বাচনে প্রার্থী, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, প্রশাসন ও অনুমতিপ্রাপ্ত পর্যবেক্ষক এবং নির্বাচনী এজেন্টদের জন্য এই নির্দেশ প্রযোজ্য হবে না। তবে পর্যবেক্ষক ও পোলিং এজেন্টদের যানবাহনে নির্বাচন কমিশনের স্টিকার থাকতে হবে। অন্য একটি বিজ্ঞপ্তিতে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ (এসএমপি) নগরীর ৫টি ওয়ার্ডে নির্বাচনী এলাকায় বৈধ অস্ত্র বহন ও প্রদর্শনে নিষেধ করেছে। নির্বাচনী এলাকায় ১৪ আগস্ট ২০১৮ মধ্য রাত ১২টা পর্যন্ত নির্বাচনী এলাকায় বৈধ অস্ত্র বহন ও প্রদর্শন নিষিদ্ধ করা হয়। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ক্ষেত্রে এ নিষেধাজ্ঞা প্রযোজ্য হবে না। এ আদেশ ভঙ্গকারীর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও জানানো হয়।

সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. আলীমুজ্জামান বলেন, সংরক্ষিত ৭নং ওয়ার্ডের পূণঃনির্বাচনে ১৪টি কেন্দ্রে ভোট নেওয়া হবে। এসব কেন্দ্রে ৩৪ হাজার ১২৩ জন ভোটার ৯৭টি কক্ষে ভোট দেবেন। এরমধ্যে ১৯ নং ওয়ার্ডে চারটি কেন্দ্রে ৩২টি কক্ষে ১১ হাজার ৬২৬ জন ভোট দেবেন। ২০নং ওয়ার্ডে পাঁচটি কেন্দ্রে ৩১ কক্ষে ১০ হাজার ৫৬৪ জনের ভোট গ্রহণ করা হবে এবং ২১নং ওয়ার্ডে পাঁচটি কেন্দ্রে ৩৪টি কক্ষে ১১ হাজার ৯৩৩ জন ভোটার ভোট দেবেন। নির্বাচন কমিশনের তথ্যমতে, সংরক্ষিত ৭নং ওয়ার্ডের ১৪টি কেন্দ্রে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। কেন্দ্রগুলো হলো, ১৯ নং ওয়ার্ডের হাজি শাহ মীর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পূর্ব পাশের ভবন (পুরুষ) ও উত্তর এবং পশ্চিম পাশের ভবন (নারী), বখতিয়ারবিবি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় (পুরুষ), দর্জিপাড়া সার্ক ইন্টারন্যাশনাল কলেজ (নারী), ২০ নং ওয়ার্ডের এমসি কলেজ টিলাগড় (পুরুষ ও নারী), দেবপাড়া নবীন চন্দ্র সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় উত্তর পাশের ভবন (পুরুষ কেন্দ্র) ও দক্ষিণ পাশের (নারী), সৈয়দ হাতিম আলী উচ্চ বিদ্যালয় (নারী ও পুরুষ), ২১ নং ওয়ার্ডের সৈয়দ হাতিম আলী উচ্চ বিদ্যালয় (পুরুষ ও নারী), কালাশীল চান্দুশাহ জামেয়া ইসলামিয়া দাখিল মাদরাসা (পুরুষ ও নারী), সোনারপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় (পুরুষ ও নারী), শিবগঞ্জ স্কলার্সহোম প্রিপারেটরী স্কুল (পুরুষ ও নারী)। এছাড়া স্থগিত হওয়া ২৪নং ওয়ার্ডের গাজি বুরহান উদ্দিন গরম দেওয়ান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় (পুরুষ ও মহিলা) কেন্দ্রে ২ হাজার ১২১ ভোটার এবং হবিনন্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ২ হাজার ৫৬৬ ভোটার রয়েছে। 

গত ৩০ জুলাই অনুষ্ঠিত সিসিক নির্বাচনে ২৭টি ওয়ার্ডে ১৩৪টি কেন্দ্রের মধ্যে ১৩২টির ঘোষিত ফলাফলে আরিফুল হক চৌধুরী ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছেন ৯০ হাজার ৪৯৬ ভোট। আওয়ামী লীগ প্রার্থী বদরউদ্দিন আহমদ কামরান নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন ৮৫ হাজার ৮৭০ ভোট। ১৩২ কেন্দ্রের ফলাফলে ৪ হাজার ৬২৬ ভোটে আরিফ এগিয়ে থাকলেও এ দুই কেন্দ্রের মোট ভোট ৪ হাজার ৭৮৭টি। সেই হিসেবে স্থগিত কেন্দ্রের ভোটের চেয়ে ১৬১ ভোট পিছিয়ে আরিফ। ফলে কেন্দ্র দু’টিতে ফের নির্বাচন ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ