ঢাকা, শুক্রবার 10 August 2018, ২৬ শ্রাবণ ১৪২৫, ২৭ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

চবি পরিবহন সংকট নিরসন দাবিতে স্মারকলিপি

চট্টগ্রাম ব্যুরো: গতকাল বৃহস্পতিবার ৯আগস্ট সকাল ১১টায় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনারে পরিবহণ সংকট সংশ্লিষ্ট ৪দফা দাবিতে মানববন্ধন করেছে সাধারণ শিক্ষার্থীরা। 

অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষার্থী দেওয়ান তাহমিদ এর সঞ্চালনায় উক্ত মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষার্থী দিদারুল ইসলাম, রাজেশ্বর দাশ গুপ্ত, আসিফুর রহমান, ইংরেজি বিভাগের শুভ মারমা, পদার্থ বিভাগের আশরাফী নিতু, নাট্যকলা বিভাগের ঋজু লক্ষী।

 বক্তারা বলেন, বুধবার সকালবেলা শাটল ট্রেনের নিচে পা হারালেন সমাজতত্ত্ব বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী মো: রবিউল আলম। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের একমাত্র পরিবহণ মাধ্যম শাটল ট্রেনে বছরের পর বছর ধরে শিক্ষার্থীদের ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে। প্রত্যেক শিক্ষার্থী পরিবহণ বাবদ নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা দেয়ার পরেও শাটলে আসনের নিশ্চয়তা পায়না। প্রতিবছর শিক্ষার্থীর সংখ্যা বাড়ছে, নতুন ডিপার্টমেন্ট হচ্ছে কিন্তু শাটলে বগির সংখ্যা বাড়ছেনা। একটিমাত্র সিট ধরার জন্য ঘন্টা ধরে অপেক্ষা, চলন্ত ট্রেনে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে হুড়োহুড়ি করে ওঠা, সবশেষে সিট না পেয়ে গাদাগাদি করে দাঁড়িয়ে মেঝেতে পরে থাকা মলমূত্র সহ্য করে কিংবা মালগাড়িতে চড়ে এক ঘন্টা পার করা- এগুলো নিত্যদিনের গল্প। সেই সাথে পুরোনো ইঞ্জিন ও মেয়াদউত্তীর্ণ, ভাঙাচোরা সিট-টয়লেট-জানালার বগির যন্ত্রণা তো আছেই। গরম কিংবা বৃষ্টির দিনে ভোগান্তি চরমে উঠে। ডাবল লাইন না থাকায় বিভিন্ন স্টপেজে দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকে ট্রেন। কোন নিরাপত্তারক্ষী বা সিগনালের ব্যবস্থা না থাকায় প্রায়ই দুর্ঘটনায় পড়ে শিক্ষার্থীরা। রাতের ট্রেনে প্রায়ই ছিনতাই এর শিকার হয় শিক্ষার্থীরা। এছাড়া ট্রেন চলাকালে বাইরে থেকে ছোড়া পাথরে আহত হয় অনেকে। চলমান এই নৈরাজ্যের চাই। আন্দোলনকারীরা মানববন্ধন শেষে চার দফা দাবি উত্থাপন করে। দাবিগুলো নিম্নরূপ : অঙ্গহানি হওয়া ছাত্রের সুচিকিৎসার ব্যয়ভার বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে বহন করতে হবে ও বিশ্ববিদ্যালয়ে চাকরির নিশ্চয়তা দিতে হবে। বগির সংখ্যা এবং শিডিউল বৃদ্ধি করতে হবে। ডাবল লাইন চালু করতে হবে। বিশ্ববিদ্যালয় ফ্রী বাস সার্ভিস চালু করা। নিউমার্কেট টু ক্যাম্পাস। শাটলে নিরাপত্তা প্রহরী নিয়োগ এবং শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ। মানববন্ধন শেষে একটি মিছিল বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন ফ্যাকাল্টি প্রদক্ষিণ করে প্রশাসনিক ভবনের সামনে অবস্থান নেয় এবং একটি প্রতিনিধি দল উপাচার্য বরাবর স্মারকলিপি পেশ করে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ