ঢাকা, শনিবার 11 August 2018, ২৭ শ্রাবণ ১৪২৫, ২৮ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

এসএসসি’র পরই ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে ক্যারিয়ার

প্রযুক্তি বর্তমান বিশ্বকে গ্লোবাল ভিলেজে পরিণত করেছে। আধুনিক এই যোগাযোগ ব্যবস্থায় আমাদের জীবন যাপনের সঙ্গে সঙ্গে পাল্টে যাচ্ছে রাজনৈতিক, সামাজিক ও অর্থনৈতিক প্রেক্ষাপট।  তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর বিশ্বে নিজেকে আত্মনির্ভরশীল ব্যক্তি হিসেবে গড়ে তুলতে হলে কম্পিউটার টেকনোলজি পড়ার বিকল্প কিছু হতে পারে না। কম্পিউটারসহ যেকোনো ধরনের ইলেক্ট্রনিক্স পণ্যসামগ্রী পরিচালনার জন্যে সর্বাগ্রে প্রয়োজন বিদ্যুত। বিদ্যুতের ব্যবহার মানবজীবনে বৈচিত্রময়তা এনে দিয়েছে। এই বৈচিত্র্যময়তাকে নিরাপদ ও সুনিপূণভাবে কাজে লাগানোর জন্যে ইলেক্ট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারগণ নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। কোনো কিছু নির্মাণের আগে সর্বপ্রথম একজন সিভিল ইঞ্জিনিয়ারের কথাই মাথায় আসে। কেননা তার নকশা, পরিকল্পনা ও দিক নির্দেশনা ছাড়া কাজটি প্রায় অসম্ভব। যতই দেখতে সহজ মনে হয় না কেন, যে কোনো নির্মাণ কাজে গভীর জ্ঞান এবং কৌশলের পরিকল্পনা আপনার-আমার সাধারণ মস্তিস্কের কাজ নয়। নকশা, ব্যবস্থাপনা, গঠন, নির্ধারণ তদারকি, পরিকল্পনা ইত্যাদি একজন পুরকৌশলীর প্রধান কাজ। উচ্চ শিক্ষার সুযোগ একজন ডিপ্লোমা প্রকৌশলীরাই পারে আত্মকর্মসংস্থানের সৃষ্টি করে, বেকারত্ব দূর করতে। চাকরির পাশাপাশি সে বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারিংসহ অন্যান্য উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত ও প্রশিক্ষিত হতে পারে। চার বছর মেয়াদি কোর্সটি সফলভাবে সম্পন্ন করার পর বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড সনদপত্র প্রদান করবে। সেই সনদপত্রের মাধ্যমে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণের সুযোগ রয়েছে। দেশে-বিদেশে বিদ্যমান সরকারি/বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো থেকে বিএসসি ইন ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি অর্জনের যোগ্যতা অর্জন। দেশে ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং করার জন্য সেরা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে অন্যতম ইন্সটিটিউট অব সাইন্স এন্ড টেকনোলজি (আইএসটি)-তে চার বছর মেয়াদি ডিপ্লোমা কোর্সে ভর্তি প্রক্রিয়া চলছে। একুশ শতকের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় কারিগরি শিক্ষায় পিছিয়ে পড়াদের  জনসম্পদে পরিণত করে তাদের কর্মসংস্থান করে দেশের বেকারত্ব লাঘবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে দক্ষ জনশক্তি তৈরি ও স্বনির্ভর বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে বিশ্বব্যাংকের বৃত্তিপ্রাপ্ত ও বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক অনুমোদিত তুলনামূলক কম খরচে সুদক্ষ ডিপ্লোমা প্রকৌশলী তৈরি করাই হলো আইএসটির লক্ষ্য। আইএসটিতে চলমান কোর্সগুলোতে ভর্তি হওয়ার ন্যূনতম শিক্ষাগত যোগ্যতা থাকতে হবে এসএসসি/ সমমান পরীক্ষায় যে কোন বিভাগ থেকে সিজিপিএ ২.০। বিস্তারিত ০১৭৬২৫৫০৫৮০ এই নম্বরে কল করে জানা যাবে। এইচএসসি (ভোকেশনাল) উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীরা সরাসরি চতুর্থ পর্বে ভর্তি হওয়ার সুযোগ। এইচএসসি (বিজ্ঞান) উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীরা সরাসরি তৃতীয় পর্বে ভর্তি হওয়ার সুযোগ। আরো জানতে ভিজিট করতে পারেন www.istdiploma.edu.bd এই ওয়েবসাইটিটিতে। -শি.রি.

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ