ঢাকা, রোববার 12 August 2018, ২৮ শ্রাবণ ১৪২৫, ২৯ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

ভারত থেকে ‘বাংলাদেশী’ অনুপ্রবেশকারীদের তাড়াবোই -অমিত শাহ

সংগ্রাম ডেস্ক : সরকারি পর্যায়ে বাংলাদেশকে যতই আশ্বাস দেওয়া হোক যে, একজনকেও বাংলাদেশে পুশব্যাক করা হবে না। কিন্তু ভারতীয় জনতা পার্টির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহর ঘোষণা, ভারত থেকে ‘বাংলাদেশী’ অনুপ্রবেশকারীদের তাড়াবই। কলকাতার মেয়ো রোডে গতকাল শনিবার এক সমাবেশে দাঁড়িয়ে অমিত শাহ আরও বলেছেন, পশ্চিমবঙ্গ থেকেও ‘বাংলাদেশীদের’ তাড়াব। তবে বাংলাদেশ থেকে আসা হিন্দু, খ্রীস্টান, বৌদ্ধ শরণার্থীদের কোনভাবেই ফেরত পাঠানো হবে না। এজন্য ভারতের নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল সংসদে আনা হয়েছে। অমিত শাহ বলেছেন, বাংলাদেশ, পাকিস্তান, আফগানিস্তান থেকে যে হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান শরণার্থীরা ভারতে এসেছেন, তাদের কোনও চিন্তা নেই।
শরণার্থীদের নাগরিকত্ব দিয়ে দেবে ভারত সরকার। ভারতের আসাম রাজ্যে নাগরিকপঞ্জীর খসড়া তালিকা থেকে ৪০ লক্ষ মানুষকে বাদ দেওয়া নিয়ে দেশজুড়ে জোর বিতর্ক শুরু হয়েছে। আর এ ব্যাপারে সবচেয়ে বেশি সোচ্চার হয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তার দল তৃণমূল কংগ্রেস এদিনই নাগরিকপঞ্জীর বিরুদ্ধে রাজ্যের জেলায় জেলায় কাল দিবস পালন করছেন। বিজেপি আবশ্য নাগরিকপঞ্জীর সপক্ষে জোরালোভাবে কথা তুলেছে। বিজেপির সভাপতি অমিত শাহর মতে, বিদেশি অনুপ্রবেশকারীদের বার করতেই নাগরিকপঞ্জী। তিনি বলেছেন, আমাদের কাছে দেশ আগে, পরে অনুপ্রবেশকারী। দেশের নিরাপত্তার স্বার্থে নাগরিকপঞ্জী জরুরি বলে তিনি মন্তব্য করেছেন।
তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে লক্ষ্য করে বিজেপি সভাপতি বলেছেন, তৃণমূল কংগ্রেস ‘বাংলাদেশি’ অনুপ্রবেশকারীদের ভোট ব্যাংক  হিসেবে ব্যবহার করছে। আর তাই তিনি নাগরিকপঞ্জী নিয়ে বিভ্রান্তি তৈরি করছেন। এদিনের সভা থেকেই বিজেপি সভাপতি পশ্চিমবঙ্গ থেকে মমতার সরকারকে উৎখাতের ডাক দিয়েছেন।
তিনি আরও বলেছেন, বাংলায় প্রকৃত উন্নয়ন করতে হলে মোদির উপর ভরসা রাখতে হবে। তিনি জানিয়েছেন, রাজ্যের জেলায় জেলায় গিয়ে গণতন্ত্রের আওয়াজ পৌঁছে দেবেন। অমিত শাহর ঘোষণা, আমরা বাংলা বিরোধী নয়, কিন্তু মমতা বিরোধী। মমতা সরকারকে উৎখাত করতে হবে, মঞ্চ থেকেই ডাক দিলেন অমিত শাহ। তিনি বলেছেন, আমাদের বিজয় রথ থামালে চলবে না। এখানে মোদির নেতৃত্বে সরকার গড়তে হবে, তবেই উন্নয়ন হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ