ঢাকা, রোববার 12 August 2018, ২৮ শ্রাবণ ১৪২৫, ২৯ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

কেশবপুরে পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের মেডিকেল অফিসারের কক্ষ ২০ দিন তালাবদ্ধ

কেশবপুর (যশোর) সংবাদদাতা : কেশবপুর উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের মেডিকেল অফিসার (মা ও শিশু স্বাস্থ্য) না থাকায় ওই বিভাগের জন্ম নিয়ন্ত্রণের স্থায়ী ও দীর্ঘ মেয়াদি পদ্ধতি গ্রহণ এবং মা ও শিশু স্বাস্থ্য সেবায় ধস নেমেছে। এই বিভাগের ডাক্তার আব্দুল বারী বদলী ও ডা. তামান্না পারভীন এর ছুটির কারণে সংশি¬ষ্ট বিভাগের মেডিকেল অফিসারের কক্ষ গত ২০ দিন ধরে তালাবদ্ধ অবস্থায় রয়েছে। যে কারণে দূর-দূরান্ত থেকে আসা রোগীরা সেবা না পেয়ে চরম হয়রানির শিকার হচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এদিকে, বদলী ঠেকাতে ডা: আব্দুল বারী ঊদ্ধর্তন কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করতে মোটা অংকের টাকার মিশন নিয়ে মাঠে নেমেছেন। ডা. আব্দুল বারী স্বপদে বহাল থাকতে তাঁর অধীনস্থ কর্মচারীদের বাধ্য করছেন তার পক্ষে ঊধ্বর্তন মহলে আবেদন করাতে।
জানা গেছে, কেশবপুর উপজেলার ১৪৪ গ্রামসহ পাশ্ববর্তী মনিরামপুর, কলারোয়া ও তালা উপজেলার আংশিক এলাকার মা ও শিশু রোগীরা প্রতিনিয়ত পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের সেবা গ্রহণ করে থাকেন। কিন্তু মেডিকেল অফিসারের কক্ষ তালাবদ্ধ থাকায় তারা সেবা না পেয়ে বাড়ি ফিরে যাচ্ছেন। এর আগে ডাক্তার আব্দুল বারী নিয়মিত অফিস না করে বিভিন্ন ক্লিনিকে অপারেশন করাসহ নারী কেলেঙ্কারীর অভিযোগে অভিযুক্ত হলেও তিনি সে যাত্রায় ঊদ্ধর্তন কর্তাদের ম্যানেজ করে পার পেয়ে যান। ফলে তিনি ৭ বছর ধরে এ উপজেলায় পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের মেডিকেল অফিসার (মা ও শিশু স্বাস্থ্য) হিসেবে কর্মরত রয়েছেন।
নাম প্রকাশ না করার সত্তে পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের কর্মচারীরা জানান, এই বিভাগের মেডিকেল অফিসার (মা ও শিশু স্বাস্থ্য) আব্দুল বারীর গত ২৩ জুলাই তাঁর বদলীর আদেশ হওয়ায় তিনি দেড় মাসের জন্যে ছুটির আবেদন করে ২৬ জুলাই থেকে দপ্তরে অনুপস্থিত রয়েছেন। এ সুযোগে তিনি স্বপদে বহাল থাকতে অধীনস্থ কর্মচারীদের বাধ্য করছেন তার পক্ষে ঊধ্বর্তন মহলে আবেদন করাতে। ডা. আব্দুল বারী ২৬ জুলাই ছুটির আবেদন করেও গত ৭ আগস্ট স্থায়ী ও দীর্ঘ মেয়াদী পদ্ধতি গ্রহণ ক্যাম্পেও কাজ করেছেন বলে অভিযোগ। ছুটির আবেদন করে তিনি প্রতিদিন কেশবপুরের বিভিন্ন ক্লিনিকে সিজারিয়ান অপারেশনসহ অন্যান্য অপারেশন করে চলেছেন। অপরদিকে, অপর মেডিকেল অফিসার (মা ও শিশু স্বাস্থ্য) ডা. তামান্না পারভীন কেশবপুর পরিবার পরিকলাপনা অফিসে দেড় বছর আগে যোগদান করলেও তিনি কখনও অফিস করেন না। ছুটি নিয়েই কাটিয়ে দিয়েছেন প্রায় এক বছর। এরপরও তিনি গত ১০ জুলাই থেকে পুনরায় ৩১ দিনের ছুটি কাটাচ্ছেন। যে কারণে ওই ডাক্তারদ্বয়ের কক্ষটি এখনও তালাবদ্ধ অবস্থায় রয়েছে।
বিশ্বস্ত একটি সূত্রে জানা গেছে, ডা. আব্দুল বারী দীর্ঘ দিন ধরে মেডিকেল অফিসার (মা ও শিশু স্বাস্থ্য) পদে কর্মরত থাকার সুবাদে তার উর্দ্ধতন কর্তাদের সাথে সখ্যতা গড়ে ওঠে। যে কারণে অফিস ফাঁকি দিয়ে তিনি কেশবপুরসহ বিভিন্ন ক্লিনিকে অপারেশন করে চলেছেন।
এছাড়া ডাক্তার বারীর বিরুদ্ধে গত ০২/১২/১৫ তারিখ কেশবপুর উপজেলার সাগরদাঁড়ি ইউনিয়নের মেহেরপুর গ্রামের নাজমুল মোড়লের স্ত্রী আয়শা খাতুন আল্ট্রসানো রিপোর্ট দেখাতে এসে এই ডাক্তারের লালসার শিকার হন। ওই ডাক্তার তার অফিস রুমেই ওই মহিলার সাথে অনৈতিক কাজ করার চেষ্টা করলে মহিলা তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ করলেও কোন সুবিচার পায়নি। পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের মহাপরিচালক উক্ত অভিযোগের সুষ্ঠু তদন্ত রিপোর্ট চাইলেও ডা. বারী তদন্ত অফিসারকে ম্যানেজ করে অভিযোগ মিথ্যা প্রমাণ করান।
এ ব্যাপারে ডাক্তার আব্দুল বারী বদলীর আদেশ ও দেড় মাসের ছুটির কথা স্বীকার করে সাংবাদিকদের জানান, আমি এখনও কেশবপুর থেকে ছাড়পত্র নেয়নি এবং উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা প্রদীপ কুমার বিশ্বাসের অনুরোধে স্থায়ী ও দীর্ঘ মেয়াদি পদ্ধতি গ্রহণ ক্যাম্পে কাজ করছি। উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের কর্মকর্তা প্রদীপ কুমার বিশ্বাস জানান, ডাক্তার আব্দুল বারীর ভাষ্যমতে তিনি ছুটিতে আছেন। তবে গত মঙ্গলবার তিনি স্থায়ী পদ্ধতি ক্যাম্প করেছেন। আর ডাক্তার তামান্না পারভীন ছুটিতে রয়েছেন।  
কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার শেখ আবু শাহিন বলেন, উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের আলাদা কোন জায়গা না থাকায় পরিবার পরিকল্পনা বিভাগ স্বাস্থ্য কমপে¬ক্সের কয়েকটি রুম নিয়ে তাদের সকল কর্মকান্ড পরিচালনা করে আসছেন।
এ ব্যাপারে যশোর জেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের উপপরিচালক ডাক্তার মুন্সি মনোয়ার হোসেনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, মেডিকেল অফিসার ডাক্তার আব্দুল বারীর বদলীর আদেশের পর তিনি দেড় মাসের ছুটির আবেদন করেছেন। যা উদ্ধর্তন কর্মকর্তাদের অবহিত করা হয়েছে।
পরিবার পরিকল্পনা খুলনা বিভাগীয় পরিচালক ডা. শরিফুল ইসলাম বলেন, কেশবপুরের বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে যশোরের উপপরিচালক লিখিতভাবে জানালে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ