ঢাকা, সোমবার 13 August 2018, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৫, ১ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

খালেদা জিয়ার মুক্তির মাধ্যমে দেশের ও জনগণের মুক্তি হবে -রিজভী

স্টাফ রিপোর্টার : বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, খালেদা জিয়ার মুক্তির মাধ্যমে শুধু একজন ব্যক্তির মুক্তি হবে না; তার মুক্তির মাধ্যমে দেশের ও জনগণের মুক্তি হবে। তিনি বলেন, মা খালেদা জিয়ার ওপর নির্যাতন আরাফাত রহমান কোকোর মৃত্যুর কারণ।
গতকাল রোববার সকালে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার ছোট ছেলে মরহুম আরাফাত রহমান কোকোর ৪৯তম জন্মদিনে উপলক্ষে জাতীয়তাবাদী মহিলা দল আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি একথা বলেন। দোয়া মাহফিলে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাস, বিএনপির মহিলা বিষয়ক সম্পাদক নূরে আরা সাফা, ঢাকা মহানগর উত্তর মহিলা দলের সভানেত্রী পিয়ারা মোস্তফা, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভানেত্রী রাজিয়া আলিম, সাবেক এমপি রওশনারা ফরিদ প্রমুখ।
অবৈধ সরকারের বিরুদ্ধে রাজপথে বের হতে না পারার কথা উল্লেখ করে রুহুল কবির রিজভী বলেন, আমরা এখনো কেনো ঘর থেকে বের হতে পারি না? কেনো আমরা এই অবৈধ সরকারের বিরুদ্ধে রাজপথের ইট, কাঠ, কংক্রিটের ধুলা উড়িয়ে দাঁড়াতে পারি না। সেটা ভাবলে নিজের কাছে নিজেকেই ধিক্কার লাগে।
তিনি বলেন, যখন খালেদা জিয়া গুলশানের অফিসে অবরুদ্ধ। তখন তার কনিষ্ঠ পুত্র আরাফাত রহমান কোকোর মৃত্যু সংবাদ শুনতে হয়েছে তাকে। তখন তিনি শেখ হাসিনার রক্ত চক্ষুর কাছে মাথানত করেননি। ভয়কে তিনি উড়িয়ে দিয়েছেন। খালেদা জিয়া তখন নির্ভীক ছিলেন। এটাই হল খালেদা জিয়ার বৈশিষ্ট্য। এটাই হল খালেদা জিয়ার ঐতিহ্য। এটা নিয়েই তিনি দশকের পর দশক জাতীয়তাবাদের পতাকা, স্বাধীনতা ও স্বার্বভৌমত্বের পতাকা উড্ডীন করেছিলেন। আজ খালেদা জিয়া কারাগারে আছেন, তাকে মুক্ত করতে হবে। কারণ তার মুক্তির মাধ্যমে একজন ব্যক্তির মুক্তি হবে না। তার মুক্তির মাধ্যমে দেশের ও জনগণের মুক্তি হবে।
কোকোর স্মৃতিচারণ করে রিজভী বলেন, আরাফাত রহমান কোকো নীরবে নিভৃতে চলাফেরা করতেন। সবার সঙ্গে অত্যন্ত আন্তরিক ছিলেন। কোনো কথা বললে অত্যন্ত বিনয়ের সঙ্গে কথা বলতেন। তিনি রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত ছিলেন না। অত্যন্ত মিতভাষী ও ক্রীড়ামোদি ছিলেন। তিনি একজন ক্রীড়া সংগঠক ছিলেন। এই ছেলেটিকে পৃথিবী থেকে চলে যাওয়ার কথা নয়। তার মায়ের উপর জুলুম দেখে তিনি পৃথিবী থেকে চলে গেছেন।
নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা প্রসঙ্গে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, আজকে সারা জাতি অবরুদ্ধ। কচি কচি বাচ্চাদের যেভাবে রক্তাক্ত করা হয়েছে। তাদের রক্ত মাখা কেডস ও রক্তমাখা শার্ট দেখলে কার না হৃদয় ভেঙে যাবে। অথচ এই ঘটনাও ঘটিয়েছে এই পাষণ্ড সরকার।
তিনি বলেন, শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে কচি কচি বাচ্চাদের ওপরে হেলমেট পরে যারা আক্রমণ করেছে প্রধানমন্ত্রী তাদের দেখতে যান, কিন্তু যারা আক্রান্ত হয়েছে সেই স্কুলপড়ুয়া বাচ্চাদের দেখতে যান না। এই নিষ্ঠুর দেশে আমরা এখনো বাস করছি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ