ঢাকা, সোমবার 13 August 2018, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৫, ১ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

শাহজাদপুরে শীল পরিবারের লোকেরা ভাল নেই

শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) : মাটিতে বসে কাজ করছে অনন্তশীল -সংগ্রাম

এম,এ,জাফর লিটন,শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) থেকে : ভাল নেই শাহজাদপুরের শীল পরিবারগুলো। যুগের সাথে খাপ খাইতে না পেরে অনাহারে অনাদরে দিনকাটছে শীলদের। ফলে পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে তারা। অথচ এক যুগ পূর্বেও শাহজাদপুর পৌর এলাকাসহ উপজেলার গ্রামীণ হাট-বাজারগুলোতে শীলরা মাটিতে বসে চুল কাটতো। কিন্তু সময়ের বিবর্তনে শীলদের গুরুত্ব হারিয়ে গেছে সবাই এখন টুল ছেড়ে চেয়ারে বসে সেলুনে চুল কাটছে। তবে প্রত্যেক হাট-বাজারে এখনও দু’একজন শীল নিজ পেশা ধরে রেখেছে । পুঁজি ও পৃষ্ঠপোষকতার অভাবে আবহমান গ্রাম বাংলার সেই চিরায়িত ঐতিহ্য ধরে রেখেছে তাঁরা। যদিও এই পেশায় টিকে থাকতে তাঁদের যুদ্ধ করতে হচ্ছে। এ ব্যাপারে ডায়া বাজারের অনন্ত শীল (৬০) জানান, এক সময় তিনিও মাটিতে টুলে বসে চুল কাটতেন। তখন মাটিতে চুল কেটে ৫ টাকা আর সেভ করতে ২ টাকা নিতেন। সারা দিন পরিশ্রম করে ১০০টাকা জোর করাই কঠিন হয়ে পরতো।গতির এই যুগে ১০০টাকা ইনকাম করে পোষানো সম্ভভ নয়। তাই কয়েক বছর পূর্ব থেকেই তিনি টুল ছেড়ে তাঁর ছেলেকে নিয়ে রুম ভাড়া করে সেলুন দিয়ে এখন যুগের সাথে তাল মিলিয়ে টিকে আছেন। কিন্তু যাদের রুম ভাড়া করার মত অর্থ নেই তাঁদের বাধ্য হয়েই টিকে থাকতে  তবুও সে সময় পোষাইতো। কিন্তু দ্রব্য মূল্যের উর্ধ্ব গতির এই যুগে ১০০টাকা ইনকাম করে পোষানো সম্ভভ নয়। তাই কয়েক বছর পূর্ব থেকেই তিনি টুল ছেড়ে তাঁর ছেলেকে নিয়ে রুম ভাড়া করে সেলুন দিয়ে এখন যুগের সাথে তাল মিলিয়ে টিকে আছেন। কিন্তু যাদের রুম ভাড়া করার মত অর্থ নেই তাঁদের বাধ্য হয়েই টিকে থাকতে থাকেত হচ্ছে। বর্তমানে সেলুনে চুল কাটতে ৩০-৪০টাকা,আর সেভ করতে ২০-৩০টাকা নেয়া হচ্ছে। সেখানে শীলরা টুলে বসে সেভ করতে ১০টাকা আর চুল কাটলে ১৫-২০টাকা নিচ্ছেন। তবুও তাঁদের টিকে থাকা সম্ভব হচ্ছেনা তাই এই পেশা ছেড়ে দিচ্ছেন অনেকেই।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ