ঢাকা, শনিবার 18 August 2018, ৩ ভাদ্র ১৪২৫, ৬ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

ধর্মযাজককে মুক্তি না দিলে তুরস্কের ওপর আরো অবরোধের হুমকি যুক্তরাষ্ট্রের

ধর্ম যাজক এন্ড্রু ক্লানসনকে মুক্তি না দিলে আরো অবরোধের হুমকি দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। অবশ্য শর্তহীন আলোচনায় বসতে তুরস্ক প্রস্তুত বলে জানিয়েছে দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত চাভুসগলুধী

১৭ আগস্ট, রয়টার্স, আল-জাজিরা: যদি যাজক এন্ড্রু ব্রানসনকে মুক্তি না দেয়া হয় তবে যুক্তরাষ্ট্র তুরস্কের বিরুদ্ধে আরো অধিক অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার হুমকি দিয়েছে। মঙ্গলবার হোয়াইট হাউসের একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ন্যাটোর মিত্র দেশটির ওপর আরো চাপ প্রয়োগ করার মত রসদ যুক্তরাষ্ট্রের ভান্ডারে জমা আছে।

হোয়াইট হাউসের জাতীয় নিরাপত্তা বিষয়ক উপদেষ্টা জন বোল্টন যাজক এন্ড্রু ব্রানসনের বিষয়ে আলোচনার জন্য তুরস্কের কূটনৈতিক সেরদার কিলিকের সাথে এক ব্যক্তিগত বৈঠকের একদিন পর যুক্তরাষ্ট্রের তরফ থেকে এমন হুমকি আসে। যুক্তরাষ্ট্রের একজন সিনিয়র কর্মকর্তা জানিয়েছেন, বোল্টন সেরদারকে এই বলে সতর্ক করে দিয়েছেন যে, যুক্তরাষ্ট্র তুরস্ককে আর কোনো সুযোগ দিতে চায় না।

হোয়াইট হাউজের একজন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে রয়টার্সকে বলেন, ব্রানসনের বিষয়টি নিয়ে ‘কোনো অগ্রগতি হয়নি।’

 ‘যুক্তরাষ্ট্রের প্রশাসন এই বিষয়ে আরো কঠোর হতে যাচ্ছে। প্রেসিডেন্ট যাজক ব্রানসনকে ঘরে ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে শত ভাগ প্রতিশ্রুতিবদ্ধ, এবং যদি এই বিষয়ে আর কিছু দিন বা কিছু সপ্তাহের মধ্যে কোনো অগ্রগতি না হয় তবে হয়তো তুরস্কের বিরুদ্ধে আরো ব্যবস্থা নেয়া হবে।’- হোয়াইট হাউজের কর্মকর্তাটি এ কথা জানান।

ব্রানসনের বিষয়টি এবং সিরিয়াতে উভয় দেশের স্বার্থের বিষয়ে দ্বন্দে¦র কারণে যুক্তরাষ্ট্রের সাথে তুরস্কের মিত্রতা তলানী অবস্থানে রয়েছে। ট্রাম্প তুরস্কের ধাতু আমদানীর উপর দ্বিগুণ শুল্ক আরোপ করেছেন যার ফলে তুরস্কের মুদ্রা লিরার মান স্মরন কালের সবচেয়ে নিম্নমুখী অবস্থানে রয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র এমনকি ইরানের উপর দেয়া নিষেধাজ্ঞা থেকে উঠে আসতে দেশটিকে সাহায্য করার দায়ে তুরস্কের বাষ্ট্রয়াত্ব হাল্কব্যাংকে জরিমানা আরোপের বিষয়টি নিয়ে চিন্তা ভাবনা করছে। চলতি মাসের শুরুতে যুক্তরাষ্ট্র এরদোগানের দুইজন মন্ত্রীর উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছিল। যাজক ব্রানসনকে দুই বছর আগে তুরস্কের সরকারকে উৎখাত করার সৈন্যদের ব্যর্থ চেষ্টায় মদত দেয়ার অভিযোগে আটক করা হয়। মঙ্গলবার ব্রানসনের আইনজীবি জানান, ব্রানসনকে গৃহবন্দিদশা থেকে মুক্তি দেয়ার এবং ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা উঠিয়ে নেয়ার জন্য তারা আদালতে আপিল করেছেন। 

অন্যদিকে তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী  মেভলুত চাভুসগলু বলেছেন,  সব দ্বন্দ¦ ভুলে আমরা যুক্তরাষ্ট্রের সাথে কথা বলতে প্রস্তুত রয়েছি। তবে এখানে কোনো শর্ত ও হুমকি থাকতে পারবে না। সম্প্রতি আঙ্কারায় বিদেশি রাষ্ট্রদূতদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ কথা বলেন। সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্র ও তুরস্কের মাধ্যকার চলমান সমস্যা সমাধানে তুরস্ক যথেষ্ট আন্তরিক বলে জানিয়েছেন তিনি। সমস্যা সমাধানে তারা যুক্তরাষ্ট্রের সাথে যে কোনো ধরণের কথা বলেতে প্রস্তুত রয়েছে বলেও জানান তিনি।

এদিকে গত শুক্রবার তুরস্ক থেকে আমদানি করা অ্যালুমিনিয়াম ও স্টিলের ওপর দ্বিগুণ শুল্কারোপের ঘোষণা দেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। পরে এর পাল্টা জবাবে হিসেবে মার্কিন পণ্যের ওপর দ্বিগুণ শুল্কারোপ করে তুরস্ক। এর মধ্যে রয়েছে যাত্রীবাহী গাড়ি, অ্যালকোহল ও তামাক।

উল্লেখ্য, মার্কিন যাজককে সন্ত্রাসবাদ মামলায় বিচার ও বিভিন্ন কূটনৈতিক কারণে দুই ন্যাটো মিত্রের মধ্যে উত্তেজনা চলছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ