ঢাকা, শনিবার 18 August 2018, ৩ ভাদ্র ১৪২৫, ৬ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

ভারতে নতুন রাজ্যের দাবিতে আন্দোলন

১৭ আগস্ট, টাইমস অব ইন্ডিয়া: এবার ভারতে উত্তর প্রদেশ ভেঙে ‘বুন্দেলখণ্ড’ নামের নতুন রাজ্য গড়ার দাবি উঠেছে। উত্তর প্রদেশের পাহাড়ি এ অঞ্চল ঘিরে শুরু হয়েছে জোরালো আন্দোলন। আন্দোলনকারীরা মূলত উত্তর প্রদেশের সাতটি জেলা ও মধ্যপ্রদেশের সাতটি জেলা নিয়ে গড়তে চাইছে পৃথক বুন্দেলখণ্ড রাজ্য। ভারতে বড় রাজ্য ভেঙে ছোট ছোট পৃথক রাজ্য গড়ে তোলার আন্দোলনের ঘটনা এই প্রথম নয়। এর আগেও উত্তর প্রদেশ ভেঙে উত্তরাখণ্ড, মধ্যপ্রদেশ ভেঙে ছত্তিশগড়, বিহার ভেঙে ঝাড়খণ্ড এবং সর্বশেষ অন্ধ্র প্রদেশ ভেঙে তেলেঙ্গানা রাজ্য গড়ে তোলা হয়।

এখন নতুন করে উত্তর প্রদেশ ভেঙে বুন্দেলখণ্ড রাজ্য গড়ে তোলার আন্দোলন শুরু হয়েছে। আলাদা রাজ্য গড়ে না তোলা পর্যন্ত আন্দোলন চলবে বলে হুঁশিয়ার করেছেন আন্দোলনকারীরা। ইতিমধ্যে ২৫০ জন আন্দোলনকারী মাথা মুড়িয়ে অভিনব উপায়ে আন্দোলনে শামিল হয়েছেন।

ভারতে এখন জনসংখ্যার দিক থেকে বৃহত্তম রাজ্য উত্তর প্রদেশ। ২০০০ সালের ৯ নভেম্বর উত্তর প্রদেশ ভেঙে গঠিত হয়েছিল পৃথক রাজ্য উত্তরাখণ্ড।

একই বছর ১ নভেম্বর মধ্যপ্রদেশ ভেঙে ছত্তিশগড় রাজ্য আর ১৫ নভেম্বর বিহার ভেঙে পৃথক ঝাড়খণ্ড রাজ্য গঠিত হয়েছিল। এ তিনটি রাজ্য গড়ার পরও ভারতে বিভিন্ন রাজ্য ভেঙে আরও কয়েকটি ছোট রাজ্য গড়ার আন্দোলন চলছিল। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য ছিল পশ্চিমবঙ্গ ভেঙে পৃথক গোর্খাল্যান্ড রাজ্য গড়া।

অন্ধ্র প্রদেশ ভেঙে তেলেঙ্গানা রাজ্য গড়া। ওই সময় ওই আন্দোলনে সাড়া দেয়নি ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার এবং পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকার।

এ তিনটি রাজ্য গঠিত হওয়ার পর ভারতের অন্ধ্র প্রদেশ ভেঙে পৃথক তেলেঙ্গানা রাজ্য গড়ার আন্দোলন তীব্র হয়। এরপরই কেন্দ্রীয় সরকার ২০১৪ সালের ২ জুন পৃথক তেলেঙ্গানা রাজ্য প্রতিষ্ঠা করে।

তেলেঙ্গানার পর ভারতে আর নতুন করে কোনো রাজ্য প্রতিষ্ঠা হয়নি। ভারতে এখন রয়েছে ২৯টি রাজ্য। সঙ্গে রয়েছে আরও সাতটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল। সব মিলিয়ে এখন ৩৬টি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল রয়েছে।

তেলেঙ্গানা রাজ্য গড়ার পর পশ্চিমবঙ্গে পৃথক গোর্খাল্যান্ড রাজ্য গড়ার আন্দোলন শুরু হলেও এতে সায় মেলেনি কেন্দ্রীয় ও রাজ্য সরকারের। পশ্চিমবঙ্গে আর গঠিত হয়নি পৃথক গোর্খাল্যান্ড রাজ্য বরং আন্দোলনকারীরা স্বায়ত্তশাসিত গোর্খাল্যান্ড টেরিটরিয়াল অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (জিটিএ) পেয়ে সরে আসে আন্দোলন থেকে।

এসবের মধ্যেই ভারতের উত্তর প্রদেশে পৃথক রাজ্য বুন্দেলখণ্ড গড়ার দাবিতে সেখানে চলছে জোর আন্দোলন। বুন্দেলখণ্ড উত্তর প্রদেশের একটি পাহাড়ি অঞ্চল।

এই অঞ্চলের মানুষদের জড়ো করে জোর লড়াই শুরু করেছে বুন্দেলখণ্ডের ‘বুন্দেলি সমাজ’ নামের একটি স্থানীয় সংগঠন। আন্দোলনকারীরা উত্তর প্রদেশের সাতটি জেলা এবং মধ্যপ্রদেশের সাতটি জেলা নিয়ে গড়তে চাইছে পৃথক বুন্দেলখণ্ড রাজ্য।

উত্তর প্রদেশের সাতটি জেলা হলোঝাঁসি, বান্দা, মাহোবা, হামিরপুর, ললিতপুর, জালাউন ও চিত্রকুট। আর মধ্যপ্রদেশের সাতটি জেলা হলোদাতিয়া, ছত্তরপুর, দামোহ, পান্না, সাগর, টিকামগড় ও বিদিশা। এর বাইরে আন্দোলনকারীরা রাজস্থান ও মধ্যপ্রদেশের আরও ছয়টি জেলাকে তাদের প্রস্তাবিত বুন্দেলখ- রাজ্যে অন্তর্ভুক্ত করতে চাইছে।

এই ছয়টি জেলা হলো ভিন্দ, গোয়ালিয়র, মরিনা, শিপুর, শিবপুরি গত সোমবার উত্তর প্রদেশের বুন্দেলখ-ের অধীন মাহোবা জেলায় আলাহা চৌকির কাছে আম্বেদকর পার্কে ২৫০ জন আন্দোলনকারী মাথা মুড়িয়ে আন্দোলনে শামিল হয়েছেন। অনেক দিন ধরে অনশন আন্দোলনও চালিয়ে যাচ্ছেন তারা। পৃথক রাজ্য না গড়া পর্যন্ত তারা আন্দোলন চালিয়ে যাবেন বলে জানিয়েছেন।

উত্তর প্রদেশ ভেঙে পৃথক আরও চারটি রাজ্য গড়ার দাবি দীর্ঘদিনের। প্রস্তাবিত এই রাজ্য চারটি হলোহরিৎ প্রদেশ, পূর্বাঞ্চল, বুন্দেলখণ্ড ও আওয়াধ। ২০০৭ সালে উত্তর প্রদেশে বহুজন সমাজপার্টির নেত্রী মায়াবতী ক্ষমতায় এলে উত্তর প্রদেশ ভেঙে ওই চারটি পৃথক রাজ্য গঠনের একটি প্রস্তাব পাস হয়েছিল উত্তর প্রদেশ রাজ্য বিধানসভায়। তখন এই প্রস্তাবকে সমর্থন জানিয়েছিল কংগ্রেস ও বিজেপিও। কিন্তু ২০১২ সালে মায়াবতী ক্ষমতাচ্যুত হলে সেই প্রস্তাব চাপা পড়ে যায়। তবে পরবর্তী সময়ে সমাজবাদী পার্টি ক্ষমতায় এলেও তারা আর এই পৃথক রাজ্য গঠনের প্রস্তাব নিয়ে এগোয়নি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ