ঢাকা, শনিবার 18 August 2018, ৩ ভাদ্র ১৪২৫, ৬ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

মহেশখালীতে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে যুবক খুন

কক্সবাজার সংবাদদাতা: কক্সবাজারের মহেশখালীতে দুই সন্ত্রাসী বাহিনীর মধ্যে আধিপত্য বিস্তার করা নিয়ে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এসময় আব্দুল মালেক (৩৭) নামে এক যুবক নিহত হয়েছে। মালেক উপজেলার হোয়ানক ইউনিয়নের পানিরছড়া এলাকার মৃত বশির আহমদের ছেলে। তবে নিহত যুবকের ব্যাপারে কথিত রয়েছে সে উক্ত এলাকার শীর্ষ সন্ত্রাসী হিসেবে পরিচিত ছিলো। পুলিশ জানিয়েছে, তার বিরুদ্ধে অন্তত ৮টি মামলা রয়েছে। সূত্র জানিয়েছে, সোমবার দুপুরে মহেশখালীর পাহাড়ে সংগঠিত ওই সংঘর্ষে পুলিশ ৫টি বন্দুক, ১০ রাউন্ড গুলী, ৫শ’ পিস ইয়াবা ও ২০ কেজি মদ উদ্ধার করা হয়। পুলিশ তার মরদেহ উদ্ধার করে জেলা হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে।
মহেশখালী থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ জানিয়েছেন, সোমবার বেলা ১২টার দিকে মহেশখালী থানা পুলিশ খবর পায় উপজেলার শাপলাপুরের পাহাড়ি এলাকায় দুই সন্ত্রাসী বাহিনীর মধ্যে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে সংঘর্ষ চলছে। খবর পেয়ে দ্রুত ওসির নেতৃত্বে পুলিশের একটি ইউনিট ওই এলাকায় অভিযান চালায়। এ সময় পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে ২৬ রাউন্ড গুলি ছোড়ে। একপর্যায়ে সন্ত্রাসীরা পিছু হটে। পরে পাহাড়ে অভিযান চালিয়ে গুলীবিদ্ধ এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার করে। জানা গেছে, স্থানীয় ফেরদৌস বাহিনী ও কোদাইল্যা বাহিনীর মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনাটি ঘটে।
বাস চাপায়
কক্সবাজার সদরের ইসলামাবাদ খোদাইবাড়ী এলাকায় যাত্রীবাহী বিলাসবহুল শ্যামলী বাসের ধাক্কায় ধলা মিয়া (৩৫) নামের এক রিক্সাচালক মারা গেছে। এসময় আসাদ নেওয়াজ (৯) নামের ঈদগাহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩য় শ্রেণীর এক ছাত্র আহত হয়েছে। নিহত রিক্সাচালক ইসলামপুর ইউনিয়নের ভিলেজার পাড়ার মুসলিম মিয়ার ছেলে। এছাড়াও আহত স্কুল ছাত্র আসাদ খোদাইবাড়ী এলাকার শাহিন কোম্পানির ছেলে। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সোমবার (১৩ আগষ্ট) বেলা ১১ টার দিকে মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, আসাদ ওই রিক্সায় চড়ে চিকিৎসার জন্য ঈদগাঁও বাসস্টেশন হয়ে ঈদগাঁও বাজারের দিকে যাচ্ছিলো। এসময় চট্টগ্রামমুখী শ্যামলী পরিবহনের একটি বিলাসবহুল বাস (ঢাকা মেট্রো ব-১২-০২৪৮) রিক্সাটিকে সজোরে ধাক্কা দিলে ঘটনাস্থলে প্রাণ হারায় রিক্সাচালক ধলা মিয়া।
স্থানীয়রা খবর দিলে তাৎক্ষনিক ডুলহাজারা হাইওয়ে পুলিশ গাড়ীটি জব্দ করে বলে জানায় ফাঁড়ির ইনচার্জ মোঃ আলমগীর।
কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি মো. ফরিদ উদ্দিন খন্দকার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ঘটনার পর চালক ও হেলপার পালিয়ে গেলেও বাসটি জব্দ করা হয়েছে। এ ঘটনায় আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ