ঢাকা, শুক্রবার 21 September 2018, ৬ আশ্বিন ১৪২৫, ১০ মহররম ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

ধর্ষণ মামলায় আ’লীগ কর্মীকে গ্রেপ্তারের পর ছেড়ে দেয়ার অভিযোগ

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক:

জেলার ধুনটে ধর্ষণ মামলায় গ্রেপ্তারের চার ঘণ্টা পর আল হেলাল (৪০) নামে স্থানীয় আওয়ামী লীগের এক কর্মীকে থানা থেকে ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ।খবর ইউএনবির।

তিনি উপজেলার পীরহাটি গ্রামের আবু বক্কার সিদ্দিকির ছেলে ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য।

স্থানীয়রা জানান, শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে ধুনট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খান মো. এরফান মথুরাপুর বাজার থেকে হেলালকে গ্রেপ্তার করেন। কিন্তু পরে রাত ১০টার দিকে তাকে থানা হাজত থেকে ছেড়ে দেয়া হয়।

মামলা সূত্রে জানা যায়, পূর্ব পরিচয়ের সূত্র ধরে ২০১৭ সালের ৪ জুন সকালে শেরপুর উপজেলার দড়িমকুন্দ গ্রামে এক শ্রমিক দম্পতির বাড়িতে যান হেলাল। এসময় শ্রমিক দম্পতির মেয়েকে ঘরে একা পেয়ে ধর্ষণ করেন তিনি। তখন মেয়েটির চিৎকারে প্রতিবেশীরা এগিয়ে এসে হেলালকে আটক করে। এ ঘটনায় শেরপুর থানায় অভিযোগ করা হলেও সেখানকার তৎকালীন ওসি খান মো. এরফান তা আমলে নেননি।

পরে মেয়েটি বাদী হয়ে ৭ জুন বগুড়া নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে মামলা করেন। আদালত সম্প্রতি হেলালের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে।

এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে হেলাল বলেন, ‘বাদীর সাথে মামলা মিমাংসা করে আদালতে আপোষনামা জমা দেয়া হয়েছে। তারপরও দীর্ঘদিন পর কী কারণে আমার নামে আদালত থেকে পরোয়ানা জারি হয়েছে তা বলতে পারছি না। থানার ওসি আপোষের বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে আমাকে ছেড়ে দিয়েছেন।’

তবে ওসি খান মো. এরফান বলেন, ‘আদালতের গ্রেপ্তারি পরোয়ানায় আল হেলালের গ্রামের নাম পীরহাটির পরিবর্তে শ্যামগাতি লেখা রয়েছে। এ কারণে তাকে গ্রেপ্তারের পর থানা হাজত থেকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ