ঢাকা, রোববার 19 August 2018, ৪ ভাদ্র ১৪২৫, ৭ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

নাজিরপুরে হাটে বিক্রি হচ্ছে মাছ ধরার সরঞ্জাম

নাজিরপুরে জমে উঠেছে মাছ ধরা যন্ত্রের হাট। ছবিটি তোলা হয়েছে উপজেলার শ্রীরামকাঠি বন্দর হাট থেকে

আল-আমিন হোসাইন; নাজিরপুর (পিরোজপুর): পিরোজপুরের নাজিরপুর উপজেলায় জমে উঠেছে চাইয়ের বাজার।
বর্ষায় নতুন পানি আসার সঙ্গে সঙ্গে খাল-বিল, নদ-নদীতে দেখা মিলে বিভিন্ন প্রজাতি মাছের আনাগোনা। আর এসব মাছ ধরতে প্রয়োজন হয় চাই বা দুয়াইর। পিরোজপুরের নাজিরপুর উপজেলার শ্রীরামকাঠীতে জমে উঠেছে এসব মাছ ধরার যন্ত্রের হাট।
সপ্তাহের দুদিন এ হাটে হাজার হাজার চাই খুচরা ও পাইকারি দরে বিক্রী হচ্ছে। উপজেলার বিভিন্ন এলাকার বহু পরিবার চাই ও দুয়ারী তৈরির সঙ্গে জড়িত।
বছরের বর্ষা মৌসুমের ছয় মাস তারা এ মাছ ধরার যন্ত্র তৈরির কাজ করে থাকেন। একটি বাশঁ দিয়ে ৪০ থেকে ৫০ টি চাই তৈরি করা হয়। তবে একজন শ্রমিক ৪ থেকে ৫টির বেশি চাই তৈরি করতে পারেন না। উপজেলার শ্রীরামকাঠী বাজার সপ্তাহে রবি ও বুধবার এবং দিঘিরজান শনি ও মঙ্গলবার এ হাটে মাছ ধরার যন্ত্র বিক্রী হয়।
বাজারে এক কুড়ি চাই ৮শত টাকা থেকে ১২ শত টাকা পর্যন্ত বিক্রী হয়। যা খুচরা বাজারে বিক্রী হয় ১টি চাই ৫০ টাকা থেকে ৬০ টাকা দরে। এ সব যন্ত্র তৈরির জন্য একটি বাশঁ তাদের কিনতে হয় ১’শত টাকা থেকে ১’শত ৫০ টাকা পর্যন্ত। এ যন্ত্রে ছোট মাছসহ চিংড়ি মাছ বেশি আটকা পড়ে।
চাই তৈরির কারিগররা জানান, তারা তাদের পরিবারের সবাই মিলে বর্ষা মৌসুমের ছয় মাস চাই তৈরির কাজ করেন। বাশঁ কেনা থেকে শুরু করে সর্ম্পু চাই তৈরিতে যে কষ্ট আর খরচ হয় সে তুলনায় লাভ বেশি হয় না। তবে এ শিল্প এখন বিলুপ্তির পথে। দিন-দিন খাল-বিল ও নদী নালার সংখ্যা কমে যাওয়ায় মাছ শিকারীর সংখ্যাও কমে গেছে যার কারনে চাইয়ের চাহিদাও কমেছে। বর্তমানে সবকিছুর দাম বেশি সে তুলনায় তারা চাইয়ের ভাল দাম পাচ্ছেন না। সরকার এ শিল্প বাচাঁতে স্বল্প সুদে ঋণ দিলে তাদের কার্যক্রম আরো গতিশীল করতে পারতেন। এব্যাপারে উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা তপন বাবুর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, মে মাস থেকে জুলাই মাস পর্য়ন্ত  প্রতিটি মাছের পেটেই ডিম থাকে। এ জন্য মা মাছ না ধরার জন্য জেলেদের বিভিন্ন প্রকার সচেতননামূলক প্রশিক্ষ প্রদান করা হয়েছে। মাছ শিকারে জেলেরা বিভিন্ন প্রকারের যন্ত্র বা জাল ব্যাবহার করেন। এগুলো দমনে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সহযোগীতায় মাঝে মধ্যেই ভ্রম্যমান আদালত পরিচালনা করা হচ্ছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ