ঢাকা, রোববার 23 September 2018, ৮ আশ্বিন ১৪২৫, ১২ মহররম ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

সিএমএম আদালতে ২৫ শিক্ষার্থীর জামিন

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক:

বাংলাদেশে নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনের সময় আটক ২৫ শিক্ষার্থী জামিন পেয়েছেন। আন্দোলনের সময় সংঘাত, ভাঙচুর, উসকানি ও পুলিশের কাজে বাধা দেয়ার অভিযোগে এ পর্যন্ত ৫১টি মামলায় ৯৯ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাদের মধ্যে ৫২ জনই শিক্ষার্থী। আজ (রোববার) ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম (সিএমএম) আদালত ২৫ শিক্ষার্থীর জামিন দিয়েছে।

জামিনের আবেদন করেছেন, এমন শিক্ষার্থীদের বাবা-মা, ভাই-বোনসহ স্বজনরা সকাল থেকে আদালত চত্বরে ভিড় জমান। জামিন পাওয়ার সংবাদে সন্তোষ জানান অভিভাবকরা। নতুন কোনো মামলায় গ্রেপ্তার না দেখালে ঈদুল আজহার আগেই মুক্তি পাবেন তারা।

বাড্ডা থানার মামলায় গ্রেপ্তার ১৪ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে আজ জামিন পেয়েছেন ১০ জন। আর ভাটারা থানার মামলায় গ্রেপ্তার আট শিক্ষার্থীর মধ্যে জামিন পেলেন ছয়জন। এছাড়া ধানমন্ডি থানার আলাদা তিন মামলায় গ্রেপ্তার নয় শিক্ষার্থীকে জামিন দেয় আদালত। আগামীকাল গ্রেপ্তার বাকি শিক্ষার্থীদের কয়েকজনের জামিন শুনানি হতে পারে।

খুশি কবির

আরও আগে জামিন হলে ভালো হতো: খুশি কবির

২৫ শিক্ষার্থী জামিন পাওয়ার সন্তোষ প্রকাশ করেছেন মানবাধিকার কর্মী খুশি কবির। তিনি বলেন, শিক্ষার্থীর কয়েকজন জামিন পেয়েছে, এটা আরও আগে হলে ভালো হতো। আর তাদের গ্রেপ্তারেরই প্রয়োজন ছিল না। কারণ, শিক্ষার্থীরা অনৈতিক কোনো দাবিতে আন্দোলন করেনি। এ আন্দোলনে অনুপ্রবেশ বা স্বার্থ হাসিলের চেষ্টা থাকলে সেটা অন্যভাবে দেখার সুযোগ ছিল।

 

সারাদেশের মানুষের চাপেই আটক শিক্ষার্থীদের জামিন হয়েছে বলে মনে করেন সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের সভাপতি ইমরান হাবিব রুমন। তিনি আরও বলেন, আন্দোলনকারি শিক্ষার্থীদের গ্রেপ্তার করাই ছিল অনৈতিক। তাছাড়া সবাইকে জামিন না দেয়াও নিন্দনীয় বিষয়। যথাযথ প্রক্রিয়ায় মামলা না হওয়া, রিমান্ডে নিয়ে মারধোর বা ভয় দেখানো ঠিক হয়নি। আর যেভাবে দমন পীড়নের মাধ্যমে আন্দোলন দমন করা হয়েছে, তা কখনোই গ্রহণযোগ্য নয়।

 

গত ২৯ জুলাই রাজধানীর ক্যান্টনমেন্ট এলাকায় শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট স্কুল এন্ড কলেজের দুই শিক্ষার্থী বাসচাপায় নিহত হন। এরপর ঘাতক বাসচালকের শাস্তি এবং নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনে নামে শিক্ষার্থীরা। আন্দোলন চলাকালে ভাঙচুরের ঘটনায় গত ৭ আগস্ট আলাদা দুই মামলায় ২২ জনকে আটক করে। পরে তাদের প্রত্যেককে দুই দিনের রিমান্ডে নেয় পুলিশ। এ ঘটনার সমালোচনা করে বিভিন্ন মহল।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ