ঢাকা, সোমবার 20 August 2018, ৫ ভাদ্র ১৪২৫, ৮ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

জাতীয় জীবনে ঈদকে অর্থবহ করতে ফ্যাসিবাদী সরকারের পতনের কোনো বিকল্প নেই

বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের আমীর নূরুল ইসলাম বুলবুল এবং কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের সেক্রেটারি ড. শফিকুল ইসলাম মাসুদ পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে ঢাকা নগরবাসীসহ দেশবাসী ও মুসলিম উম্মাহকে শুভেচ্ছা জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন।
গতকাল রোববার দেয়া বিবৃতিতে নেতৃদ্বয় বলেন, ত্যাগ ও কুরবানির মহান আদর্শ নিয়ে পবিত্র ঈদুল আজহা সমাগত। এই সময়ে মানুষ সকল ভেদাভেদ, হিংসা, বিদ্বেষ ভুলে গিয়ে পরিপূর্ণভাবে আল্লাহর রাহে নিজেকে সমর্পণ করে। ঈদুল আযহা আমাদের শুধু ত্যাগ ও কুরবানির প্রেরণায় দেয় না, সমাজে অনৈক্য ভুলে গিয়ে পরস্পরের ভ্রাতৃত্ব, সম্প্রীতি ও সৌহাদ্রের বন্ধনকে আরো মজবুত করে। পবিত্র কুরআনে আল্লাহ রাব্বুল আলামীন ঘোষণা করেছেন- “বলুন, আমার নামাজ, আমার কুরবানি এবং আমার জীবন ও মরণ বিশ্ব-প্রতিপালক আল্লাহরই জন্যে”। (সুরা আনআম-১৬২), আমাদের মুসলিম জাতির পিতা হজরত ইবরাহীম (আ.) আল্লাহর রাহে ত্যাগ ও কুরবানির মহাপরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছিলেন। ফলে তার স্মৃতিকে চিরস্মরণীয় করে জীবনের সকল ক্ষেত্রে ঈমানী পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হবার জন্যেই আল্লাহ তা’য়ালা তার বান্দাহর উপর কেয়ামত পর্যন্ত কুরবানিকে ওয়াজিব করে দিয়েছেন। যাতে প্রতিটি মুসলমান তার নফসের উপর বিজয়ী হয়ে নিজের প্রিয় বস্তু, ধন-সম্পদ, চিন্তা-চেতনা আল্লাহর রাহে কুরবানি করে দুনিয়া ও আখিরাতে সফলতা অর্জন করতে পারে।
নেতৃদ্বয় ঈদের এই পূর্ব মুহুর্তে অত্যন্ত ভারাক্রান্ত হৃদয়ে বলেন, বাংলাদেশে আজ মানুষের বাক স্বাধীনতাকে খর্ব করা হয়েছে। জনগণের অধিকার কেড়ে নিয়ে বর্তমান সরকার দেশে একদলীয় শাসন ব্যবস্থা কায়েম করেছে। রাষ্ট্রীয় ও গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানসমুহ ধ্বংস করে তারা ফ্যাসীবাদী কায়দায় দেশ পরিচালনা করছে। বিরোধী রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও মেধাবী ছাত্রদেরকে কারাগারে বন্দী করে দেশকে বি-রাজনীতিকরণ ও মেধাশুন্য করার পায়তারা চলছে, স্কুল-কলেজ পড়ুয়া কোমলমতি শিক্ষার্থীদেরকে রাষ্ট্রের অনিয়মের বিরুদ্ধে বাধ্য হয়ে স্কুল ছেড়ে রাজপথে নামতে হয়েছে। আইন শৃংখলা বাহিনীর বিচার বহির্ভুত হত্যাকাণ্ড, ক্ষমতাসীনদের অব্যাহত সন্ত্রাস ও নৈরাজ্যে দেশের মানুষ আজ চরম নিরাপত্তাহীন অবস্থায় রয়েছে। এমতাবস্থায় জাতীয় জীবনে ঈদকে অর্থবহ করতে হলে ফ্যাসিবাদী সরকারের পতনের কোনো বিকল্প নেই। তাই নেতৃবৃন্দ নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন, জনগনের অধিকার প্রতিষ্ঠা ও ফ্যাসিবাদমুক্ত দেশ গড়ার প্রত্যয়ে নগরবাসীকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান।
নেতৃদ্বয় আরো বলেন, ঈদুল আযহা আমাদেরকে ত্যাগ ও কুরবানির আদর্শে উজ্জীবিত করার পাশাপাশি অর্থনৈতিক শোষণ ও বৈষম্য দূর করে একটি তাকওয়া ভিত্তিক সমাজ গঠনের অনুপ্রেরণা দেয়। আমরা যদি বাস্তব জীবনে ইসলামী আদর্শ অনূস্মরণ করে সমাজে ন্যায় ও ইনসাফ কায়েম করতে পারি তাহলেই আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন করা সম্ভব হবে। নেতৃবৃন্দ হযরত ইবরাহীম (আঃ) এর আদর্শে উজ্জীবিত হয়ে শোষণমুক্ত সমাজ গঠনে নগরবাসীকে ঐক্যবদ্ধ ভাবে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। সেইসাথে ঢাকা মহানগরীসহ দেশবাসী ও মুসলিম উম্মাহর প্রতি পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা জানান এবং যথাযথ মর্যাদা ও সুন্দর পরিবেশে ঈদুল আজহা উৎযাপন করার তৌফিক কামনা করে আল্লাহর কাছে দো’আ করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ