ঢাকা, সোমবার 20 August 2018, ৫ ভাদ্র ১৪২৫, ৮ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

‘হত্যা নয় আজ সত্য-গ্রহের শক্তির উদ্বোধন’

ড. এম এ সবুর : মুসলিম সমাজের অন্যতম প্রধান ধর্মীয় উৎসব কোরবানির ঈদ। এ উৎসবের প্রধান অনুষঙ্গ পশু জবেহ বা কোরবানি। ইসলামি বিধান মতে, মহান আল্লাহর সন্তুষ্টির লক্ষ্যে সামর্থবান প্রত্যেক মুসলিমকে পশু জবেহর মাধ্যমে কোরবানি করতে হয়। তবে পশু জবেহ কোরবানির মূল লক্ষ্য নয়। এটি বাহ্যিক বিষয়, এর অভ্যন্তরীণ গভীর তাৎপর্যময়। কোরবানির মাধ্যমে মহান আল্লাহর নির্দেশ পালনে সর্বোচ্চ ত্যাগের পরাকাষ্টা দেখানো হয়। এ জন্য মানবমনের হিংসা-বিদ্বেষ, লোভ-লালসা, অহংবোধ ইত্যাদি পাশবিক শক্তির বিনাশ করতে হয়। অন্য দিকে ধৈর্য-ত্যাগ, সততা-নিষ্ঠা ইত্যাদি মানবিক গুণাবলীর বিকাশ করতে হয়। এভাবে যথাযথ কোরবানির মাধ্যমে মহান আল্লাহ তায়ালার সন্তুষ্টি-সান্নিধ্য লাভ করা যায়। এতে মানবজীবন সার্থক ও সুন্দর হয়।
কোরবানির ঐতিহ্য অনেক পুরনো। প্রথম মানব হযরত আদম আলাইহিস্ সালামের পুত্র হাবিল ও কাবিল থেকেই কোরবানি শুরু হয়। তাদের উভয়ের কোরবানির মধ্যে আল্লাহর নিকট হাবিলের কোরবানি কবুল হয়। এছাড়া অন্যান্য নবি-রাসুলদের যুগেও কোরবানির ইতিহাস পাওয়া যায়। তবে সব নবি-রাসুলের কোরবানির পদ্ধতি এক নয়। আধুনিক ইসলাম তথা উম্মাতে মুহাম্মাদির কোরবানিতে মুসলিম জাতির পিতা হযরত ইবরাহিম আলাইস্ িসালামের পদ্ধতির অনুসরণ করা হয়। আল-কুরআনের সূরা সফ্ফাতে বর্ণিত হযরত ইবরাহিম আলাইহিস্ সালামের পশু কোরবানির ঘটনা অবলম্বনে এক লোমহর্ষক কাহিনী জানা যায়। এতে উল্লেখ করা হয়, আল্লাহ রাব্বুল আ’লামিনের পক্ষ থেকে স্বপ্নের মাধ্যমে হযরত ইবরাহিম আলাইহিস্ সালামকে তাঁর প্রিয় বস্তু কুরবানির নির্দেশ দেয়া হয়। স্বপ্নে আদিষ্ট হয়ে হযরত ইবরাহিম আলাইহিস্ সালাম ঘুম থেকে জেগে মেষপালের একটি মেষ কোরবানি করেন। পরের রাতে তিনি আবারও একই স্বপ্ন দেখেন। পরদিন তিনি তাঁর পালের সবচেয়ে বড় ও মোটা-তাজা মেষ কোরবানি করেন। এতেও কোন ফল হলো না। স্বপ্নে তিনি আবারও প্রিয়বস্তু কুরাবানির জন্য আদিষ্ট হলেন। এতে তিনি তাঁর সবচেয়ে প্রিয় বস্তু প্রাণাধিক প্রিয় পুত্র হযরত ইসমাইলকে কোরবানির ই্িঙ্গত পেলেন। তাই তিনি সকালে ঘুম থেকে জেগে সুযোগ বুঝে পুত্র ইসমাইলকে ডেকে স্বপ্নের কথা জানালেন। এতে ইসমাইল অত্যন্ত সাহসের সাথে দৃঢ়ভাবে পিতার প্রস্তাবে সায় দিলেন। বললেন, ‘এতো সৌভাগ্য আমার! আল্লাহর জন্য কোরবানি হওয়ার সুযোগ কয় জনের হয়! সুতরাং আপনি আল্লাহর আদেশ পালন করুন নির্দ্ধিধায়।’ কিভাবে নিজ হাতে পুত্রকে কোরবানি করবেন এ নিয়ে হযরত ইবরাহিম আ. চিন্তাগ্রস্ত। পিতার এ অবস্থা দেখে পুত্র ইসমাইলও ব্যথিত। তাই পিতার মনে দয়ার উদ্রেক হওয়ার আশংকায় ইসমাইল পিতা ইবরাহিম আ. এর চোখ বেঁেধ দেন আর নিজেকে সঁপিয়ে দেন পিতার ধাড়ালো ছুরির তলায়। হযরত ইবরাহিম আ. পুত্রের গলায় সজোরে ছুরি চালায়। ধাড়ালো ছুরি অথচ তা দিয়ে পুত্র ইসমাইলকে জবেহ করা যায় না! অস্থির হন হযরত ইবরাহিম। প্রভূ প্রেমের কমতি আশংকায় আবারও তিনি অধিক শক্তি ব্যয়ে ছুরি চালান পুত্রের গলায়। এবারও আগের মতই অবস্থা, ইসমাইলের কোন পশম কাটে না। এমতাস্থায় আকাশ থেকে বাণী ভেসে এলো, ‘থামো! ইব্রাহিম থামো! ত্যাগের পরীক্ষায় তুমি উত্তীর্ণ।’ তখন হযরত ইবরাহিম আ. চোখ খুলে পাশেই একটি দুম্বা দেখতে পেলেন। পরে আল্লাহর নির্দেশে তিনি সে দুম্বাই কোরবানি করেন। সেই থেকে পশু কোরবানি শুরু হয়। আর মহানবি হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ও তাঁর উম্মাত বা অনুসারীদের জন্যও হযরত ইবরাহিম আলাইহিস্ সালামের পদ্ধতিতে পশু কোরবানি অপরিহার্য করা হয়।
ইসলামি বিধানে এবং মুসলিম সমাজে কোরবানি বা পশুজবেহ অন্যতম অপরিহার্য ইবাদত হিসেবে গণ্য হয়। এ জন্য জিলহাজ মাসের নির্ধারিত সময়ে বা ঈদ উৎসবে কোরবানি করা হয়। একমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টির লক্ষ্যে কোরবানির উদ্দেশ্য হলেও কারো কারো কোরবানিতে ভিন্নতা লক্ষ্য করা যায়। কে কত বড়-দামী পশু কোরবানি করে এ নিয়েও কিছু লোকের মধ্যে প্রতিযোগীতা হয়। কারো কারো কোরবানির মধ্যে সম্পদ-অহমিকা প্রকাশ করার প্রবনতাও লক্ষ্য করা যায়! এছাড়া সামাজিক ও রাজনৈতিক প্রভাব বাড়ানোর লক্ষ্যেও অনেককে কোরবানি করতে দেখা যায়। এসব লোক দেখানো কিংবা প্রভাব বাড়ানোর কোরবানি পশুহত্যায় পর্যবশিত হয়। অধিকন্তু দরিদ্র-দুস্ত লোকদেরকে কোরবানির মাংস দান না করে শুধু নিজেরা ভোগ করার পরিণতিও একই হয়। অথচ পার্থিব স্বার্থ ত্যাগ করে শুধু মহান আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের লক্ষ্যেই কোরবানি করতে হয়। কোরবানির পশুর আকার বড়-ছোট কিংবা রং-মূল্য বিবেচ্য বিষয় নয়। তবু বিত্তশালীদের বড় পশু কোরবানি করাই শ্রেয়। সর্বোপরি কোরবানির জন্য উপার্জন অবশ্যই বৈধ হতে হয়। এ ক্ষেত্রে কোরবানিদাতার সামগ্রিক উপার্জনই বিবেচনায় আনতে হয়। শুধু কোরবানির পশু ক্রয়ের অর্থ বৈধ হওয়াই যথার্থ নয়, বরং সামগ্রিক উপার্জনই বৈধ হতে হয়। অন্যায়-অবৈধ উপার্জনের অর্থে যত বড়-দামী পশুই জবেহ করা হোক তা আল্লাহর দরবারে কবুল হয় না। অনুরূপভাবে বিশুদ্ধ নিয়ত ছাড়া কোরবানিও আল্লাহ তায়ালার নিকট গৃহীত হয় না। এ বিষয়ে মহান আল্লাহর ঘোষণা, ‘কোরবানির পশুর রক্ত-মাংস কিছুই আল্লাহর নিকট পৌঁছে না, বরং তার কাছে পৌঁছে শুধু তোমাদের ত্যাগ বা তাকওয়া’(সূরা হজ্জ:৩৭)। তাই মহান আল্লাহর নিকট গ্রহণযোগ্য কোরবানির জন্য বিশুদ্ধ নিয়তের প্রয়োজন হয় এবং ত্যাগের প্রবল সাধনা থাকতে হয়। অধিকন্তু কোরবানির পশুর মাংস গরিব-অসহায় লোকদের দান করা শ্রেয়। এতে একদিকে আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন করা যায়।
অন্যদিকে সামাজিক বন্ধন সুসংহত হয়। আপাত দৃষ্টিতে কোরবানি বলতে পশুজবেহ হলেও এর মাধ্যমে অন্যায়-অসত্যের বিরুদ্ধে এবং সত্য-ন্যায় প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে সংগ্রাম-সাধনার শক্তি সঞ্চারিত হয়; কবির (কাজী নজরুল ইসলাম) ভাষায়, ‘ওরে হত্যা নয় আজ ‘সত্য-গ্রহের’ শক্তির উদ্বোধন।’ প্রকৃতপক্ষে কোরবানির ত্যাগের মাধ্যমে মানবিক-নৈতিক শক্তি ও সাহস অর্জিত হয়, যা দিয়ে অন্যায়-অপশক্তিকে পরাজিত করা যায়। একইভাবে ধৈর্য-ত্যাগের শিক্ষাও গ্রহণ করা যায়।
কোরবানি ত্যাগের সাধনা হলেও আমাদের সমাজে অনেকটা ফ্যাশনে পরিণত হয়েছে! এতে কোরবানির মূল লক্ষ্য অর্জনের চেয়ে লৌকিকতাই প্রাধান্য পেয়েছে। ফলে আত্মশুদ্ধির চেয়ে আত্মম্বরিতা বাড়ছে। আর বহুজাতিক কোম্পানিগুলো ও কুচক্রি মহল তাদের ব্যবসায়িক স্বার্থে কোরবানিকে ত্যাগের পরিবর্তে ভোগের উৎসবে পরিণত করছে ্এবং মুসলিমসমাজকে কোরবানির লক্ষ্যচ্যুত করার অপচেষ্টা করছে। এছাড়া ভিনজাতীয় সংস্কৃতি-অশ্লীলতা-বেহায়াপনা কোরবানি ঈদের পবিত্র উৎসবকে কলুষিত করছে। মুসলিমদেরকে এ সব বিষয়ে সচেতন ও সতর্ক হয়ে কোরবানির মূল লক্ষ্য অর্জনে সচেষ্ট থাকতে হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ