ঢাকা, সোমবার 20 August 2018, ৫ ভাদ্র ১৪২৫, ৮ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

ইলিশের ভরা মওসুম চললেও খুলনার বাজারে দাম কমেনি

খুলনা অফিস: ইলিশের ভরা মওসুম চললেও খুলনার বাজারে দাম কমেনি। দাম নিয়ে অস্বস্তিতে রয়েছেন স্থানীয় ক্রেতারা। ব্যবসায়ীদের দাবি বিগত কয়েক বছরের মধ্যে এ বছর ইলিশের ঝাঁক জেলেদের জালে ধরা পড়েনি। ফলে ইলিশের দাম এখনও চড়া।
বাজার ঘুরে দেখা গেছে, এক কেজির বেশি ওজনের ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ১৪শ’ থেকে ১৩শ’ টাকায়। এক কেজি সাইজের ইলিশের পাইকারি দাম ১১শ’-১২শ’ টাকা, এক কেজির নিচের ইলিশের দাম ৭শ’-৮শ’ টাকা, আর খুচরা ৮শ’-৯শ’ টাকা। অন্যদিকে ৫শ’ গ্রাম সাইজের নিচের ইলিশের দাম ৫শ’ থেকে ৬শ’ টাকা।
খুলনার সবচেয়ে বড় ইলিশের পাইকারি বাজার কেসিসি রূপসা পাইকারি মৎস্য আড়তে গিয়ে ইলিশের দাম নিয়ে ক্রেতাদের অস্বস্তি প্রকাশ করতে দেখা গেছে। ট্রাক ও ট্রলার থেকে নামানো টাটকা ইলিশ পাওয়া যায় বিভাগের সবচেয়ে বড় এ আড়তে। একটু দামাদামি করে পাইকারদের পাশাপাশি খুচরা বিক্রেতারাও কিনে নেন ইলিশ। টাটকা ইলিশের স্বাদ নিতে মাছ কিনতে এসে অনেক ভোজন বিলাসীকে দামের কারণে ফিরে যেতে হচ্ছে। ইসমাইল হোসেন নামের এক ক্রেতা বলেন, ইলিশ কিনতে এসে দাম শুনে ফিরে যেতে হচ্ছে। এত চড়া দামে ইলিশ কেনা সম্ভব নয়।
আব্দুর রহিম নামের এক ক্রেতা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ইলিশের এখন ভরা মওসুম। এরপরও দাম কমেনি।
জেলেরা জানিয়েছেন, আষাঢ়, শ্রাবণ, ভাদ্র ও আশ্বিন এই চার মাস ইলিশ ধরার উপযুক্ত মওসুম হিসেবে বিবেচনা করা হয়। এখন শ্রাবণ মাস শেষ হতে চললেও ইলিশ মিলছে খুবই কম।
আড়তদাররা জানান, উপকূলীয় এলাকায় এখন আর আগের মতো মাছ পাওয়া যাচ্ছে না। ভরা মওসুম চললেও জেলেদের জালে ইলিশ তেমন ধরা পড়ছে না। তাদের দাবি, চাহিদার তুলনায় চলতি মওসুমে ইলিশের সরবরাহ কম থাকায় মাছ কিনতে গুণতে হচ্ছে বাড়তি দাম, যার নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে খুচরা বাজারে। বাজারের মুজাহিদ ফিসের আড়ৎদার আবু মুসা বলেন, ইলিশের মওসুম চললেও সরবরাহ কম। যে কারণে দাম বেশি।
আকাশ ফিসের ইলিশ ব্যবসায়ী আনোয়ার হোসেন বলেন, এ বাজারে বরগুনা, ভোলা, চাঁদপুর, চরদোয়ানি ও পাথরঘাটা থেকে ইলিশ আসে।
কেসিসি রূপসা সাদামাছ আড়ৎদার বহুমুখী সমবায় সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. জাহিদুর রহমান ঝন্টু বলেন, এতদিন তো ইলিশের দেখাই মিলছিল না। চলতি সপ্তাহ থেকে ইলিশ কিছুটা ধরা পড়ছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ