ঢাকা, মঙ্গলবার 21 August 2018, ৬ ভাদ্র ১৪২৫, ৯ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

নির্দিষ্ট স্থানে পশু জবাইয়ে খুলনার ১৬৩টি স্থান চূড়ান্ত

খুলনা অফিস : খুলনা সিটি কর্পোরেশনের (কেসিসি) উদ্যোগে ঈদ-উল আযহা উপলক্ষে নির্দিষ্ট স্থানে পশু জবাইয়ের জন্য কেসিসির ৩১টি ওয়ার্ডের নির্বাচিত ১৬৩টি স্থানের তালিকা চূড়ান্ত করা হয়েছে। গত বছর ছিল ১৭২টি স্পটে। গত বছরের চেয়ে এবার নির্ধারিত স্থানে পশু জবাইয়ের স্পট ৯টি কমলেও খরচ বেড়েছে।
নির্ধারিত স্পটে পশু জবাই দেয়া হলে কুরবানিদাতাদের আটটি সুবিধা দেয়া হবে। সুবিধাগুলো হচ্ছে- পশু কুরবানির জন্য পর্যাপ্ত জায়গার ব্যবস্থা, পানির সুব্যবস্থা, জবাইকারীর সুব্যবস্থা, রোদ-বৃষ্টি থেকে সুরক্ষা পেতে ছামিয়ানার ব্যবস্থা, বসার জন্য চেয়ারের ব্যবস্থা, গোশত পরিবহণের জন্য ভ্যানের ব্যবস্থা, নাড়ি-ভুঁড়ি পরিষ্কারের জন্য শ্রমিকের ব্যবস্থা ও ময়লা-আবর্জনা পরিষ্কারের জন্য সার্বক্ষণিক শ্রমিক ও গাড়ির ব্যবস্থা। এ সব কার্যক্রম সফল করতে ওয়ার্ড প্রতি দু’ কাউন্সিলরকে ৯০ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। গত বছর ওয়ার্ড প্রতি এ খাতে ব্যয় ধরা হয়েছিল প্রায় ৮০ হাজার টাকা।
কেসিসির ভেটেরিনারি সার্জন বলেন, ঈদ-উল আযহার দিনে নগরীতে প্রায় ১২ হাজার পশু কুরবানি করা হয়। যত্রতত্র পশু জবাইয়ের ফলে দ্রুত সময়ের মধ্যে ময়লা-আবর্জনা অপসারণের জন্য কেসিসিকে বেগ পেতে হয়। এতে পরিবেশ দূষণের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। পরিবেশ দূষণ রোধে নির্দিষ্ট স্থানে পশু কুরবানির জন্য সরকারের পক্ষ থেকে নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে। সরকারের নির্দেশনার আলোকে কেসিসি কর্তৃক পশু কোরবানির সুবিধা নিশ্চিত করে ওয়ার্ডভিত্তিক স্থান নির্ধারণ করা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ