ঢাকা, সোমবার 19 November 2018, ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

অনাবিল আনন্দ আর ত্যাগের মহিমায় উদযাপিত হচ্ছে ঈদুল-আজহা

অনলাইন ডেস্ক:

অনাবিল আনন্দ আর ত্যাগের মহিমায় উদ্ভাসিত হয়ে মুসলমানদের দ্বিতীয় বৃহত্তম ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল-ফিতর উদযাপন করছেন দেশবাসী।

ইসলাম ধর্মের বিশ্বাস অনুযায়ী, মহান আল্লাহ নবী হযরত ইব্রাহীমের ঈমানের পরীক্ষা নেয়ার জন্য তার একমাত্র ছেলে হযরত ইসমাইলকে কোরবানি করার নির্দেশ দিয়েছিলেন। নবী ইব্রাহীমের সেই পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার স্মরণে এ দিন সচ্ছল মুসলিমরা পশু কোরবানি করে থাকেন।

বুধবার সকালে রাজধানী ঢাকা, কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়া ও দিনাজপুরসহ সারা দেশে ঈদের জামাত আদায় করেছেন ধর্মপ্রাণ মুসলিমরা।

স্রষ্টার ক্ষমা ও অনুগ্রহ এবং দেশের শান্তি-সমৃদ্ধি কামনা করেছেন তারা।

ঈদের প্রধান জামাত সকাল ৮টায় হাইকোর্ট প্রাঙ্গণে জাতীয় ঈদগাহ ময়দানে অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ সর্বস্তরের মানুষের সাথে ঈদের নামাজ আদায় করেছেন।

এছাড়া জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে পাঁচটি ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হচ্ছে বলে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে। জামাতগুলো সকাল ৭টায়, ৮টায়, ৯টায়, ১০টায় এবং ১০টা ৪৫ মিনিটে অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

জাতীয় ঈদগাহ ময়দানে নারীদের নামাজ আদায়ের জন্য আলাদা ব্যবস্থা রয়েছে।

রাজধানী ঢাকায় ৪০৯টি জায়গায় ঈদের জামাত হয়েছে। এর মধ্যে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের অধীনে মোট ২৩০টি এবং ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের অধীনে ১৭৯টি জায়গায় জামাত হবে।

আয়োজকদের তথ্য অনুযায়ী, জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে ঈদুল-আজহার নামাজের জন্য পর্যাপ্ত পানির সরবরাহ ও নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হয়েছে।

ঈদের নামাজ আদায় শেষে প্রতিপালকের সন্তুষ্টি লাভের আশায় ধর্মপ্রাণ মুসলিমরা প্রিয় পশু কোরবানি করছেন।

এদিকে, দেশব্যাপী শান্তিপূর্ণভাবে ঈদুল-আজহা পালনের জন্য নিরাপত্তা বাহিনীগুলো পর্যাপ্ত প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে। সেই সাথে তাদের সড়ক, নদী ও রেলপথে যান চলাচল নির্বিঘ্ন রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

শহরের প্রধান সড়ক ও সড়ক দ্বীপগুলো জাতীয় পতাকা এবং বাংলা ও আরবিতে ‘ঈদ মোবারক’ লেখা ব্যানারে সজ্জিত করা হয়েছে।

ঈদ উপলক্ষে কারাগার, হাসপাতাল, সরকারি শিশু কেন্দ্র, ছোটমনি নিবাস ও আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে বিশেষ খাবার পরিবেশন করা হবে।

বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বাংলাদেশ বেতারসহ বেসরকারি টিভি চ্যানেল ও রেডিও স্টেশনগুলো বিশেষ অনুষ্ঠানমালা প্রচার করছে।

পবিত্র ঈদুল-আজহা উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণীকে দেশবাসীসহ মুসলিম উম্মাহকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

রাষ্ট্রপতি তার বাণীতে বলেন, ‘মহান আল্লাহর নির্দেশে নিজের ছেলে হযরত ইসমাইলকে কুরবানি করতে উদ্যত হয়ে হযরত ইব্রাহীম আল্লাহর প্রতি অগাধ ভালোবাসা, অবিচল আনুগত্য ও অসীম আত্মত্যাগের যে সুমহান দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন তা ইতিহাসে অতুলনীয়।’

বাংলাদেশ বিশ্ব দরবারে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির অনন্য দৃষ্টান্ত উল্লেখ করে আবদুল হামিদ বলেন, ‘আবহমানকাল থেকে বাংলাদেশে সব ধর্মের মানুষ স্বাধীনভাবে নিজ নিজ ধর্ম ও আচার-অনুষ্ঠান জাঁকজমকের সাথে পালন করে আসছে। এটা আমাদের সম্প্রীতির এক অনুপম ঐতিহ্য। এই ঐতিহ্যকে সমুন্নত রেখে দেশ ও জাতির কল্যাণে তা কাজে লাগাতে হবে।’

প্রধানমন্ত্রী তার বাণীতে বলেন, প্রতিবছর এ উৎসব পালনের মধ্য দিয়ে স্বচ্ছল মুসলমানরা কোরবানিকৃত পশুর মাংস আত্মীয়স্বজন ও গরিব-দুঃখীর মধ্যে বিলিয়ে দিয়ে মানুষে-মানুষে সহমর্মিতা ও সাম্যের বন্ধন প্রতিষ্ঠা করে।

‘ঈদ শান্তি, সহমর্মিতা, ত্যাগ ও ভ্রাতৃত্ববোধের শিক্ষা দেয়। আসুন, আমরা সবাই পবিত্র ঈদুল-আজহার মর্মবাণী অন্তরে ধারণ করে নিজ নিজ অবস্থান থেকে জনকল্যাণমুখী কাজে অংশ নিয়ে বৈষম্যহীন সুখী, সমৃদ্ধ ও শান্তিপূর্ণ বাংলাদেশ গড়ে তুলি,’ যোগ করেন তিনি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ