ঢাকা, শনিবার 25 August 2018, ১০ ভাদ্র ১৪২৫, ১৩ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

মক্কায় চরম দুর্ভোগে বাংলাদেশী হাজীরা ॥ রাস্তায় রাত যাপন

সংগ্রাম ডেস্ক : হজ্ব শেষ। এখন বিভিন্ন দেশের হাজীরা দেশে ফিরতে শুরু করেছেন। কিন্তু মক্কায় চরম দুর্ভোগে ও ভোগান্তিতে পড়েছেন বাংলাদেশী হাজীরা। হজ্ব এজেন্সির অব্যবস্থাপনায় মক্কার রাস্তায় রাস্তায় খোলা আকাশের নিচে রাত যাপন করছেন অনেক হাজী। এ কারণে ৫০টি বেসরকারি হজ্ব এজেন্সিকে অভিযুক্ত করেছে মক্কায় বাংলাদেশী হজ্ব মিশন ও সৌদি হজ্ব কর্তৃপক্ষ। শীর্ষনিউজ।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, গত বৃহস্পতিবার মিনায় হজ্বের সব আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে অন্যান্য দেশের হাজীদের মতো বাংলাদেশের হাজীরাও ফিরে এসেছেন পবিত্র মক্কা নগরীতে। সরকারি ব্যবস্থাপনায় হাজীরা উঠে গেছেন যার যার নির্ধারিত বাড়িতে। কিন্তু বেসরকারি অনেক হাজী তাদের এজেন্সির কাউকে খুঁজে না পেয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন মক্কার রাস্তায় রাস্তায়। বাংলাদেশ হজ্ব মিশনের বারান্দায় গভীর রাত পর্যন্ত অনেক হাজীকেই জায়গা খুঁজতে দেখা গেছে।

অসহায় এসব হাজীর পাশে দাঁড়াতে বাংলাদেশী হজ্ব মিশন বা হাবের কাউকে এখন পর্যন্ত উদ্যোগ নিতে দেখা যায়নি। যদিও হজ্ব পালন করতে আসা বাংলাদেশের ধর্মমন্ত্রী হাজীদের হয়রানি রোধে সব ধরনের ব্যবস্থার কথা বলেছেন। বাস্তবে এর কোনো প্রতিফলন দেখা যায়নি।

এদিকে, বাংলাদেশী হাজীর ফিরতি ফ্লাইট শুরু হওয়ার কথা রয়েছে ২৭ আগস্ট থেকে। ফিরতি ফ্লাইট শেষ হবে ২৬ সেপ্টেম্বর।

আরো ২ বাংলাদেশী হজ্বযাত্রীর মৃত্যু

পবিত্র হজ্ব পালন করতে গিয়ে চলতি বছর সৌদি আরবে আরো দুইজন বাংলাদেশী হজ্বযাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে ২৩ আগস্ট পর্যন্ত বাংলাদেশী  হাজীদের মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ৭১। এদের মধ্যে ৫৯ জন পুরুষ ও ১২ জন নারী। মৃত ৭১ জনের মধ্যে মক্কায় ৪৮ জন, মদিনায় ছয়জন, জেদ্দায় দুইজন, মিনায় নয়জন ও আরাফাতে ছয়জন মারা যান। ধর্ম মন্ত্রণালয় কর্তৃক মক্কা থেকে প্রকাশিত হজ্ব বুলেটিনে এই তথ্য উল্লেখ করা হয়েছে।

সর্বশেষ গত বৃহস্পতিবার মক্কায় মো তছলিম উদ্দিন  (৫৩) নামে এক হাজি ইন্তিকাল করেছেন। তার বাড়ি গাজীপুর জেলায়। পাসপোর্ট নম্বর বিবি ০০৮৫০৪০। এ বছর বাংলাদেশ থেকে ১ লাখ ২৭ হাজার ৭৯৮ জন হজ্বযাত্রী সৌদি আরবে যান। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় ৭ হাজার ১৯৮ জন এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ১ লাখ ২০ হাজার হজ্ব করতে গেছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ