ঢাকা, শনিবার 25 August 2018, ১০ ভাদ্র ১৪২৫, ১৩ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

ঘিওরে জমে উঠেছে নৌকার হাট

 ঘিওর (মানিকগঞ্জ) সংবাদদাতা: বর্ষায় গ্রাম অঞ্চলের প্রধান যান নৌকা। 

তাই মৌসুম শুরুতেই বেড়েছে নৌকার কদর। যে কারণে মানিকগঞ্জের ঘিওরের ঐতিহ্যবাহী নৌকার হাট জমে ওঠেছে। সপ্তাহের প্রতি বুধবার এই হাটে শত শত নৌকার সমাহার ঘটে। ক্রেতা-বিক্রেতায় মুখরিত হাটে এবার বেচা-বিক্রিও বেশ ভালো। 

কাঠের তৈরি এই নৌকাকে স্থানীয় ভাষায় বলা হয় ডুঙ্গা বা ডিঙ্গি। মানিকগঞ্জ ছাড়াও আশপাশের জেলা থেকে ক্রেতা-বিক্রেতা আসে শত বছরের পুরনো এই হাটে।

বুধবার সরেজমিন দেখা যায়, ঘিওর উপজেলা সদরের কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠ ও সরকারি কলেজ মাঠের বিশাল এলাকা জুড়ে বসেছে নৌকার হাট। 

সারি সারি করে রাখা হয়েছে নৌকাগুলো। আর ক্রেতা-বিক্রেতার পদচারণায় মুখরিত হাটটি।

মানিকগঞ্জের ঘিওর, দৌলতপুর, শিবালয় ও হরিরামপুর উপজেলা পদ্মা-যমুনা, ধলেশ্বরী, ইছামতি ও কালীগঙ্গা নদীবেষ্টিত। রয়েছে অসংখ্য খাল-বিল ও ডোবা-নালা। 

বর্ষায় এর বেশির ভাগই পানিতে ডুবে থাকে। এ ছাড়া নিচু এলাকাগুলো আগেই প্লাবিত হয়। আর তখনই চলাচলের প্রধান বাহন হয়ে ওঠে নৌকা। 

দৈনন্দিন কাজের সুবিধার্থে নদী ও খালের তীরবর্তী প্রতিটি পরিবারেই নিজস্ব নৌকা থাকে। যুগ যুগ ধরে নৌকা এসব অঞ্চলের ঐতিহ্য বহন করে আসছে।

নৌকা ব্যবসায়ীরা জানায়, ঘিওর হাটে বেশির ভাগ নৌকা আসে সাভার, টাঙ্গাইলের নাগরপুর ও মানিকগঞ্জের ঝিটকা এলাকা থেকে। 

মেহগনি, কড়েই, আম চাম্বল, রেইন্ট্রি গাছে কাঠ দিয়ে নৌকাগুলো তৈরি করা হয়। আকার ও মানভেদে প্রতিটি নৌকা বিক্রি হয় ২ থেকে ৭ হাজার টাকায়। 

টাঙ্গাইলের নাগরপুর, সিরাজগঞ্জের চৌহালী এবং রাজবাড়ি, ধামরাইসহ বিভিন্ন এলাকার ক্রেতারা আসেন এই হাটে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ