ঢাকা, রোববার 26 August 2018, ১১ ভাদ্র ১৪২৫, ১৪ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

নন্দীগ্রামে আউশ ধানের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা

 

নন্দীগ্রাম (বগুড়া) সংবাদদাতা : বগুড়ার নন্দীগ্রামে আউশ ধানের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা দেখা মিলেছে। নন্দীগ্রাম উপজেলার মাটিতে ব্যাপক উর্বরশক্তি রয়েছে। তাই বছরে ৩ বার ধানের চাষাবাদ করা যায়। পাশাপাশি রবিশস্য’রও চাষাবাদ করা হয়। এবারো তাই হয়েছে। আউশ মৌসুমে উপজেলায় ৮ হাজার ২৫৭ হেক্টর জমিতে আউশ ধানের চাষাবাদ করা হয়। ৮ হাজার ২৫৭ হেক্টর জমিতে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৩১ হাজার ৫৮৩ মেট্রিকটন ধান। উপজেলার বিভিন্ন মাঠে আউশ ধান পাকা শুরু হয়েছে। কিছু দিনের মধ্যেই আউশ ধান কাটা-মাড়াইয়ের কাজ শুরু হবে। আউশ ধান কাটা-মাড়াইয়ের পর জমিতে আবার রোপা আমন ও রবিশস্য’র চাষাবাদ শুরু করা হবে। উপজেলার ৩নং ভাটরা ইউনিয়নের বামনগ্রাম মাঠে আউশ ধানের ব্যাপক চাষাবাদ হয়েছে। বামনগ্রামের কৃষক অরুন কুমার ২০ বিঘা জমিতে আউশ ধানের চাষাবাদ করে। তার জমিতে আউশ ধানের ফলনও ভালো হয়েছে। তাই তিনি বাম্পার ফলনের আশাবাদী। উপজেলার বিভিন্ন মাঠে আউশ ধানের ফলন অনেকটা ভালো লক্ষ্য করা যাচ্ছে। কৃষকরা বলেছে, এবারো আউশ ধানের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে। উপজেলা কৃষি অফিসার মশিদুল হক বলেছেন, সরকার আউশ ধানের চাষাবাদের ওপর অনেকটা গুরত্ব দিয়েছে। তাই আউশ ধান চাষাবাদের জন্য কৃষকদের সব ধরণের সহযোগিতা করা হয়েছে। সেই কারণে আউশ ধানের চাষাবাদের হারানো গৌরব আবারো ফিরে এসেছে। আউশ ধানের চাষাবাদ অনেকটা লাভজনক হিসেবে গণ্য করা হয়। আউশ ধানের চাষাবাদ করতে গভীর-অগভীর নলকূপের বাড়তি পানি সেচ দিতে হয় না। এতে ভূ-গর্ভের পানি স্থিতি থাকে। এবারো আউশ ধানের বাম্পার ফলনের উজ্জ্বল সম্ভাবনা রয়েছে। আর কয়েকদিনের মধ্যেই পুরোদমে আউশ ধান কাটা-মাড়াইয়ের কাজ শুরু হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ