ঢাকা, রোববার 26 August 2018, ১১ ভাদ্র ১৪২৫, ১৪ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

নাটোরে বাস-লেগুনা সংঘর্ষে ১৩ জনসহ তিন জেলায় সড়ক দুর্ঘটনায় ১৮ জন নিহত 

 

সংগ্রাম ডেস্ক : গতকাল শনিবার নাটোর, রাজশাহী ও কুমিল্লায় সড়ক দুর্ঘটনায় ১৮ জন নিহত এবং ৩৯ জন আহত হয়েছে। নাটোরের বড়াইগ্রামে বাস-লেগুনা সংঘর্ষে ১৩ জন, রাজশাহীতে চাকা খুলে গিয়ে ব্যাটারিচালিত ভ্যান উল্টে দাদা-নাতি, ট্রেনে কাটা পড়ে এক তরুণ এবং কুমিল্লায় বাস উল্টে ২ জনের নিহত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

নাটোর : নাটোর জেলার বড়াইগ্রামে বাস-লেগুনা সংঘর্ষে অন্তত ১৩ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও ১২ জন। গতকাল শনিবার বিকেল সাড়ে চারটার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। তবে তাৎক্ষণিকভাবে নিহতদের বিষয়ে বিস্তারিত কিছুই জানা যায়নি। স্থায়ীয় ফায়ার সার্ভিস সূত্রে নিহতদের খবর নিশ্চিত হওয়া গেছে। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, শনিবার বিকাল ৪টার দিকে নাটোর-পাবনা মহাসড়কের পদিম ছিলান ফিলিং স্টেশনের সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে। বনপাড়া হাইওয়ে থানার ওসি জিএম শামস নুর জানান, নাটোর-পাবনা মহাসড়কের চ্যালেঞ্জার পরিবহনের একটি বাসের সঙ্গে লেগুনার সংঘর্ষে ঘটনাস্থলেই ১০ জন নিহত হন। আহতদের উদ্ধার করে বড়াইগ্রাম হাসপাতাল ও বিভিন্ন ক্লিনিকে ভর্তি করা হলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৩ জন মারা যান। ফায়ার সার্ভিস সূত্র জানায়, দুর্ঘটনার খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা দ্রুত ঘটনাস্থলে এসে উদ্ধার করা শুরু করেছে। আহতদের স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতদের মধ্যে বেশ কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। মৃত্যুর সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলেও জানিয়েছেন বনপাড়া হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ি ইনচার্জ শামসুর নূর।

কুমিল্লা : ঢাকা থেকে চট্টগ্রামগামী শ্যামলী পরিবহনের একটি বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে দুই যাত্রী নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও অন্তত ২৫ জন। গতকাল শনিবার ভোর পৌনে ৫টার দিকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লার জিংলাতলী এলাকা এ ঘটনা ঘটে। হাইওয়ের পুলিশের ইলিয়টগঞ্জের ইনচার্জ নুরুল ইসলাম জানান, দাউদকান্দি উপজেলার জিংলাতলী এলাকায় শ্যামলী পরিবহনের একটি বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই ২ জন নিহত হন। বাসটি উদ্ধারের চেষ্টা চলছে। উল্লেখ্য, এর আগে গত শুক্রবার বিকেলে ফেনীতে শ্যামলী পরিবহনের একটি বাসের ধাক্কায় সিএনজি চালিত অটোরিকশার ৬ যাত্রী নিহত হন।

রাজশাহী অফিস : কয়েক ঘন্টার ব্যবধানে রাজশাহীতে ভ্যান উল্টে দাদা-নাতি এবং ট্রেনের নিচে কাটা পড়ে এক তরুণ নিহত হয়। শনিবার সকালে রাজশাহী নগরীর উপকণ্ঠ কাটাখালি সমসাদিপুর এলাকায় ব্যাটারিচালিত ভ্যান উল্টে কাটাখালি দেওয়ানপাড়া এলাকার ভ্যানচালক নাজিম উদ্দিন (৫০) ও তার নাতি আরাফাত আলী (৫) নিহত হন। আহত হন নাজিম উদ্দিনের স্ত্রী আশিয়া বেগম ও আরেক নাতি আবুল কালাম। কাটাখালি থানার পুলিশ জানায়, স্ত্রী ও দুই নাতিকে নিয়ে ভ্যান চালিয়ে আত্মীয়ের বাড়িতে বেড়াতে যাচ্ছিলেন নাজিম উদ্দিন। পথে দ্রুতগামী ভ্যানটির চাকা খুলে যায়। এতে ভ্যান উল্টে দাদা ও নাতি নিহত হন। দুর্ঘটনায় আশিয়া বেগম ও তার নাতি কালাম আহত হন। তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়। আর নিহতদের লাশ ময়নাতদন্ত ছাড়াই নিয়ে যান স্বজনরা। তাদের কোনো অভিযোগ নেই।

ট্রেনে কাটা পড়ে তরুণ নিহত : শুক্রবার রাত ১০টার দিকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের রেল স্টেশন এলাকায় ট্রেনে কাটা পড়ে লাবলু নামে (১৬) এক তরুণ নিহত হয়। লাবলু নগরীর নতুন বুধপাড়া এলাকার নকির শেখের ছেলে। রাজশাহী জিআরপি থানার পুলিশ জানায়, ট্রেনে কাটা পড়ে এক তরুণের নিহত হওয়ার বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ