ঢাকা, সোমবার 27 August 2018, ১২ ভাদ্র ১৪২৫, ১৫ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

নেতিবাচক প্রভাব পড়ার আশঙ্কা জনশক্তি রফতানি ও রেমিট্যান্সে

 

স্টাফ রিপোর্টার : শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশের জন্য মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার বন্ধ হলো। আগামী ১ সেপ্টেম্বর থেকে মালয়েশিয়াতে আর শ্রমিক নিয়োগ হবে না। অন্যদিকে এ মাসের মধ্যেই অবৈধ অভিবাসী এবং দশ বছরের বেশি অবস্থানকারীদের মালয়েশিয়া ছাড়তে হবে। ধারণা করা হচ্ছে, এই মাসের মধ্যেই লক্ষাধিক বাংলাদেশীকে দেশে ফিরে আসতে হবে। এতে শ্রমশক্তি রফতানি এবং রেমিট্যান্স আহরণে ব্যাপক ক্ষতির মুখে পড়বে বাংলাদেশ।

প্রসঙ্গত, ২০১২ সালে দুই দেশ শুধু সরকারি মাধ্যমে জি টু জি পদ্ধতিতে মালয়েশিয়ায় লোক পাঠাতে চুক্তি সই করে। ২০১৬ সালের তা পরিমার্জন করে ১০টি বেসরকারি রিক্রুটিং এজেন্সিকে জি টু জি প্লাসের আওতায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়। ২০১৬ সালের শেষদিক থেকে শুরু করে এ পর্যন্ত প্রায় ২ লাখ শ্রমিক মালয়েশিয়া গেছেন। এর মধ্যে চলতি বছরের জুলাই মাস পর্যন্ত ১ লাখ ৯ হাজার ৫৬২ জন শ্রমিক পাঠায় বাংলাদেশ।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, একটি সংঘবদ্ধ চক্রের অনৈতিক ব্যবসা পরিচালনার কারণে এমন ঘটনা ঘটলো। বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক নিয়োগে সংঘবদ্ধ চক্রের সংশ্লিষ্টতা আর বাড়তি টাকা নেয়ার বিষয়টি মালয়েশিয়ার ভালো লাগেনি। এজন্য তারা এমন সিদ্ধান্ত নেয়। 

প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব নমিতা হালদার জানান, মালয়েশিয়া শ্রমিক নিয়োগ স্থগিত করার সিদ্ধান্ত ২১ আগস্ট আমাদের আনুষ্ঠানিকভাবে জানিয়েছে। মালয়েশিয়ায় আমাদের শ্রম বাজার বন্ধ হওয়ায় বাংলাদেশের বৈদেশিক কর্মসংস্থান আর রেমিট্যান্সের ক্ষেত্রে অনিবার্যভাবে নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে। 

একই ধরনের মন্তব্য করে জনশক্তি রপ্তানিকারকদের সংগঠন বায়রার সাবেক সভাপতি বেনজির আহমেদ বলেন, মালয়েশিয়ার সরকার এ সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকলে তা আমাদের জনশক্তির বাজারের জন্য বিরাট ক্ষতি হবে। আমাদের প্রত্যাশা থাকবে, মালয়েশিয়ার সরকার ভবিষ্যতে শুধু ১০টি এজেন্সি নয়, বাংলাদেশের সব এজেন্সির জন্য মালয়েশিয়ার বাজার উন্মুক্ত করবে।

গত ১৪ আগস্ট মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদের সভাপতিত্বে বিদেশি শ্রমিক ব্যবস্থাপনা বিষয়ক বিশেষ কমিটির এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এক বিশেষ কমিটির বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। ইতিমধ্যে মালয়েশিয়া বৈঠকের সিদ্ধান্ত বাংলাদেশকে জানিয়ে দিয়েছে।  

মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের একটি চক্র এই বাজার একচেটিয়া নিয়ন্ত্রণ করছে। যা ভেঙে দেয়া দরকার বলে আমরা মনে করি। আমরা ব্যবসাটিকে বাংলাদেশের সব এজেন্টের জন্য খুলে দিতে চাই। এতে ব্যবসার প্রতিযোগিতা বাড়বে, জনশক্তি রপ্তানির খরচ কমবে। বাংলাদেশ ও নেপাল থেকে শ্রমিক নিয়োগের ব্যাপারে একটি অভিন্ন পন্থা অনুসরণ করা হবে। এ জন্য সাবেক প্রধান বিচারপতি কিংবা সাবেক মুখ্য সচিবের নেতৃত্বে একটি স্বাধীন টাস্কফোর্স গঠন করা হবে। কমিটি শ্রমবাজারকে বিশ্লেষণ করে প্রয়োজনীয় সুপারিশ গ্রহণ করবে।

সংঘবদ্ধ চক্রের সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে জুন মাসে বাংলাদেশ থেকে কর্মী পাঠানোর চলতি পদ্ধতি বন্ধের ঘোষণা দেয় মালয়েশিয়া। ২০১৬ সালে মালয়েশিয়া যেতে নতুন পদ্ধতি নেওয়া হয়েছিল। তাতে সে দেশে অভিবাসন শ্রমিক পাঠাতে বাংলাদেশের ১০টি এজেন্সিকে মালয়েশিয়া সরকার নির্ধারণ করে দেয়। 

এর আগে বাংলাদেশ থেকে যেকোনো রিক্রুটিং এজেন্সি মালয়েশিয়ায় লোক পাঠাতে পারত। এই প্রক্রিয়ায় গত দেড় বছরে বাংলাদেশ থেকে মালয়েশিয়া গেছেন ১ লাখ ৭৯ হাজার ৩৩০ জন। জনপ্রতি ৩ লাখ টাকা ধরলেও তাঁদের কাছ থেকে নেয়া হয়েছে ৫ হাজার ৩৮০ কোটি টাকা। সরকারি হিসাবে খরচ হওয়ার কথা সর্বোচ্চ ৬৭৩ কোটি টাকা। এই হিসাবে সিন্ডিকেটটি ৪ হাজার ৭০০ কোটি টাকার মতো হাতিয়ে নিয়েছে দেড় বছরে।

এই চক্রে বাংলাদেশের ১০টি জনশক্তি রপ্তানিকারী প্রতিষ্ঠান (রিক্রুটিং এজেন্সি) এবং মালয়েশিয়ার একটি কোম্পানি রয়েছে। তারা হলো ইউনিক ইস্টার্ন ক্যারিয়ার ওভারসিজ, ক্যাথারসিস ইন্টারন্যাশনাল, এইচএসএমটি হিউম্যান রিসোর্স, সানজারি ইন্টারন্যাশনাল, রাব্বি ইন্টারন্যাশনাল, প্যাসেজ অ্যাসোসিয়েটস, আমিন ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলস, প্রান্তিক ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরিজম ও আল ইসলাম ওভারসিজ।

বায়রার নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, মালয়েশিয়ায় এই চক্রের প্রধান বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত মালয়েশীয় নাগরিক মোহাম্মদ আমিন বিন আবদুন নূর। আমিন এবং ওই দেশের সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আজমি খালিদ, শ্রম বিভাগের সাবেক পরিচালক টেংকু ওমরসহ কয়েকজন প্রভাবশালী মিলে সিনারফ্ল্যাক্স নামে একটি কোম্পানি তৈরি করেন। এই কোম্পানিকেই বাংলাদেশ থেকে জনশক্তি নেয়ার দায়িত্ব দেয় মালয়েশিয়ার সরকার। তারা বাংলাদেশের নির্দিষ্ট ১০ এজেন্সির মাধ্যমে কর্মী সংগ্রহ করত।

জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর পরিসংখ্যান অনুযায়ী, এ বছরের জানুয়ারি থেকে জুলাই অর্থাৎ প্রথম সাত মাসে ৪ লাখ ৫১ হাজার ৫৩৬ জন বাংলাদেশী কাজের জন্য বিদেশে গেছেন। তাঁদের মধ্যে শুধু সৌদি আরব আর মালয়েশিয়ায় ১ লাখের বেশি শ্রমিক গেছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ