ঢাকা, সোমবার 27 August 2018, ১২ ভাদ্র ১৪২৫, ১৫ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

বিআরটিসির পরিত্যক্ত বাস নিলামে কিনে চলতো ‘চ্যালেঞ্জার’ নামে

বাস মালিক বগুড়ায় আটক

বগুড়া অফিস : নাটোরের লালপুরে মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় ১৫ জন নিহতের ঘটনায় জড়িত বাসটি অনেক আগেই পরিত্যক্ত ঘোষণা করেছিল বিআরটিসি। নিলামে সিট কিনে নিয়ে নতুন করে মেরামত করে চ্যালেঞ্জার পরিবহণের নামে ব্যবসা শুরু করেন এর মালিক মঞ্জু সরকার। মঞ্জু সরকারকে রোববার দুপুরে বগুড়া শহরের মধ্য পালশা থেকে পুলিশ আটকের পর এসব তথ্য বেরিয়ে আসছে।

অনুসন্ধানে জানা যায়, দুর্ঘটনা কবলিত বাসটি (ঢাকা মেট্রো-চ-৫৬৬৯) এক সময় বিআরটিসির মালিকাধীন ছিল। কয়েক বছর আগে বিআরটিসি কর্তৃপক্ষ বাসটি পরিত্যক্ত ঘোষণা করে এবং নিলামে উঠালে বগুড়ার মঞ্জু সরকার সেটি কিনে নেন। এরপর নতুন করে বডি লাগিয়ে এবং মেরামত করে রুট পারমিট ও ফিটনেসবিহীন অবস্থায় বগুড়া-কুষ্টিয়া রুটে যাত্রী পরিবহণ শুরু করে। 

বিআরটিসি বগুড়া বাস ডিপোর ম্যানেজার (অপারেশন) মফিজ উদ্দিন জানান, নিলামে কেনা বাস কোনো রুটে চলাচল করার সুযোগ নেই। পরিত্যক্ত ঘোষণা করার পরই নিলাম দেয়া হয়। নিলাম ক্রেতা বাসটি ভেঙ্গে ওজন দরে বিক্রি করার কথা। 

জানা গেছে, রোববার বেলা ১২টার দিকে পুলিশ বগুড়া শহরের মধ্য পালশা এলাকার বাড়ি থেকে চ্যালেঞ্জার পরিবহণের মালিক মঞ্জু সরকারকে আটক করে পুলিশ ফাঁড়িতে নিয়ে আসে। আটক মঞ্জু সরকার পুলিশকে জানায়, তার বাসের চালক শামিমের বাড়ি শহরের মালগ্রামে এবং হেল্পার কমলের বাড়ি সদরের গোকুল গ্রামে। মঞ্জু সরকারের দেয়া তথ্য অনুযায়ি পুলিশ বাস চালক ও হেলপারকে গ্রেফতারের উদ্দেশ্যে অভিযান চালায়। কিন্তু তারা পলাতক থাকায় তাদেরকে গ্রেফতার করা যায়নি। 

এদিকে, এই মর্মান্তিক দুর্ঘটনার পর শনিবার রাত থেকে মহাসড়কে ফিটনেস বিহীন যানবাহন ছাড়াও লেগুনা, সিএনজি ও ব্যাটারিচালিত অটোরিক্সা, ভটভটি চলাচল বন্ধ করতে অভিযান শুরু করেছে পুলিশ। রোববার দুপুর পর্যন্ত এ ধরনের ৫২টি যানবাহন আটক করা হয়েছে। নাটোরে দুর্ঘটনা কবলিত চ্যালেঞ্জার পরিবহণের বাসটির মালিক মঞ্জু সরকারকে আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বগুড়া সদর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ইন্সপেক্টর শেখ ফরিদ উদ্দিন।

বগুড়ার মহাসড়কে অভিযান শুরু হওয়ায় নতুন করে যানবাহন সংকট দেখা দিয়েছে। আটক হওয়ার ভয়ে মহাসড়কে ফিটনেসবিহীন যানবাহন চলাচল কমে গেছে। বগুড়ার পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভুঞা জানান, বাসের মালিককে আটক করে চালক ও হেলপারকে পুলিশে সোপর্দ করানোর চেষ্টা চালানো হচ্ছে। তিনি আরো জানান, মহাসড়কে অবৈধ যানবাহন ও ফিটনেসবিহীন সব ধরনের যানবাহনের বিরুদ্ধে অভিযান চলছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ