ঢাকা, মঙ্গলবার 28 August 2018, ১৩ ভাদ্র ১৪২৫, ১৬ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

চট্টগ্রামে পিস্তল গুলীসহ ২ জন গ্রেফতার

চট্টগ্রাম ব্যুরো: গত বৃহস্পতিবার চট্টগ্রামের পশ্চিম মাদারবাড়ি টং ফকিরের মাজার এলাকায় পারিবারিক সম্পত্তি বিরোধের জের ধরে নিজের ভাইকে হত্যা করতে গিয়ে এলাকাবাসীর গণপিটুনির শিকার হয়েছে আব্দুর রউফ (৩৮) ও তার ভাইপো আরশাদুর রহমান অপু (২৮)। পুলিশ অস্ত্রসহ তাদের গ্রেফতার করেছে।
পুলিশ সূএে জানা গেছে, পশ্চিম মাদারবাড়ি এলাকার বাসিন্দা মৃত আবুল কাশেমের চার ছেলে। এর মধ্যে দু’জন মারা গেছেন। জীবিত আছেন আব্দুর রাজ্জাক ও আব্দুর রউফ। অপু মৃত আব্দুর রহমানের ছেলে। আব্দুর রাজ্জাক এসআরবি এলাকার একটি ভাতের হোটেলের ম্যানেজার। পশ্চিম মাদারবাড়ির এসআরবি এলাকায় পৈতৃক বাড়িতে বাস করেন তিন ভাইয়ের পরিবার ও মৃত আবুল কাশেমের বৃদ্ধা স্ত্রী। আব্দুর রউফ তার পরিবার নিয়ে একই এলাকায় যুগী চাঁদ মসজিদ লেনে আলাদা বাসায় থাকেন। তিন মাস আগে রাজ্জাক ও রউফের মধ্যে জামি নিয়ে বিরোধ শুরু হয়। আবার অপুর স্ত্রীর সঙ্গে একই ভবনে বসবাসকারী তার চাচিশাশুড়ি রাজ্জাকের স্ত্রীর সঙ্গে বিরোধ চলে আসছিল। যে কারণে রউফ এবং অপু রাজ্জাককে ঘায়েল করার পরিকল্পনা করে। ঈদের দিন  দুপুরে রউফ এবং অপু মিলে রাজ্জাক ও তার মায়ের সঙ্গে ঝগড়া করে। এক পর্যায়ে তারা রাজ্জাককে গুলী করে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। রাজ্জাক বিষয়টি মৌখিকভাবে পুলিশকে জানান। সেই অনুযায়ী,বৃহস্পতিবার দুপুরে তারা রাজ্জাককে খুঁজতে রউফ ও অপু ভাতের হোটেলে আসে এবং চিৎকার করে। একপর্যায়ে তারা পিস্তল উঁচিয়ে রাজ্জাককে গুলি করতে উদ্যত হয়।  এসময় স্থানীয় জনতা সংঘবদ্ধ হয়ে তাদের ঘিরে ফেলে ধরে গণপিটুনী দেয়। পরে পুলিশ গিয়ে তাদের উদ্ধার করে। পিটুনিতে আহত হওয়ায় অপুকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ২৮ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে। এই ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে।
সদরঘাট থানার ওসি নেজাম উদ্দিন বলেন, পৈত্রিক বাড়ি দখলের জন্য রউফ তার সেজ ভাই রাজ্জাককে খুন করতে চেয়েছিলেন। তিনি সঙ্গে নিয়ে গিয়েছিলেন মেজ ভাইয়ের ছেলে অপুকে। স্থানীয়দের সহায়তায় পুলিশ তাদের ধরে ফেলে। এ সময় তাদের কাছ থেকে একটি পিস্তল এবং ছয় রাউন্ড গুলী উদ্ধার করা হয়। অপু ভাড়ায় গিয়ে বিভিন্ন সন্ত্রাসী কর্মকা- করত। তার বিরুদ্ধে কর্ণফুলী নদী সংলগ্ন ঘাট দখলের তিনটি অভিযোগ আছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ