ঢাকা, বুধবার 29 August 2018, ১৪ ভাদ্র ১৪২৫, ১৭ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

র‌্যাব পরিচয়ে অপহরণের ১৪ দিনেও ঘের ব্যবসায়ী আলতাফের সন্ধান মেলেনি

খুলনা অফিস : র‌্যাব পরিচয়ে যশোর থেকে তুলে নিয়ে যাওয়া খুলনার ব্যবসায়ী আলতাফ হোসেন হাওলাদারের সন্ধান মেলেনি। ১৪ দিন ধরে তিনি নিখোঁজ রয়েছেন। ফলে গভীর উদ্বেগ ও উৎকন্ঠার মধ্যে রয়েছে পরিবার। যশোর জেলার নাভারণ কাজীর বের গ্রামের সেলিনা বেগম তার স্বামীকে উদ্ধারের দাবিতে গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে খুলনা প্রেসক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলন করেছেন। এসময় তার দুই শিশু সন্তান লামিয়া ও সামিয়া অঝোর ধারায় কাঁদছিলেন।
অশ্রুশিক্ত কন্ঠে সেলিনা বেগম বলেন, গত ১৪ আগস্ট রাত আনুমানিক ৯টার দিকে যশোরের শার্শা থানাধীন নাভারণ কাজীর বের গ্রামে আমার শ্বশুর বাড়ি থেকে আমি ও দুই সন্তানের সামনে থেকে র‌্যাব পরিচয়ে সাদা পোশাকের ৫ জন লোক আমার স্বামী আলতাফ হোসেন হাওলাদার (৩৭)কে একটি প্রাইভেটকারযোগে তুলে নিয়ে যায়। আলতাফ হাওলাদার বাগেরহাট জেলার শরণখোলা উপজেলার খোন্তাকাটা গ্রামের মৃত আব্দুল গণি হাওলাদারের ছেলে। তিনি খুলনার হরিণটানা থানাধিন পুটিমারী বিল এলাকায় ঘের ও মাছের ব্যবসা করেন। এ ঘটনার পরের দিন ১৫ আগস্ট আমি আলতাফকে তুলে নেয়ার বিষয়ে শার্শা থানায় জিডি করতে যাই। কিন্তু ওসি জিডি না নিয়ে লিখিত একটি অভিযোগ নেন। এরপর বিষয়টি যশোরের নাভারণ সার্কেলের এএসপি ইমরানের কাছে লিখিতভাবে জানাই। এ বিষয়ে তিনি র‌্যাবের কাছে খোঁজ নিতে বলেন। পরবর্তীতে ২৫ ও ২৬ আগস্ট আমি ও আত্মীয়-স্বজনরা খুলনার র‌্যাব-৬ কার্যালয়ে গিয়ে আলতাফ হাওলাদারের বিষয়ে কোন তথ্য পাইনি।
১৪ দিন ধরে নিখোঁজ আলতাফ হাওলাদারের দু’টি শিশু সন্তান রয়েছে। আমি দু’টি সন্তানকে নিয়ে কুরবানির ঈদের আগে থেকে অসহায়ভাবে স্বামীর সন্ধানে বিভিন্ন স্থানে ঘুরে বেড়াচ্ছি। বর্তমানে খুবই কষ্টে আমরা স্বজনরা মানবেতর জীবন যাপন করছি। কুরবানি ঈদের দিনের শিশু সন্তানদের সাথে নিয়ে নিখোঁজ স্বামীকে খুজে বেড়িয়েছি। র‌্যাবের কাছে আপনার স্বামী আছে এটা কিভাবে নিশ্চিত হলেন এমন প্রশ্নের জবাবে সেলিনা বেগম সাংবাদিকদের বলেন, নাভারণ সার্কেলের এএসপি ইমরানের কাছে যাওয়ার পর তিনি প্রযুক্তির মাধ্যমে নিখোঁজ আলতাফের মোবাইল ফোনের লোকেশন খুলনার লবণচরাস্থ র‌্যাব-৬ কার্যালয়ে পেয়েছেন বলে আমাদের জানিয়েছেন। এছাড়া অপহরণের পরের দিন রহিম নামের র‌্যাব-৬ এর সোর্স পরিচয়ে আমার কাছে একটি মোবাইল ফোন (নম্বর ০১৭০০-৭৭১৫১৫) আসে। ওই ব্যক্তি ফোনে বলেন, আলতাফ আমাদের কাছে আছে, আপনি কোন চিন্তা করবেন না। অপর এক প্রশ্নের জবাবে সেলিনা বেগম বলেন, মাছের ঘের নিয়ে তার ব্যবসায়ীক পার্টনারের সাথে আলতাফের বিরোধ থাকতে পারে। তিনি তার স্বামীকে দ্রুত উদ্ধারের জন্য প্রধানমন্ত্রীসহ প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ