ঢাকা, শুক্রবার 31 August 2018, ১৬ ভাদ্র ১৪২৫, ১৯ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

ছড়া

শরতের ভোর

হামীম রায়হান

 

ভোরের আলো ফোটার আগে

ফোটে চোখের আলো,

বাইরে এসে তাকিয়ে দেখি

সব লাগে যে ভালো।

 

দোয়েল, শ্যামার কিচির মিচির,

মোরগ ডাকে সুরে,

শিউলি ফুলের চাদর দেখি

সারা উঠান জুড়ে।

 

ঘাসের ডগায় হাসতে থাকে

শরৎ শিশির বিন্দু,

দেখে মনে হয় যেন

ঘাসের উপড় ইন্দু।

 

 

কবি নজরুল

কাজী আবুল কাশেম রতন

 

চোখ দুটো টানা টানা

বড় বড় চুল

তুমি ছিলে কবি

কাজী নজরুল।

 

সাম্যের গান তুমি

গেয়েছিলে হেসে

ছোট-বড় সবাইকে 

খুব ভালোবেসে।

 

 

বিদ্রোহী নজরুল

মিসবাহ উদ্দিন জামিল 

 

সাহিত্যের রবি বিদ্রোহী নজরুল,

চুরুলিয়া গ্রামে জন্মিল সেই ফুল।

দুরন্ত ছেলে ঝাঁকড়া মাথার চুল,

বিদ্রোহী লেখা  তাঁর নেই সমতুল। 

 

বিদ্রোহী লেখা লিখে বুকে নিয়ে বল,

রণসংগীত তাঁর, চল চল চল।

মা-মাটির দুখে তাঁর চোখে আসে জল,

অন্যায়ে ছিলো তাঁর বাধা অবিরল।

 

কিশোরবেলা

পলক রায়

 

ভাল্লাগে না পড়ালেখা

ভাল্লাগে না  কিছু

ইচ্ছে করে সারাবেলা

ছুটি ফড়িং পিছু।

 

ভাল্লাগে না বদ্ধঘরে

ভাল্লাগে না একাকী

ইচ্ছে করে জুটি বেধে

গোটা বিশ্ব দেখি।

 

ভাল্লাগে না নিয়মনীতি

ভাল্লাগে না বারণ

ইচ্ছে করে ডুব সাতারে

মুক্তা করি হরণ।

 

ভাল্লাগে না বাবার গালি

ভাল্লাগেনা  ছাই

ইচ্ছে করে বারেবারে

কিশোরবেলায় যাই।

 

 

নজরুল

এমএ ওহাব মন্ডল

 

বিদ্রোহী নজরুল!

     তুমি গানের বুলবুল।

     বাবরী দোলানো  চুল

     তোমার সৃষ্টিতে আজি মশগুল।

 

তুমি বিদ্রোহী কন্ঠস্বর

       জালিমের ভয়;

           শোষকের সংশয়

তোমার লেখনীর হলো জয়।

 

তুমি বাঙালির স্পন্দন

               সাহসের অঢেল শক্তি।

তুমি অন্ধকারে জ্বালিয়েছো

              দুর্মর প্রেরণার দীপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ