ঢাকা, শনিবার 1 September 2018, ১৭ ভাদ্র ১৪২৫, ২০ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

বাংলাদেশ সাফ ফুটবল দলকে ক্রুসিয়ানির শুভকামনা

স্পোর্টস রিপোর্টার : দক্ষিণ এশিয়ার শীর্ষ ফুটবল টুর্নামেন্ট সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের আয়োজক এবার বাংলাদেশ। ২০০৩ সালে প্রথমবার সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ জিতে ইতিহাস গড়েছিল বাংলাদেশ। তখন দলের কোচ ছিলেন কোচ জর্জ কোটান। তার কাছ থেকে কোচের দায়িত্ব নেওয়া আন্দ্রেস ক্রুসিয়ানি টানা দ্বিতীয় ফাইনালে তুললেও ট্রফি হাতছাড়া হয় ভারতের কাছে  হেরে। তারপর থেকে শিরোপা তো দূরে খাক, আর কখনও ফাইনালই খেলেনি বাংলাদেশ। তবে সাবেক এই কোচ আন্দ্রেস ক্রুসিয়ানি দলকে তাই শুভকামনা জানিয়েছেন। ১৫ বছর আগে ২০০৩ সালে নিজ দেশে প্রথমবার সাফ আয়োজন করেই চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল বাংলাদেশ। দুই বছর পর তারা ফেভারিট হয়েই পাকিস্তানে গিয়েছিল। কিন্তু ফাইনালে ভারতের কাছে হেরে যায় ক্রুসিয়ানির দল। এবার তৃতীয়বার আয়োজক বাংলাদেশ। ২০০৩ সালের মতো আবারও শিরোপা উৎসব করবে তারা, এই কামনা করছেন ক্রুসিয়ানি। আগামী ৪ সেপ্টেম্বর শুরু হবে সাফের ১২তম আসর। উদ্বোধনী দিনেই তারা মোকাবিলা করবে ভূটানকে। ‘এ’ গ্রুপে বাংলাদেশের অন্য দুই প্রতিপক্ষ পাকিস্তান ও নেপাল। ২০০৯ সালের পর স্বাগতিক হিসেবে খেলতে নামা বাংলাদেশের সফলতা প্রত্যাশা করছেন সাবেক এই কোচ। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের প্রতি সবসময় আমার দুর্বলতা কাজ করে। আমি চাই বাংলাদেশ এবার (সাফে) ভালো করুক। পুরো দলের প্রতি আমার শুভকামনা।’ বাংলাদেশের সবশেষ ফাইনালের স্মৃতিচারণ করে ক্রুসিয়ানি বলেন, ‘আমরা পাকিস্তানে গিয়েছিলাম ভালো প্রস্তুতি নিয়ে। গ্রুপে ভালো পারফরম্যান্সও করেছিল এমিলি-কাঞ্চনরা। স্বাগতিক পাকিস্তানকে আমরা সেমিফাইনালে হারালাম। কিন্তু ফাইনালে কী হতে কী হলো, কিছুই বুঝলাম না।’ ভারত ২-০ গোলে জিতে চ্যাম্পিয়ন হলেও তাদের শিরোপার দাবিদার এখনও মানেন না এ আর্জেন্টাইন  কোচ। তিনি বলেন, ‘গ্রুপের পারফরম্যান্স ফাইনালে দেখাতে পারলে আমাদের হাতেই ট্রফি থাকতো। আসলে ফাইনালে আমরা ভালো খেলতে পারিনি। তাই বলে ভারত যে ভালো দল ছিল, সেটা আমি বলবো না। ম্যাচের একটা সময় পর্যন্ত তারা ভালো খেলেছে। সুযোগ কাজে লাগিয়ে তারা গোল করেছে, আর আমরা অগোছালো আক্রমণের জন্য গোল পাইনি।’ 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ