ঢাকা, রোববার 2 September 2018, ১৮ ভাদ্র ১৪২৫, ২১ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

‘ঢাকা ওয়াটার’ অনুমোদন ছাড়াই বিএসটিআই’র লোগো ব্যবহার

খুলনা অফিস : সুপেয় পানি প্রাপ্তির আশায় প্রতিনিয়তই প্রতারিত হচ্ছে নগরীর মানুষ। ড্রিংকিং ওয়াটারের নামে এ প্রতিষ্ঠানগুলো বিএসটিআই’র পরীক্ষায় পাস না করেও ব্যবহার করছেন বিএসটিআই’র লোগো। আর এ প্রতারণার ফাঁদে পড়ে প্রতিনিয়ত সেই ননকোয়ালিফাই ‘ঢাকা ওয়াটার’ নামের পানি টাকা দিয়ে কিনে পান করছেন নগরবাসী।
ঢাকা ওয়াটার। ১৬, শের-এ-বাংলা রোড, খুলনা। যার নেই বিএসটিআই (বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস এন্ড টেস্টিং ইন্সটিটিউশন) অনুমোদন। পানি পরীক্ষা করার কেমিস্ট বা মাইক্রোবায়োলজিস্ট। তবুও চলছে পানি প্রক্রিয়া এবং লোগো ব্যবহার করে প্রতারণার ব্যবসা।
বিএসটিআই সূত্রে জানা গেছে, কোনো ড্রিংকিং ওয়াটার সাপ্লাইয়ের কারখানা করতে হলে তাকে ন্যূনতম ১১-১২টি শর্ত পূরণ করতে হয়। কিন্তু ঢাকা ওয়াটার সে শর্ত না মানায় তাদেরকে বিএসটিআই’র অনুমোদন দেয়নি। প্রতিষ্ঠানটি বছরের পর বছর চললেও এখনও আইনের আওতায় আসতে পারেনি। আইনের আওতায় আসতে রয়েছে তাদের গড়িমসি। পানির জারের (বোতল) গায়ের স্টিকারে রয়েছে বিএসটিআই’র লোগো, মিনারেল কম্পোজিশন চার্ট এবং আকর্ষণীয় বাণী ও ডিজাইন। তারপরও হরহামেশাই প্রশাসনের চোখের সামনে বিক্রি হচ্ছে এ পানি। সাধারণ মানুষ বলছেন, বিএসটিআই থেকে এ ধরনের প্রতারণাকারী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ না করার কারণে এ ধরনের অপরাধের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। প্রতিষ্ঠানটির স্বত্বাধিকারী পঙ্কজ জানান, বিএসটিআই’র নিবন্ধন নেই। বিএসটিআই থেকে কয়েকবার আমাদের অফিস পরিদর্শন করেছে। নিবন্ধন দেয়নি তবে তারা লোগো ব্যবহার করতে বলেছে। তাদের সাথে আমার প্রায়ই যোগাযোগ হয়।
বিএসটিআই যে প্রতিষ্ঠানকে অনুমোদন দেয়নি এবং ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে যে প্রতিষ্ঠান প্রক্রিয়াজাত করছে। সে প্রতিষ্ঠানের বোতলজাত পানি কতটা নিরাপদ। কিন্তু আকর্ষণীয় স্টিকার এবং নির্ভরযোগ্য প্রতিষ্ঠানের অনুমোদন ছাড়াই লোগো ব্যবহার করে প্রতিনিয়ত প্রতারিত করছে সাধারণ মানুষকে।
বিএসটিআই (বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইন্সটিটিউশন) এর সহকারী পরিচালক (সিএম) প্রকৌশলী মৃনাল কান্তি বিশ্বাস জানান, ড্রিংকিং ওয়াটার বা বোতলজাত পানির জন্য অবশ্যই বিএসটিআই থেকে নিবন্ধন নিতে হবে। কোনো প্রতিষ্ঠান যদি তা না করে তাহলে সেটি হবে অবৈধ। তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। অনুমোদন না নিয়ে বিএসটিআইয়ের লোগো ব্যবহার করা এটি এক ধরনের প্রতারণা এবং অন্যায়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ