ঢাকা, সোমবার 3 September 2018, ১৯ ভাদ্র ১৪২৫, ২২ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

ট্রাম্পের অভিশংসন চান অর্ধেক মার্কিনী

২ সেপ্টেম্বর, দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট, ওয়াশিংটন পোস্ট, এবিসি নিউজ, রয়টার্স :  প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের অভিশংসন চান অর্ধেক মার্কিনী। প্রেসিডেন্ট হিসেবে ট্রাম্প দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ বলে মার্কিনীরা মনে করেন। ৪৯ ভাগ মার্কিনী মত দিয়েছেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে অভিশংসনে শিগগিরই প্রক্রিয়া শুরু করা উচিত।

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের অজনপ্রিয়তা এই প্রথম সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছালো। খবর ব্রিটিশ পত্রিকা ওয়াশিংটন পোস্ট এবং এবিসি নিউজ নতুন এই জরিপ প্রকাশ করেছে। জরিপের ফল হোয়াইট হাউস কর্তার জন্য খুবই খারাপ।

৪৬ ভাগ ট্রাম্পের অপসারণের বিরোধিতা করলেও ৪৯ ভাগ সেই কাজটি দ্রুত করার দাবি জানিয়েছেন। আর ট্রাম্পকে অপছন্দের হার এই প্রথম ৬০ ভাগে দাঁড়িয়েছে। রবার্ট মুলারের নেতৃত্বাধীন বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটিকে অর্ধেকেরও বেশি মার্কিন সমর্থন জানিয়েছেন। ২০১৬ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়া হস্তক্ষেপ করেছিল কিনা সেই বিষয়ে তদন্ত করছে রবার্ট মুলারের কমিটি।

যুক্তরাষ্ট্রে এমন খবর ছড়িয়ে পড়েছে যে, রবার্ট মুলার তার ১৪ মাসের তদন্ত রিপোর্ট যে কোনো সময় প্রকাশ করতে পারেন। কংগ্রেসের মধ্যবর্তী নির্বাচনের বাকি আছে দুই মাসের কিছু বেশি। এই নির্বাচনে ডেমোক্র্যাট দল প্রতিনিধি পরিষদে কর্তৃত্ব ফিরে পেতে পারে যা ট্রাম্পের জন্য খুবই দুঃখজনক ঘটনা হবে। কারণ প্রতিনিধি পরিষদ থেকেই অভিশংসন প্রক্রিয়া শুরু হয়। ১৯৯৮ সালে সাবেক প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটনের বিরুদ্ধেও এখান থেকেই শুরু হয়েছিল।

ক্ষমতা গ্রহণের পর থেকে নানা বিতর্কিত সিদ্ধান্তে দেশে-বিদেশে ব্যাপক সমালোচিত প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। নির্বাচনী প্রচারের সময় দুই নারীকে ঘুষ দেয়ার ঘটনায় ব্যক্তিগত আইনজীবী কোহেন আদালতে স্বীকারোক্তি দেয়ায় ট্রাম্প ফেঁসে যেতে পারেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। আর সাবেক নির্বাচনী ব্যবস্থাপক পাপাডৌলাস আদালতে বলেছেন, রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিনের সঙ্গে বৈঠকে ২০১৬ সালেই অনুমোদন দেন ট্রাম্প ও বর্তমান অ্যাটর্নি জেনারেল জেফ সেশনস। তবে ট্রাম্প বলেছেন, তিনি অনেক পুরানো এই বিষয়টি মনে করতে পারছেন না।

নাফটা চুক্তিতে কানাডার প্রয়োজন নেই : মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জানিয়েছেন, উত্তর আমেরিকা মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি ‘নাফটা’তে কানাডাকে রাখার প্রয়োজন নেই। চুক্তিটি সংস্কারের বিষয়ে কানাডাকে না রাখা প্রসঙ্গে মার্কিন কংগ্রেসকে কোনো প্রকার মধ্যস্ততা না করার জন্যও সতর্ক করে দিয়েছেন ট্রাম্প।

ট্রাম্প এ প্রসঙ্গে এক টুইট বার্তায় জানান, নতুন নাফটা চুক্তিতে কানাডাকে রাখার কোনো রাজনৈতিক কারণ নেই। চুক্তিটিতে যদি কোনো স্বচ্ছতা না থাকে, তবে কয়েক দশক ধরে যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য বিষয়ে যে বঞ্চনা, তার সমাধান সম্ভব হবেনা। সেক্ষেত্রে কানাডাকে চুক্তিটিতে রাখার কোনো কারণ নেই, এক্ষেত্রে মার্কিন কংগ্রেসের নাক গলানোর কিছু নেই।

এর আগে শুক্রবার কানাডার সাথে বৈঠক শেষে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প, মেক্সিকোর সাথে একটি দ্বিপাক্ষিক চুক্তির প্রস্তাব উত্থাপন করেন। তবে মার্কিন কংগ্রেস স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে। যদি কানাডাকে চুক্তিটিতে রাখা না হয়, সেক্ষেত্রে মেক্সিকোকে যথেষ্ঠ কাঠখড় পোড়াতে হবে। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ