ঢাকা, সোমবার 3 September 2018, ১৯ ভাদ্র ১৪২৫, ২২ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

আজ থেকে তেজগাঁও ট্রাকস্ট্যান্ড সংলগ্ন সড়কগুলো দখলমুক্তের ঘোষণা

সংগ্রাম ডেস্ক : আজ সোমবার (৩ সেপ্টেম্বর) থেকে তেজগাঁও ট্রাকস্ট্যান্ড সংলগ্ন এলাকার সড়কগুলো দখলমুক্ত থাকবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) প্যানেল মেয়র  জামাল মোস্তফা। বাংলা ট্রিবিউন
তিনি বলেন, এজন্য ট্রাকস্ট্যান্ড ইউনিয়নের মালিক ও শ্রমিকরা প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। সেইসঙ্গে শুধু এ এলাকা নয়, জনগণের দুর্ভোগ এড়াতে ঢাকার সবগুলো সড়ক দখলমুক্ত রাখবো। এজন্য মনিটরিংয়ের মাধ্যমে ডিএনসিসির সংশ্লিষ্টরা সর্বাত্মক কাজ করে যাচ্ছেন।
গতকাল রোববার  দুপুরে রাজধানীর তেজগাঁও ট্রাকস্ট্যান্ড এলাকায় বেদখল হওয়া সড়কগুলো পরিদর্শনে এসে তিনি সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।
এর আগে তিনি ওই এলাকার বিভিন্ন সড়ক সরেজমিনে ঘুরে রাস্তার ওপর থাকা ট্রাকগুলো সরিয়ে দেওয়ার ব্যবস্থা করেন। সেই সঙ্গে ওইসব স্থানে যাতে আর কোনও সময় ট্রাক স্ট্যান্ড করতে না পারে সেজন্য ট্রাক শ্রমিক ও মালিক সমিতির সদস্যদের সতর্কতামূলক নির্দেশনা দিয়েছেন তিনি।
এসময় ডিএনসিসির প্যানেল মেয়র জামাল মোস্তফা বলেন, আপনারা জানেন এ সড়কটা কিছুদিন আগেও দখলমুক্ত ছিল। আজ এখানে সরেজমিনে দেখতে এসেছি। আমরা মালিক ও শ্রমিকদের সঙ্গে কথা বলেছি। তারা জানিয়েছে, ঈদের কারণে এখানে কিছু ট্রাক জমা ছিল। সেগুলো সরিয়ে দেওয়া হয়েছে।
তিনি আরও বলেন, ‘ডিএনসিসির প্রয়াত মেয়র আনিস ভাইয়ের (আনিসুল হক) যে লক্ষ্য ছিল যানজটমুক্ত ও দুর্ভোগমুক্ত সুন্দর একটি নগর উপহার দেওয়া সেটি বাস্তবায়নে আমরা একনিষ্টভাবে কাজ করছি। তাই শুধু এ ট্রাকস্ট্যান্ড (তেজগাঁও) নয়, ঢাকার শহরের সব ট্রাকস্ট্যান্ড আমরা দখলমুক্ত রাখবো ইনশাল্লাহ। এজন্য আমাদেরকে শ্রমিক ও মালিক সমিতির লোকজন সহায়তার আশ্বাস দিয়েছেন। ‘
 সেই সঙ্গে তেজগাঁও এলাকা দখলমুক্ত রাখতে স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও ডিএনসিসির নির্বাহী কর্মকর্তা মেজবাউল ইসলামকে প্রতিনিয়ত মনিটরিংয়ের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে বলে জানান ডিএনসিসির প্যানেল।
এসময় বাংলাদেশ ট্রাক কাভার্ড ভ্যান ড্রাইভার্স ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি তালুকদার মো. মনির সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা প্রতিশ্রুতি দিলাম, কাল থেকে সড়কে ট্রাক থাকবে না। যদি থাকে তাহলে সেসব ট্রাকের কাগজপত্র আমরা জব্দ করে পুলিশের সহযোগিতায় প্রয়োজনে রেকারিংয়ে পাঠাবো।’
এর আগে সকাল সাড়ে ১১ টার দিকে সংগঠনের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে প্যানেল মেয়র ও ডিএনসিসির সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এ বৈঠকে তেজগাঁও ট্রাকস্ট্যান্ডটিকে  বহুতল ট্রাক টার্মিনাল করার দাবি জানায় সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। জবাবে প্যানেল মেয়র মোস্তফা জামাল বলেন, যেহেতু এখানে প্রায় ১৯ একর ভূমি আছে তাই প্রধানমন্ত্রী ও সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে এ দাবির বিষয়ে আলোচনা করা হবে। তেজগাঁও এলাকায় আনিসুল হকের নামে নির্মিত সড়ক খুব শীঘ্রই উদ্বোধন করা হবে বলেও জানান তিনি।
এসময় ডিএনসিসির সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্মকর্তা ও ট্রাক ইউনিয়ন সমিতির মালিক ও শ্রমিকরা উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের তদানীন্তন মেয়র আনিসুল হক তেজগাঁও সড়কটি ট্রাকের দখলমুক্ত করতে গিয়ে ট্রাক শ্রমিকদের ক্ষোভের মুখে পড়েন। কিন্তু, তিনি অনড় থাকায় ট্রাকস্ট্যান্ড সংলগ্ন সড়কটি দখলমুক্ত করা হয়। ২০১৭ সালে সাতরাস্তা থেকে রেলক্রসিং পর্যন্ত সড়কের উন্নয়ন করে সড়ক বিভাজকে লাগানো হয় গাছ। সড়কটি দখলমুক্ত হওয়ায় এর সুফলও পেতে শুরু করে নগরবাসী। কিন্তু, গত বছরের ৩০ নভেম্বর আনিসুল হকের মৃত্যু হলে ডিএনসিসির শিথিলতার সুযোগ নিয়ে আবারও তেজগাঁও ট্রাকস্ট্যান্ড সংলগ্ন সড়কগুলোর বিশাল অংশ দখল করে ট্রাক রাখার প্রবণতা চলছিল ট্রাক মালিক ও শ্রমিকদের।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ