ঢাকা, সোমবার 3 September 2018, ১৯ ভাদ্র ১৪২৫, ২২ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

আন্দোলন সংগ্রামের সূতিকাগার চট্টগ্রাম থেকেই আওয়ামী সরকার পতনের চূড়ান্ত আন্দোলন শুরু হবে

চট্টগ্রাম ব্যুরো : বিএনপির প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর চট্টগ্রামে সমাবেশে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক মন্ত্রী আব্দুল্লাহ আল নোমান বলেছেন.আন্দোলন সংগ্রামের সূতিকাগার চট্টগ্রাম থেকেই আওয়ামী সরকার পতনের চূড়ান্ত আন্দোলন শুরু হবে। মহান স্বাধীনতার ঘোষণা শহীদ জিয়াউর রহমান এই চট্টগ্রাম থেকেই করেছেন, দেশ স্বাধীন হয়েছে। তিনি ৭৫ পরবর্তী সময়ে দেশের দুর্দিনে প্রথম বাংলাদেশ আমার শেষ বাংলাদেশ স্লোগানে দেশের হাল ধরে দেশের গণতন্ত্র ও স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব রক্ষা করেছেন বিএনপি প্রতিষ্ঠা করে। তিনি গত শনিবার (১ সেপ্টেম্বর) বিকালে চট্টগ্রাম মহানগরীর কাজীর দেউড়ি নুর আহমদ সড়কের বিএনপি চট্টগ্রাম মহানগর   কার্যালয়ের সামনে বিএনপির ৪০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষেক্ষ চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি আয়োজিত সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে  এসব কথা বলেন। সমাবেশে নোমান আরো বলেন, বর্তমান স্বৈরাচার আওয়ামী সরকার দেশের স্বাধীনতা, গণতন্ত্র ও মানুষের ভোটাধিকার হরণ করেছে। মিথ্যা ও সাজানো মামলায় বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগারে প্রেরণ করে এদেশের গণতন্ত্র ও মানুষের ভোটাধিকারকে নির্বাসনে পাঠানোর ষড়যন্ত্র করছে। তা প্রতিহত করতে এই চট্টগ্রাম থেকেই এই অবৈধ, অনির্বাচিত সরকারের পতন আন্দোলন শুরু হবে। চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেনের সভাপতিত্বে সমাবেশে বিশেষ অতিথি ছিলেন সাবেক মেয়র বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দীন, বিএনপির চট্টগ্রাম বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবুর রহমান শামীম, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক জালাল উদ্দীন মজুমদার, বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা এসএম ফজলুল হক, বিএনপির কেন্দ্রীয় সদস্য শামসুল আলম ও চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহসভাপতি আবু সুফিয়ান। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সাবেক মেয়র মীর নাছির উদ্দিন বলেন, বিএনপিকে কখনো নিশ্চিহ্ন করা যাবে না, কারণ বিএনপি গণমানুষের দল। কর্মী ও জনগণের উপর ভরসা রেখেই বিএনপি বিগত চারবার রাষ্ট্র ক্ষক্ষমতায় গেছে। তাই কোন ষড়যন্ত্রই বিএনপি ও জিয়া পরিবারকে নিশ্চিহ্ন করতে পারবে না। বিএনপির চট্টগ্রাম বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবুর রহমান শামীম বলেন, সরকার জনগণের ভোটে ভয় পায় তাই মাত্র তিনমাস আগে ইভিএমে নির্বাচন দিয়ে সরকার আবারো ষড়যন্ত্র করছে, যে দেশে ইভিএম প্রস্তুত করেছে সেদেশগুলোতে যেখানে ইভিএম প্রশ্নবিদ্ধ সেখানে কোটি কোটি টাকা খরচ করে ইভিএম-এ নির্বাচন দেওয়া হলে তা বাংলার জনগণ মেনে নেবে না। ইভিএমে কোন নির্বাচন এ দেশে হবে না।চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহসভাপতি আবু সুফিয়ান বলেন, বিএনপি আগের চেয়ে অনেক বেশি শক্তিশালী, লালদিঘী ময়দানের চেয়ে অনেক বেশি মানুষ আজকের সমাবেশে অংশ গ্হণ করেছে। প্রশাসন দিয়ে হামলা মামলা করে বিএনপিকে নিশ্চিহ্ন করতে পারেনি আওয়ামী লীগ সরকার। আজকের এ জনসমুদ্র প্রমাণ করে বিএনপি আগের চেয়ে অনেক বেশি শক্তিশালী হয়েছে। আগামীতে বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে ছাড়া কোন নির্বাচন এ দেশে হতে দেওয়া হবে না।
সভাপতির বক্তব্যে নগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেন বলেন,   এবার ইভিএম দিয়ে ডিজিটাল পদ্ধতিতে ভোট কারচুপি করার জন্য চার হাজার কোটি টাকা খরচ করে ইভিএম আনার ব্যর্থ চেষ্টা করছে। আর একশ আসনে পরীক্ষামূলক ভোট গ্রহণ করে সেই একশ আসনের ফলাফল ছিনিয়ে নেওয়ার ষড়যন্ত্র করছে।সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন নগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম বক্কর, সিনিয়র সহসভাপতি  আবু সুফিয়ান, অ্যাডভোকেট আবদুস সাত্তার,  এম এ আজিজ, যুগ্ম সম্পাদক কাজী বেলাল সহ নেতৃবৃন্দ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ