ঢাকা, মঙ্গলবার 4 September 2018, ২০ ভাদ্র ১৪২৫, ২৩ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

রেলপথেও বাড়ছে মৃত্যুর ঝুঁকি

সংগ্রাম ডেস্ক : মহাসড়কের পাশাপাশি রেলপথেও মৃত্যুর মিছিল বেড়েই চলেছে। চলতি বছরের প্রথম পাঁচ মাসে রেলের পূর্বাঞ্চলে রেললাইনে দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে ৩০৪ জনের। এরইমধ্যে শুধুমাত্র এবারের ঈদ যাত্রার ১১ দিনে ৩৩ জন মারা গেছেন। কিন্তু যাত্রী কল্যাণ পরিষদের দাবি, মৃত্যুর এ সংখ্যা আরো বেশি। আইন অমান্য করে রেললাইন ধরে হাঁটার কারণে মৃত্যুর হারও বাড়ছে বলে জানিয়েছে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। শীর্ষনিউজ
বাহন হিসেবে রেল নিরাপদ হলেও সাধারণ মানুষের কাছে রেলপথ ক্রমশ ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠছে। বিশেষ করে রেল-কেন্দ্রিক মৃত্যুর হার বেড়েই চলেছে। জি আর পি’র সবশেষ তথ্য অনুযায়ী, ১০ জুন থেকে শুরু হয় ঈদের যাত্রা। আর এ যাত্রার ১১ দিনে মারা গেছে ৩৩ জন। কমলাপুর স্টেশন থেকে টঙ্গী পর্যন্ত ঢাকা অংশকে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। এ অংশ ট্রেনের ধাক্কা এবং ট্রেনে কাটা পড়ে মারা গেছে ১৬ জন। এর বাইরে ভৈরবে ৬ এবং চট্টগ্রাম অংশে ৪ জনের মৃত্যু হয়।
 রেলওয়ে (পূর্বাঞ্চল) জি আর পি’র অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শেখ শরীফুল ইসলাম বলেন, ১২টি ঘটনার মধ্যে ১০টি ঘটনাই ট্রেনলাইন পারাপারে। রেলওয়ের লেভেল ক্রসিংয়ে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে।
শুধু ঈদের সময় নয়, চলতি বছরের প্রথম ৫ মাসে ৩০৪ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে রেলওয়ে পুলিশ। এর মধ্যে মে মাসে সবচেয়ে বেশি ৭৩ জনের মৃত্যু হয়। যাত্রী কল্যাণ পরিষদের দাবি, প্রতি বছর রেলওয়ে পূর্ব এবং পশ্চিম জোনে অন্তত ২ হাজারের বেশি লোক মারা যাচ্ছে রেল দুর্ঘটনায়।
এর আগে চলতি বছরে রমজানের ঈদে ট্রেনে কাটা পড়ে ৩৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এরমধ্যে ঢাকা অংশে মারা যান ১৬ জন। যাত্রী সংখ্যায় তুলনামূলক বেশি হওয়ায় স্টেশনে ট্রেন পৌঁছার আগেই হুড়োহুড়িতে ট্রেনে কাটা পড়ার ঘটনা বেশি ঘটছে বলে জানিয়েছেন ট্রেনের ইঞ্জিন চালকরা।
রেলওয়ে ইঞ্জিন চালক মোহাম্মদ হানিফ বলেন, মূলত দৌড়াদৌড়ির কারণে দুর্ঘটনা ঘটছে। এবং ট্রেনের ফুট প্লেটে ও কোচের ফুট প্লেটসহ সব জায়গায় দাঁড়ানোর কারণে দুর্ঘটনা বাড়ছে।
যাত্রীদের তাড়াহুড়ার পাশাপাশি আইন না মানার প্রবণতায় রেল দুর্ঘটনার মূল কারণ বলে মনে করছেন চট্টগ্রাম জি আর পি থানার অফিসার ইনচার্জ মোস্তাফিজুর রহমান। তিনি বলেন, যখনই একটি ট্রেন আসে, আপনি দেখবেন সে ট্রেনে ওঠার জন্য যাত্রীদের মধ্যে তীব্র হুড়োহুড়ি দেখা যায়। আর এ প্রতিযোগিতা থেকে আমাদের ফেরত আসতে হবে।
রেল দুর্ঘটনায় বিচারে তেমন নজির নেই। শুধুমাত্র পুলিশে পক্ষ থেকে একটি অপমৃত্যু মামলা করা হয়। আইনের বাধ্যবাধকতার কারণে পরবর্তীতে এসব মামলার চূড়ান্ত প্রতিবেদন দেওয়া হয়।
২০১৪ সাল থেকে ১৭ সাল পর্যন্ত চার বছরে পূর্বাঞ্চলে রেল দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে ২ হাজার ৮১৩ জনের। এর মধ্যে গত বছরই মারা গেছে ৮১২ জন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ