ঢাকা, বুধবার 5 September 2018, ২১ ভাদ্র ১৪২৫, ২৪ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

আশ্বাসের দ্রুত বাস্তবায়ন প্রয়োজন

‘কয়েকশ’ স্প্রিন্টার শরীরে, চিকিৎসার ব্যয় নিয়ে দুশ্চিন্তা’ শিরোনামে প্রতিবেদনটি কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে সক্ষম হবে কিনা জানি না। তবে বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ এবং কর্তৃপক্ষের করণীয় আছে বলে আমরা মনে করি। ৩ সেপ্টেম্বর তারিখে প্রথম আলো পত্রিকায় মুদ্রিত প্রতিবেদনটিতে বলা হয়, একটু হাঁটলেই পা ফুলে যায় রাজিবুল ইসলামের। ঠিকমতো বসতেও পারেন না। শরীরে বয়ে বেড়াচ্ছেন কয়েকশ’ স্প্রিন্টার। পরিবারের আশঙ্কা, সঠিক চিকিৎসা না পেলে ধীরে ধীরে হয়তো স্বাভাবিক কর্মক্ষমতা পুরোপুরি হারিয়ে ফেলবেন তিনি। সরকারি চকরিতে কোটা সংস্কারের  দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ করার সময় গত ৮ এপ্রিল রাতে পুলিশের ছোঁড়া শটগানের গুলিতে আহত হন তিনি। চিকিৎসকরা পরামর্শ দিলেও ছেলেকে দেশের বাইরে নিয়ে যাওয়ার মতো আর্থিক সামর্থ্য পিতার নেই। রাজিবুলের পরিবার জানায়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কিংবা সরকার কেউই তাদের পাশে দাঁড়ায়নি। রাজিবুল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র।
রাজিবুল যেদিন আহত হন, সেদিন গুলিবিদ্ধ হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের লোকপ্রশাসন বিভাগের চতুর্থ বর্ষের আশিকুর রহমানও। গুলিতে তাঁর যকৃত ও ফুসফুস ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এখনো তার শরীরের ভেতর রয়ে গেছে গুলিটি। এছাড়া পুলিশের ছোঁড়া শটগানের গুলিতে আহত হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র মো. শাহরিয়ার হোসেন। তাঁর পিঠে আটটি স্প্রিন্টার বিদ্ধ হয়। এছাড়া পুলিশের শটগানের গুলিতে আহত হন জাহাঙ্গিরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র আরেফিন। তার চোখে স্প্রিন্টার বিদ্ধ হয়। এর বাইরে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র তরিকুল ইসলাম ছাত্রলীগের হাতুড়ি ও লাঠিপেটায় গুরুতর আহত হন। কিন্তু তারা প্রয়োজনীয় চিকিৎসা পাচ্ছেন না।
কোটা আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের সংগঠন বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন প্রথম আলোকে বলেন, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক আন্দোলনের সময় তাদের বলেছিলেন, আহত শিক্ষার্থীদের চিকিৎসা ব্যয় সরকার বহন করবে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনও একই আশ্বাস দিয়েছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত কোনো আশ্বাসের বাস্তবায়ন হয়নি। আমরা মনে করি আশ্বাসের দ্রুত বাস্তবায়ন প্রয়োজন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ