ঢাকা, বুধবার 5 September 2018, ২১ ভাদ্র ১৪২৫, ২৪ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

জামায়াত নেতা আবুল কাশেমের শ্বশুরের ইন্তিকালে ঢাকা মহানগরী দক্ষিণ জামায়াতের শোক

বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর চকবাজার থানা আমীর শেখ আবুল কাশেমের শ্বশুর ও যাত্রাবাড়ী থানা জামায়াত ৫০নং ওয়ার্ডের মহিলা রুকন বেগম সালেহা খাতুনের স্বামী ডা. এম এ জব্বার হোসেনের (৭৮) ইন্তিকালে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের আমীর নূরুল ইসলাম বুলবুল এবং কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের সেক্রেটারি ড. শফিকুল ইসলাম মাসুদ।
গতকাল মঙ্গলবার দেয়া যৌথ শোকবার্তায় এ শোক প্রকাশ করেন। শোক বার্তায় তারা মরহুমের রুহের মাগফিরাত কামনা করেন ও তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান। নেতৃবৃন্দ মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের কাছে দোয়া করেন, আল্লাহ যেন মরহুমের নেক আমলসমূহ কবুল করে তাঁকে জান্নাতবাসী করেন এবং তার পরিবার ও আত্মীয় স্বজনকে সবর করার তৌফিক দান করেন।
এছাড়া শোক জানিয়েছেন, জামায়াতে ইসলামী কেন্দ্রীয় মজলিসে শূরা সদস্য ও যাত্রাবাড়ী অঞ্চল পরিচালক আব্দুস সবুর ফকির, যাত্রাবাড়ী পশ্চিম থানা আমীর খন্দকার এমদাদুল হক, সেক্রেটারি মাওলানা সাদেক। নেতৃবৃন্দ মহান আল্লাহর নিকট মরহুমের ভালো কাজগুলো কবুল করে তাকে তাঁর প্রিয় বান্দাহদের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করে সম্মানিত করার দোয়া করেছেন। তাঁরা বলেন, মরহুম আজীবন ইসলাম প্রতিষ্ঠার কাজে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেছেন।
উল্লেখ্য, ডি.এইচ.এম.এস চিকিৎসক সমিতির সাবেক মহাসচিব ডা. এম এ জব্বার হোসেন সোমবার ভোর ৫টায় বার্ধক্য জনিত কারণে ঢাকা যাত্রাবাড়ীর নিজ বাসায় ইন্তিকাল করেন (ইন্নালিল্লাহে ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৮ বছর। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ৩ ছেলে ও ১ মেয়ে, নাতি-নাতিনীসহ অসংখ্য গুনগ্রাহী রেখে গেছেন। মরহুম ডা. এম এ জব্বার হোসেনের বড় ছেলে একটি এনজিও প্রতিষ্ঠানে কর্মরত, ২য় ছেলে ইসলামী ছাত্রশিবিরের সাবেক সদস্য ও ব্যাংক কর্মকর্তা, ৩য় ছেলে ছাত্রশিবিরের সাবেক সাথী ও বর্তমানে ব্যাংক কর্মকর্তা।
মরহুম ডা. এম এ জব্বার হোসেনের প্রতিষ্ঠিত যাত্রাবাড়ী ওয়াপদা কলোনী কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ সংলগ্ন মাঠে সোমবার বাদ যোহর নামাযে জানাযা অনুষ্ঠিত হয়। জানাযায় জামায়াতে ইসলামী কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের নায়েবে আমীর মঞ্জুরুল ইসলাম ভূঁইয়া, মহানগরী কর্মপরিষদ সদস্য আব্দুস সবুর ফকির, যাত্রাবাড়ী পশ্চিম থানার সেক্রেটারি মাওলানা সাদেক, কর্মপরিষদ সদস্য হাফেজ তাজউদ্দিন, মুনির হোসাইন ও ওয়ার্ড সভাপতি সিদ্দিুর রহমান, আবু আশা ও বিপুল সংখ্যক মুসল্লি অংশগ্রহণ করেন। পরে আজিমপুর কবরস্থানে তার দাফন সম্পন্ন করা হয়। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ