ঢাকা, বৃহস্পতিবার 6 September 2018, ২২ ভাদ্র ১৪২৫, ২৫ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

২০ দিনের মধ্যে অন্তর্বর্তীকালীন সরকার সংসদ নির্বাচন ২৭ ডিসেম্বর -অর্থমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার : অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন আগামী ২৭ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হতে পারে। নির্বাচনকে সামনে রেখে আগামী ২০ দিনের মধ্যে অন্তর্বর্তীকালীন সরকার গঠন করা হবে।
গতকাল বুধবার সিলেট সিটি কর্পোরেশনের নবনির্বাচিত মেয়র ও কাউন্সিলররা সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎকালে উপস্থিত সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন মুহিত।
অর্থমন্ত্রী সরাসরিই বলেন, নির্বাচন কমিশনের সাথে কথা বলে জেনেছি তারা প্রস্তাব দিচ্ছে ২৭ ডিসেম্বরের নির্বাচন করার জন্য। ডিসেম্বরের খুব বেশি ডেইট নেই, আজকে শহীদ দিবস বিজয় দিবস অনেক কিছু থাকে। আমার মনে হয় দুই তিনটা ডেইট ছাড়া পাওয়া যায় না। ২৭ তারা করেছে, ২৭ এ নির্বাচন হওয়ার চান্স খুব বেশি। এখনো নির্বাচন কমিশন শিডিউল ঘোষণা করেনি, ঘোষণা করলে সুনির্দিষ্ট দিন পাওয়া যাবে। এই সম্ভাবনা সামনে রেখে আগামী ২০ দিনের মধ্যেই প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনকালীন সরকারের ঘোষণা দিতে পারেন বলে জানান মুহিত।
তিনি বলেন, একটি ছোট নির্বাচনকালীন সরকার হবে, এখানে সব পার্টির লোক থাকবে। নতুন কোনো ক্যারেক্টার আসবে না। তবে বিএনপি পার্লামেন্টে না থাকায় তাদের চান্স নেই। আগামী ২০ দিনের মধ্যে নির্বাচনকালীন সরকার হবে, কারণ ২৭ ডিসেম্বরে নির্বাচন হলে ২৫ বা ২৬ সেপ্টেম্বরের মধ্যে নির্বাচনকালীন সরকার হতে হবে, এটা আমার ধারণা। বর্তমান সংবিধান অনুযায়ী, তফসিল ঘোষণা হয়ে গেলে নির্বাচন পরিচালনা ও প্রশাসনের বেশ কিছু ক্ষমতা চলে যাবে নির্বাচন কমিশনের হাতে। সরকার কেবল রাষ্ট্র পরিচালনার জন্য প্রয়োজনীয় দৈনন্দিন কাজগুলোই করবে। আমার নিজস্ব ধারণা, প্রুতিদ্বন্দ্বীতাপূর্ণ নির্বাচন হবে।
নির্বাচনকালীন সরকারে বিএনপি থাকার সুযোগ নেই বলে মন্তব্য করে অর্থমন্ত্রী বলেন, নির্বাচনকালীন সরকারে বিএনপির থাকার কোনও সুযোগ নেই। কারণ বর্তমান সংসদে দলটির কোনও প্রতিনিধি নেই। পত্র-পত্রিকায় দেখেছি, নির্বাচনকালীন সরকারে নাকি সুশীল সমাজের প্রতিনিধিও থাকবেন। কিন্তু এ তথ্যটি ঠিক নয়। নির্বাচনকালীন সরকারে সুশীল সমাজের প্রতিনিধি থাকার কোনও সুযোগ নেই।
অর্থমন্ত্রী বলেন, যে কারণে নির্বাচনকালীন সরকারে বিএনপি থাকতে পারছে না, সেখানে সুশীল সমাজের প্রতিনিধি থাকে কী করে? তাহলে তো আইন ভঙ্গ হবে। নির্বাচনকালীন সরকারে সুশীল সমাজের প্রতিনিধি থাকার সুযোগ থাকলে তো বিএনপিও থাকতে পারতো।
তবে মন্ত্রিসভায় যারাই থাকুক, আগামী নির্বাচন পুরোপুরি গ্রহণযোগ্য হবে বলেও নিশ্চয়তা দেন মুহিত। বলেন, ‘নির্বাচন কমিশনে অনেক সংস্কার হয়েছে। এবার নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে।তিনি বলেন, ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন ছাড়া জাতীয় নির্বাচন কখনোই পুরোপুরি সুষ্ঠু করা সম্ভব নয়। নির্বাচন কমিশনে অনেক সংস্কার হয়েছে। এবার নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে।
জাতীয় নির্বাচন বিএনপি অংশ নেবে- এমন আশাবাদ ব্যক্ত করে মুহিত বলেন, আগামী নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে অনুষ্ঠিত হবে। আশা করছি বিএনপিও নির্বাচনে অংশ নেবে। কারণ তারা জানে, নির্বাচনে না এলে রাজনৈতিক দেউলিয়াত্ব তাদেরকে গ্রাস করবে। তারা অদৃশ্য হয়ে যাবে। অনুষ্ঠানে সিসিক মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী ও কাউন্সিলররা উপস্থিত ছিলেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ