ঢাকা, বৃহস্পতিবার 6 September 2018, ২২ ভাদ্র ১৪২৫, ২৫ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

খুলনায় মেঘনা তেল ডিপোর অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় আরও এক শ্রমিকের মৃত্যু

খুলনা অফিস: মেঘনা তেল ডিপোর অগ্নিকান্ডের ঘটনায় অগ্নিদগ্ধে আহত মো. রুবেল হোসে মীর (২৫) নামে আরও একজন ট্যাংকলরী শ্রমিক মারা গেছে। মঙ্গলবার বিকেল পৌণে ৫টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে রুবেল মীর মারা যান। অগ্নিকান্ডে রুবলেসহ মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ৪।
গত ২০ আগস্ট মেঘনা তেল ডিপোতে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। ঘটনাস্থলে ডিপোর মিটারম্যান শরিফ মো. কামাল হোসেন ও ট্যাংকলরী শ্রমিক মো. রাজু অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারা যায়। ঘটনায় ৭ জন অগ্নিদগ্ধ হয়ে গুরুতর আহত হয়। আহতদের মধ্যে তেল ডিপোর মিটারম্যান মো. ইসমাইল হোসেন, মিটারম্যান মো. আনোয়ার হোসেন, ট্যাংকলরী চালক মীর রুবলে হোসেন, ডিপোর অস্থায়ী শ্রমিক আনোয়ার হোসেন আনু, ট্যাংকলরী চালক আব্দুল ওহাব ও টোটন ফিলিং স্টেশনের ট্যাংকলরীর হেলপার মো. মোজাম্মেল হক, খুলনা বিভাগীয় ট্যাংকলরী শ্রমিক ইউনিয়নের সাবেক প্রচার সম্পাদক মো. এমদাদুল হকের ট্যাংকলরীর হেলপার মো. সুজন মিয়া। এর মধ্যে মিটারম্যান মো. ইসমাইল হোসেন, সুজন মিয়া ও রুবেল হোসেন মীরের অবস্থা আশঙ্কাজনক থাকায় থাকায় তাদের ওই দিন হেলিকপ্টারযোগে ঢাকায় পাঠানো হয়। গত ২৫ আগস্ট ট্যাংকলরীর হেলপার সুজন মিয়া চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যাওয়ার পর মঙ্গলবার রুবেল হোসেন মীর মারা যায়। বর্তমানে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে মিটারম্যান মো. ইসমাইল হোসেন। খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি আছে আনোয়ার হোসেন আনু, মোজাম্মেল হক, আ. ওহাব। তবে মিটারম্যান ইসমাইল হোসেনের অবস্থা সঙ্কটাপন্ন। রুবলে মীরের মৃত্যুর সংবাদটি নিশ্চিত করেছেন খুলনা বিভাগীয় ট্যাংকলরী শ্রমিক ইউনিয়নের কোষাধ্যক্ষ মিজানুর রহমান মিজু। তিনি বলেন, রুবেলের কফিন তার পরিবারের লোকজন খুলনায় নিয়ে এসেছে।
এদিকে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন (বিপিসি)’র তিন সদস্য তদন্ত কমিটি তিন দিন খুলনা অবস্থান করার পর তারা অগ্নিকান্ডের ভিডিও ফুটেজ ও বিভিন্ন তথ্য এবং আলমত সংগ্রহ করে মঙ্গলবার ঢাকায় ফিরে গেছেন। এবার বিপিসির চেয়ারম্যান সরেজমিনে তদন্ত করতে আসবেন। আগামী দুই একদিনের মধ্যে তিনি খুলনায় আসছেন বলে মেঘনা তেল ডিপো সূত্রে জানা গেছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ