ঢাকা, শুক্রবার 7 September 2018, ২৩ ভাদ্র ১৪২৫, ২৬ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

জয় দিয়ে এশিয়া কাপ শুরু করতে চাই------------মাশরাফি

স্পোর্টস রিপোর্টার : আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে দবাইতে শুরু হচ্ছে এশিয়া কাপ ক্রিকেট। এশিয়া কাপের এটা ১৪তম আসর। বাংলাদেশ দল সংযুক্ত আরব আমিরাতে এশিয়া কাপ মিশনে উড়াল দেবে রোববার। তার আগে গতকাল মিরপুরে আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে এশিয়া কাপ নিয়ে কথা বলেছেন বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। মাশরাফি বিন মুর্তজা আগেই বলেছেন, এশিয়া কাপে বাংলাদেশের লক্ষ্য চ্যাম্পিয়ন হওয়া। নিজেদের লক্ষ্যে অটুট আছে বাংলাদেশ। তবে এর জন্য শুরুটা ভালো চান বাংলাদেশ অধিনায়ক। এশিয়া কাপের উদ্বোধনী ম্যাচে মাঠে নামবে বাংলাদেশ। প্রথম ম্যাচেই দলটির প্রতিপক্ষ শ্রীলংকা। তবে প্রথম ম্যাচেই জয় দিয়ে শুরু করতে চান বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। অধিনায়ক মাশরাফি বলেন, ‘প্রথম ম্যাচটা আমাদের জন্য অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। আমরা এশিয়া কাপে কেমন করব, সেটা নির্ভর করবে শ্রীলংকার বিপক্ষে ম্যাচের পারফরম্যান্সের উপর। আমরা যদি ম্যাচটা জিততে পারি, তাহলে আমরা শুরুতেই আত্মবিশ্বাস পেয়ে যাব। আমাদের সামর্থ্য আছে ভালো খেলার। দলে ভালো মানের ক্রিকেটার আছে, যারা ম্যাচ উইনার। যদি প্রথম ম্যাচটা জিততে পারি আমরা তবে আমাদের ভালো করার সুযোগ থাকবে।’প্রথম ম্যাচে লংকানদের বিপক্ষে জয় দিয়ে শুরু করতে চান বাংলাদেশের অধিনায়ক মাশরাফি। শুরুটা দুর্দান্ত হলে টুর্নামেন্টে আত্মবিশ্বাসী হয়ে পথ চলতে পারবে বাংলাদেশ বলে মনে করেন ম্যাশ। তিনি বলেন, ‘শ্রীলংকার বিপক্ষে প্রথম ম্যাচটি গুরুত্বপূর্র্ণ। ভারত অনেক শক্তিশালী দল, পাকিস্তানও ভাল দল। তবে আমি মনে করি এই দু’দলকে হারানোর সামর্থ্য আমাদের আছে। আমরা এই দুই দলের  চেয়ে খুব বেশি পিছিয়ে নেই। এজন্য টুর্নামেন্টের শুরুটা ভালোভাবে করতে হবে আমাদের।’ ২০১২ ও ২০১৬ সালে এশিয়া কাপে ফাইনালে উঠেছিলো বাংলাদেশ। কিন্তু শিরোপার স্বাদ নিতে পারেনি তারা। তাই আসন্ন আসরে আরও ভালো কিছু করার ব্যাপারে আশাবাদী বাংলাদেশ। যা বলেছেন দলের অন্যরাও। কিন্তু এখনই ফাইনাল বা শিরোপা নিয়ে ভাবতে রাজি নন মাশরাফি। তিনি বলেন, ‘আগে দু’বার ফাইনাল খেলেছি আমরা। এটি কোন প্রভাব ফেলবে না। কারণ এটি নতুন টুর্নামেন্ট, নতুন জায়গা। এখানে সব কিছুই নতুন করে শুরু করতে হবে। আমার মূল ভাবনা, প্রথম ম্যাচ নিয়ে। আমরা শুরুটা কিভাবে করবো, এটি এখন আসল। আমাদের মূল মিশন শুরু প্রথম ম্যাচ দিয়েই। এই ম্যাচটিই আমাদের গতিপথ ঠিক করে দিবে।’ আঙ্গুলের ইনজুরির কারণে পুরোপুরি ফিট নন বাংলাদেশের সেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। তারপরও তাকে দলে রেখেছে বাংলাদেশ। সাকিবের দলে থাকাটাকে ইতিবাচকভাবে দেখছেন মাশরাফি। তিনি বলেন, ‘ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে সাকিবের পারফরম্যান্স ছিল দারুণ। দলের জয়ে তার অনেক অবদান ছিল। যদি ঐ পারফরম্যান্স এশিয়া কাপে থাকে, তাহলে খুবই ভালো। সাকিবের খেলার সিদ্ধান্ত সাকিবের নিজের। সাকিব থাকলে পুরো দলই অনেক উজ্জীবিত হয়ে ওঠে।’ আর তিন উইকেট হলে ছাড়িয়ে যাবেন গতিদানব শোয়েব আখতারকে, পাঁচ উইকেট হলে নাম লেখাবেন আড়াইশো উইকেট শিকারীর ক্লাবে। আসন্ন এশিয়া কাপে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের অধিনায়ক মাশরাফির সামনে হাতছানি দিচ্ছে এই রেকর্ড। ১৯০ ম্যাচের ওয়ানডে ক্যারিয়ারে এখনো পর্যন্ত ২৪৫ উইকেট শিকার করেছেন মাশরাফি। ওয়ানডে ইতিহাসের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারির তালিকায় মাশরাফির অবস্থান ২৭। ২৪৭ উইকেট নিয়ে মাশরাফির উপরেই অবস্থান শোয়েব আখতারের। ৩ উইকেট হলে মাশরাফি উঠে যাবে ২৬’এ, ৫টি হলে পূরণ করবেন ২৫০ উইকেটের মাইলফলক। তবে মাশরাফি ভাবছেন না এসব  ব্যাপারে। দলের জন্য অবদান রাখতে পারলেই তিনি খুশি বলে জানান। এ নিয়ে মাশরাফি বলেন, ‘আমার নিজের কোন লক্ষ্য থাকে না। ওয়েস্ট ইন্ডিজেও লক্ষ্য নিয়ে যাই নি, এখানেও যাবো না। কখনো এমন লক্ষ্য নিয়ে যাই না। আমি চেষ্টা করব অবদান রাখার, যতটুক পারি। এটা খারাপও হতে পারে ভালোও হতে পারে। এটা নিয়ে আসলে এত মাথা ব্যথা নেই। আর টুর্নামেন্টের শুরুতে তো থাকেই না।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ