ঢাকা, শনিবার 8 September 2018, ২৪ ভাদ্র ১৪২৫, ২৭ জিলহজ্ব ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

অতি চাটুকারী করে প্রধানমন্ত্রীকে বিব্রত ও পেশাকে ক্ষতিগ্রস্ত করার দরকার নেই ----নঈম নিজাম

 স্টাফ রিপোর্টার : ‘বাংলাদেশ প্রতিদিন’এর সম্পাদক নঈম নিজাম প্রধানমন্ত্রীর সাংবাদিক সম্মেলনে প্রশ্ন করা নিয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন। এতে তিনি বলেন, লাইভ সংবাদ সম্মেলনে অতি চাটুকারী করে প্রধানমন্ত্রীকে বিব্রত ও একটি পেশাকে ক্ষতিগ্রস্ত করার দরকার নেই। বৃহস্পতিবার দেয়া স্ট্যাটাসে তিনি বলেন, “আমি আওয়ামী লীগ বিট করতাম। ১৯৯১ সালের নির্বাচনকালীন সময় এবং এর পরে বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর সাথে আমরা অল্প কয়েকজন সাংবাদিক সারা বাংলাদেশ সফর করেছি। সর্বশেষ ২০০৫ সালের সেপ্টেম্বর মাসে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর সাথে দিল্লী ও আজমির গিয়েছিলাম।

অনেক সংবাদ সম্মেলনে অংশ নিয়েছি একজন সংবাদকর্মী হিসেবে। ২০০১ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতার বাইরে যাওয়ার পর ওবায়দুল কবীর, প্রণব সাহা, পীর হাবিবুর রহমানসহ আমরা কয়েকজন সংবাদকর্মীই প্রথম সাক্ষাৎ করি তার সাথে। বিট করার সময় কিংবা এখনো আমরা শেখ হাসিনার পক্ষে লেখালেখিও করছি, করেছি। কিন্তু সংবাদ সম্মেলনে প্রশ্নের বাইরে কোনো উপমা যোগ করিনি। ব্যত্তিগতভাবে দীর্ঘ সময় নিয়ে শেখ হাসিনার সাথে কথা বলার সৌভাগ্য আমার হয়েছিল; প্রধানমন্ত্রী কিংবা বিরোধীদলীয় নেতা থাকাকালে।

একলা কথা বলার সময় তার সামনে আলাদা করে প্রশংসা করেছি, আবার নেতিবাচক দিকগুলোও তুলে ধরেছি। আওয়ামী লীগের নেতিবাচক কোনো কাজের সমালোচনার জবাবও দিতেন তিনি। অনেক সাক্ষাৎকারও নিয়েছিলাম। তখন এত সাংবাদিক ছিল না। মৃনাল কান্তি দে আর নজীব আহমেদের নেতৃত্বে সারা দেশ ঘুরার অভিজ্ঞতা  হাতেগোনা কয়েকজন সাংবাদিকের।

সব সময় আওয়ামী লীগ সভানেত্রী খেতে বসার আগে জানতে চাইতেন, সফরসঙ্গী, সাংবাদিক ও নিরাপত্তারক্ষীরা খেয়েছেন কিনা। তখন সংবাদ সম্মেলনে আমরা শুধু প্রশ্ন করতাম। উপমা দিতাম না। কিন্তুু এখন অনেক কিছু দেখে বিস্মিত হই। 

প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলনে ২০১০ সালের পর থেকে এক নতুন সংস্কৃতি চালু হয়েছে। এই সংস্কৃতি আগে ছিল না। ২০১৪ সালের পর এই সংস্কৃতির আরও ডালপালা বেড়েছে। অনুজদের কোনো দোষ নেই। এই সংস্কৃতি প্রবীণরা শিখিয়েছে নবীনদের। যে শেখ হাসিনাকে আমি চিনি, জানি তিনি এই সংস্কৃতির মানুষ না। তার সামনে নেতিবাচক কথা বলা যায়।

একটা সময় শেখ হাসিনার ইমেজ বাড়ানোর জন্য নিউজ মিডিয়া নামে একটি নিউজ এজেন্সি আমি করেছিলাম। জনকণ্ঠ, ইত্তেফাক, ইনকিলাব, খবর, রূপালীসহ বেশিরভাগ কাগজে এই এজেন্সির খবর প্রকাশ হতো। মারুফ চিনু, মোহসীন আব্বাস, আরিফ রহমান, উত্তম চক্রবর্তী, শাবান মাহমুদ, সোহেল সানি, শাহীন রহমান, সিদ্দিকুর রহমান মান্নাসহ একদল সাংবাদিক এখানে কাজ করতেন। আমাদের যুগে সংবাদ সম্মেলনে গেলে প্রশ্ন করতাম। শেখ হাসিনার প্রশংসাগুলো তার সামনে সাংবাদিকরা করতেন না। তবে করতেন ব্যক্তিগত আলাপচারীতায় অথবা পত্রিকায় লেখার মধ্য দিয়ে।

অনুজদের প্রতি অনুরোধ, আমাদের কিছু মানুষ অকারণে সংবাদ সম্মেলনে বেশি কথা বলেছেন, বলছেন। কিন্তু তা অনুকরণের দরকার নেই। সংবাদ সম্মেলনে প্রশ্ন কর সবাই। জানতে চাও। প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসা করতে হলে, লেখো, টকশোতে কথা বল। তা না পারলে মানুষের সামনে হেঁটে হেঁটে বল। ফেসবুকে লেখো। অনলাইনে লেখো। লাইভ সংবাদ সম্মেলনে অতি চাটুকারী করে প্রধানমন্ত্রীকে বিব্রত ও একটি পেশাকে ক্ষতিগ্রস্ত করার দরকার নেই। আর সিনিয়রদের বলছি, অনেক তো হলো প্লিজ নির্লজ্জের মতো নবীনদের এমন কিছু শেখাবেন না। যা বিব্রত করে সবাইকে।”

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ